এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিধানসভার আগে মাস্টারস্ট্রোক অভিষেকের? যুবশক্তিতে কন্যাশ্রীর জোয়ারে বিজেপিকে মাতের পরিকল্পনা

বিধানসভার আগে মাস্টারস্ট্রোক অভিষেকের? যুবশক্তিতে কন্যাশ্রীর জোয়ারে বিজেপিকে মাতের পরিকল্পনা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট বিধানসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে, ততই তৃণমূলের পক্ষ থেকে নতুন নতুন কর্মকাণ্ড প্রস্তুত করা হচ্ছে রাজ্যবাসীর উদ্দেশ্যে। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুরু করেছিলেন বহুদিন আগেই অন্যতম প্রকল্প কন্যাশ্রী। এই প্রকল্পের মধ্যে দিয়ে বাংলার স্কুলপড়ুয়া মেয়েদের আর্থিক সাহায্য করা হয়। এবার তৃণমূল যুব শক্তির সাথে তৃণমূল কন্যাশ্রীকে মিলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। এই সূত্রে সম্প্রতি তৃণমূলের পক্ষ থেকে একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে, যার নাম দেওয়া হচ্ছে বাংলার যুব শক্তি কর্মশালা।

আগামী 14 ই আগস্ট কন্যাশ্রী দিবস এবং 15 ই আগস্ট স্বাধীনতা দিবস। এই দিনগুলিকে সামনে রেখেই তৃণমূল যুব শিবির প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে। ইতিমধ্যে তৃণমূলের যুব কংগ্রেসের 2 রাজ্য সভাপতি সোহম চক্রবর্তী ও সান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায় এবং নির্মাল্য চক্রবর্তী রাজ্যের কো-অর্ডিনেটর হিসেবে এই কর্মসূচি দেখার দায়িত্বে রয়েছেন বলে জানা গেছে। আপাতত এনাদের অধীনে রয়েছে বাঁকুড়া, দুই বর্ধমান, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম ও পুরুলিয়া জেলা।

সম্প্রতি এই তিনজন বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার বিধানসভাগুলিকে নিয়ে বাংলার যুবশক্তি কর্মশালায় উপস্থিত হয়েছিলেন। সেখানেই তাঁদের সাথে ছিলেন বাঁকুড়া জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভানেত্রী অর্চিতা বিদ। আর এই কর্মশালা থেকেই ঘোষণা করা হয়, উক্ত 6 টি জালা থেকে 14 ই আগস্ট কন্যাশ্রী দিবসের দিন কন্যাশ্রীদের যুবশক্তি হিসেবে নিযুক্ত করা হবে। এই উদ্দেশ্যে ইতিমধ্যে 6 টি জেলার প্রতিটি অঞ্চলে নাম নথিভুক্ত করার জন্য একটি করে শিবিরের আয়োজন করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি সোহম চক্রবর্তী জানিয়েছেন, বাংলার যুবশক্তি কর্মসূচি দারুণ সাড়া ফেলেছে ইতিমধ্যেই। রোজ প্রচুর যুবযোদ্ধা তাঁদের কর্মসূচিতে সামিল হচ্ছেন। আপাতত তাঁদের লক্ষ্য 10 লক্ষ যুব যোদ্ধা নিয়োগের। অন্যদিকে এদিন সোহম তৃণমূল রাজ্য যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন। তবে জানা গেছে এই কর্মসূচির বিভিন্ন টেকনিক্যাল দিকগুলি কো-অর্ডিনেটর নির্মাল্য চক্রবর্তী খুব সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার 11 ই আগস্ট বাঁকুড়ার সাংগঠনিক জেলার বিধানসভাগুলি নিয়ে আগামী যুবশক্তি কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে। অন্যদিকে বিশেষজ্ঞদের মতে, একুশের বিধানসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখে বর্তমানে বাংলার যাবতীয় রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড হয়ে চলেছে। তৃণমূল শিবিরের পক্ষ থেকে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে সংগঠনে। আর এবার তৃণমূল যুব সংগঠনেও শুরু হয়েছে নতুন পরিকল্পনা রূপায়ণের কাজ। তবে তৃণমূল যে আদতে গেরুয়া শিবিরকে টেক্কা দিতে আসরে নেমেছে, সেকথা অনস্বীকার্য বলেই মেনে নিচ্ছে রাজনৈতিক মহল। আপাতত দেখার, তৃণমূলের যুবশক্তি কন্যাশ্রীদের অন্তর্ভুক্ত করার ফলে কতটা শক্তি সঞ্চয় করে!

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!