এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলায় শিল্পের সম্প্রসারণ থেকে অর্থনৈতিক উন্নতি-একগুচ্ছ সুখবর শোনালেন ‘মোদীর দূত’

বাংলায় শিল্পের সম্প্রসারণ থেকে অর্থনৈতিক উন্নতি-একগুচ্ছ সুখবর শোনালেন ‘মোদীর দূত’



লোকসভা ভোটের প্রস্তুতি পর্বে বঙ্গ বিজেপির সংগঠন খতিয়ে দেখতে দফায় দফায় বিশিষ্ট মন্ত্রীদের রাজ্যে পাঠাচ্ছেন মোদীসরকার। কেন্দ্রের রাশ এবারও নিজেদের হাতে রাখতে মরিয়া বিজেপি। তার জন্যে প্রচার পর্বের পাশাপাশি দলের সাংগঠনিক দূর্বলতার মেরামত প্রয়োজন। প্রয়োজন যুদ্ধের জন্য নতুন ভাবে ঘুটি সাজানোর। সেই কর্মসূচি নিয়েই কিছুদিন আগেই জাতীয় বিজেপি নেতৃত্ব অমিত শাহ বঙ্গে উড়ে এসেছিলেন। আবার খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও চলতি মাসের ১৬ তারিখ মেদিনীপুরে কৃষক সমাবেশ করতে বঙ্গ সফরে আসবেন। এরই মাঝে গতকাল ছুটির দিনেও রাজ্য থেকে ঘুরে গেলেন দেশের শিল্প বানিজ্য ও অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী সুরেশ প্রভু। বাংলার বাণিজ্যিক এবং অর্থনীতির উন্নয়ন সংক্রান্ত মোদী সরকারের একগুচ্ছ পরিকল্পনা কথা জানিয়ে গেলেন তিনি। তার আগের দিন আবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শাহনওয়াজ হুসেনও এসেছিলেন। তিনি রাজ্য বিজেপির সদর দফতরে এসে সাংবাদিক বৈঠক করে গেছেন। আর রবিবারে একই জায়গায় সাংবাদিক বৈঠক করলেন সুরেশজি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এই সম্মেলনেই তুলে ধরলেন বাংলার শিল্পের অগ্রগতি,বাংলা থেকে রপ্তানির হার বাড়ানো,কোলকাতা বিমানবন্দরের সম্প্রসারণ,এবং এয়রক্রাফ্ট ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিট গড়ে তোলা সংক্রান্ত মোদী সরকারের ভাবনার কথা। জানালেন, বাংলা একসময় গোটা দেশেরই আর্থিক রাজধানী ছিল। কেন্দ্র চেষ্টা করে যাচ্ছে বাংলাকে যেন সেই পুরানো গরিমায় ফিরিয়ে আনতে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের আর্থিক এবং বানিজ্যিক বিকাশে কেন্দ্রের পরিকল্পনাটি যে আসলে, তারও একটি স্পষ্ট ধারণা প্রভুর বক্তব্য থেকে পাওয়া যায়নি। তবে কোলকাতা বিমানবন্দরের সংস্কার এবং বিমান শিল্পের উন্নয়ন নিয়ে কেন্দ্রের পরিকল্পনার সরল রুপরেখা দিলেন মন্ত্রী। জানালেন,কোলকাতা বিমানবন্দরের সম্প্রসারণ করতে চলেছে মোদীসরকার। এর জেরে আগামী দিনে বাড়তে পারে বিমানবন্দরের ব্যস্ততা। তবে এটি বিমানবন্দরকে সক্ষমতার শেষ সীমায় পৌছে দেবে। এই কর্মসূচির বাস্তবায়নের জন্য রাজ্যের কাছে সম্প্রতি জমিও চেয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এমনটাই জানালেন তিনি। বিমানবন্দরের আয়তন বৃদ্ধির পাশাপাশি বঙ্গে বিমান তৈরি এবং ড্রোন তৈরি ফ্যাক্টরি গড়ার কথা ভাবছে কেন্দ্র। অসামরিক বিমান পরিবহনে ভারতকে আত্মনির্ভর হতে দেশের বুকেই তৈরি করতে হবে বিমান। এমন মন্তব্য সুরেশ প্রভু অন্য একটি অনুষ্ঠানেও বলেছিলেন। এদিনের সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি আরো জানান যে, উক্ত কর্মসূচি গুলির কাজ শুরু হলে এ রাজ্যের মাটিতে প্রচুর কর্মসংস্থান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এর জেরে বঙ্গের যুব সমাজের বেশ সিংহভাগ অংশেরই বেকারত্বের জ্বালা মিটবে বলে আশ্বাস দিলেন মোদীজির এই প্রধান দূত।

দফায় দফায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের বঙ্গে আসায় রাজ্যবিজেপি শিবিরের কর্মতৎপরতা এখন তুঙ্গে রয়েছে। তাছাড়া প্রধানমন্ত্রী মোদীজি আসার খবর থেকে উত্তেজনার পারা চড়ছে ক্রমশ। বঙ্গবিজেপির সংগঠনকে শক্তিশালী ভাবে কেন্দ্রের সামনে তুলে ধরতে কোমর বেঁধে ময়দানে নেমে গেছেন তাঁরা। দলীয় ভাবমূর্তি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে মোদীজিকে কতটা ভরসা যোগাতে পারে সেটাই এখন দেখার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!