এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বাংলায় ঘৃণ্য রাজনীতি শুরু করেছে গেরুয়া শিবির। তোপ শাসক শিবিরের

বাংলায় ঘৃণ্য রাজনীতি শুরু করেছে গেরুয়া শিবির। তোপ শাসক শিবিরের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বাংলার সংস্কৃতির সঙ্গে বিজেপি পরিচিত নয় – এই বার্তা তুলে ধরে বারবার বিজেপিকে বাংলা বিদ্বেষী দল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করতে দেখা গেছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। প্রতিটি সভা থেকেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে তার দলের অন্যান্য নেতারা সেই বিজেপি নেতৃত্বকে বাংলা বিরোধী বলে দাবি করেছেন।

যার ফলে অনেকটাই চাপে পড়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। সামনেই 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে এবার উত্তরবঙ্গে পা রেখে জলপাইগুড়ি সভা থেকে বিজেপির বিরুদ্ধে বাংলায় ঘৃণ্য রাজনীতি করার অভিযোগ তুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্বাভাবিকভাবেই উত্তরবঙ্গের মাটি থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিজেপির বিরুদ্ধে এই ধরনের বার্তা নিঃসন্দেহে তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার জলপাইগুড়ির অরবিন্দ ব্যায়ামাগার পাঠাগার এবং ক্লাব ময়দানে একটি জনসভা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে বিজেপিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন তিনি। তৃণমূল নেত্রী বলেন, “ওরা বাংলায় এক নতুন ধর্ম এনেছে। ঘৃণ্য ধর্ম। এভাবে ওরা বাংলাকে ধ্বংস করতে চায়, বাংলার মেরুদণ্ড ভেঙে ফেলতে চাইছে। আমি কোনভাবেই বিজেপির এই আচরণ বরদাস্ত করব না। বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলার পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর হবে। তাই বিজেপির বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়তে হবে।”

অর্থাৎ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে বিজেপি বিরোধীতার বার্তা দিয়ে বুঝিয়ে দিতে চাইলেন, বিজেপি বাংলার ক্ষতি করতে চাইছে। সামনে নির্বাচন। তার আগে গেরুয়া শিবিরের শীর্ষ নেতারা বাংলায় বারবার আসতে শুরু করেছেন। কিছুদিনের মধ্যেই রাজ্যে আসতে পারেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। স্বাভাবিক ভাবেই বিজেপির হেভিওয়েট নেতাদের বাংলায় আগমনের ফলে চাপ বাড়ছে তৃণমূল কংগ্রেসের ওপর। আর এই পরিস্থিতিতে ময়দানে নেমে উত্তরবঙ্গের সভা থেকে সেই বিজেপিকে কাঠগড়ায় তুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বস্তুত, সম্প্রতি বিজেপির পক্ষ থেকে চাকরির প্রতিশ্রুতি কার্ড দেওয়ার ঘোষণা করা হয়েছে। অর্থাৎ বেকারদের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার নিরাপত্তা দিচ্ছে না, একথা বুঝিয়ে তারা ক্ষমতায় আসলে বেকারদের কর্মসংস্থানের বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এদিন জলপাইগুড়ির সভা থেকে বিজেপির সেই প্রতিশ্রুতিকে “ভুয়ো” বলে দাবি করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তৃণমূল নেত্রী বলেন, “চাকরির প্রতিশ্রুতি বলে কিছু হয় না। ওটা পুরোটাই প্রতারণা, মিথ্যে। অতীতেও নানা প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। আদৌ কারও অ্যাকাউন্টে 15 লক্ষ টাকা গিয়েছে! মোদি সরকারের আমলে ভারতে বেকারত্ব বেড়েছে।” এদিকে ডিসেম্বরের পর মারা হবে বলে কিছুদিন আগেই বিতর্কিত মন্তব্য করেছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। আর উত্তরবঙ্গের সভা থেকে তার জবাব দিতেও দেখা যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।

তিনি বলেন, “মেরে দেখাক। আমার গায়ে আঘাত করলে আমি প্রত্যাঘাত করব।” সব মিলিয়ে উত্তরবঙ্গের মাটিতে দাঁড়িয়ে বিজেপিকে কড়া ভাষায় হুঁশিয়ারি দিয়ে সরব হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে বিজেপিকে বাংলা বিদ্বেষী দল বলে ঘৃণ্য রাজনীতি করার অভিযোগ করতে দেখা গেল তাকে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!