এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > “অত্যাচার হলে চুপ করে বসে থাকবে না বিজেপি” বাংলায় এসে হুঁশিয়ারি নাড্ডার!

“অত্যাচার হলে চুপ করে বসে থাকবে না বিজেপি” বাংলায় এসে হুঁশিয়ারি নাড্ডার!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – রাজ্যে বহু সভা-সমিতি করেও নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারেনি ভারতীয় জনতা পার্টি। এবার তারা আশা করেছিল, রাজ্যের ক্ষমতা দখল করবে। কিন্তু তৃতীয়বারের জন্য বিপুল আসন নিয়ে ফের রাজ্যের ক্ষমতায় বসতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে ভোটের ফলাফল প্রকাশের পর বিভিন্ন জায়গায় অশান্তির খবর সামনে আসতে শুরু করেছে। যেখানে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তৃণমূল জয়লাভ করে বিরোধী দল বিজেপির নেতা কর্মীদের ওপর হামলা করছে বলে অভিযোগ।

আর এই পরিস্থিতিতে দলের নিহত এবং আক্রান্ত নেতাকর্মী এবং তাদের পরিবারের পাশে দাঁড়াতে রাজ্যে এসেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। তৃণমূলের হামলার জেরে যে সমস্ত কর্মী প্রাণত্যাগ করেছেন, তাদের বাড়ি গিয়ে দেখা করেছেন জেপি নাড্ডা। আর তারপরই রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেছে বিজেপির সর্বোচ্চ সেনাপতিকে। অত্যাচার করলে বিজেপি যে চুপ করে বসে থাকবে না, তা নিজের মন্তব্যের মধ্য দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার রাজ্যে আসেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। যেখানে দক্ষিণ 24 পরগনার সোনারপুরের গোপালপুরে আক্রান্ত বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে যান তিনি। আর তারপরই তাদের নেতা-কর্মীদের ওপর যেভাবে হামলা করা হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা যায় বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতিকে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তৃণমূলের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, “এভাবে অত্যাচার করলে বিজেপি চুপ করে বসে থাকবে না। গণতান্ত্রিক উপায়ে এর জবাব দেওয়া হবে।” স্বাভাবিক ভাবেই বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতির এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে কিছুটা হলেও আশ্বস্ত হয়েছেন দলের নেতাকর্মীরা। অনেকে বলছেন, পরাজিত হওয়ার পর বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি নেতাকর্মীরা গুটিয়ে নিয়েছেন নিজেদের। অনেক ক্ষেত্রেই তৃণমূলের হামলার মুখে পড়তে হচ্ছে তাদেরকে।

তাই এই পরিস্থিতিতে রাজ্যে এসে আক্রান্ত নেতাকর্মীদের পাশে দাঁড়িয়ে দলকে চাঙ্গা করার চেষ্টা করছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। পাশাপাশি তৃণমূলের উদ্দেশ্য হুঁশিয়ারি দিয়ে এবার যে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে জবাব দেওয়া হবে, তাও বুঝিয়ে দিলেন জেপি নাড্ডা বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। অনেকে বলছেন, বিজেপি এবার রাজ্যে 200 আসন দখলের টার্গেট নিয়ে এগিয়ে গিয়েছিল। এক্ষেত্রে বারবার রাজ্যে সভা করে গেছেন প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, এমনকি বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। কিন্তু তা সত্ত্বেও তৃণমূলকে আটকানো সম্ভব হয়নি।

বিজেপির পক্ষে 200 আসন দখল করা তো দূরের কথা, 80-এর গণ্ডি পার হতে গিয়ে রীতিমত হিমশিম খেতে হয়েছে। তাই এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের পক্ষ থেকে আক্রমণ নেমে আসছে বলে অভিযোগ করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। তাই দলের নেতাকর্মীরা যাতে মুষড়ে না পড়েন, তার জন্য রাজ্যে এসে তাদেরকে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে লড়াই করার আহ্বান জানিয়ে তৃণমূলকে কার্যত হুঁশিয়ারি দিয়ে দিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, দলের সর্বোচ্চ নেতার এই টনিক নেতা-কর্মীদের উজ্জীবিত রাখতে কতটা কাজে দেয়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!