এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বিধানসভার আগে হেভিওয়েট মন্ত্রীর সামনে দ্বন্দ্বে জড়াল তৃণমূল নেতারা, জোর অস্বস্তি শাসকদলে!

বিধানসভার আগে হেভিওয়েট মন্ত্রীর সামনে দ্বন্দ্বে জড়াল তৃণমূল নেতারা, জোর অস্বস্তি শাসকদলে!



গত লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের অনেক আসন হারানোর মূল কারণ হল, দলের ভেতরকার অনৈক্য। দলীয় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এমন এমন জায়গায় এমন আকার নিয়েছিল যে, এই গোষ্ঠী কোন্দলের ফলে অনেক আসনেই তৃণমূল প্রার্থীদের হেরে যেতে হয়। আর লোকসভায় দলের ভরাডুবির পর তৃণমূল দলের ভেতরকার ঐক্যকে যেমন মজবুত করার চেষ্টা করছে, ঠিক তেমনই ভালো এবং স্বচ্ছ ভাবমূর্তির লোকেদের সামনের সারিতে দাঁড় করিয়ে পৌরসভা নির্বাচনের বৈতরণী পার হতে চাইছে। পৌরসভা নির্বাচনের পাশাপাশি ফালাকাটা বিধানসভা উপনির্বাচন রয়েছে‌।

এখনও পর্যন্ত তার দিন ঘোষণা না হলেও, সম্প্রতি কিছুদিন আগেই প্রয়াত হয়েছেন ফালাকাটার তৃণমূল বিধায়ক অনিল অধিকারী। তাই সেখানে সাফল্য পেতে বিজেপি যেমন চেষ্টা করছে, ঠিক তেমনই নিজেদের দখলে থাকা এই আসুন নিজেদের দখলেই রাখতে চেষ্টার কমতি নেই তৃণমূল কংগ্রেসের। একদিকে পৌরসভা নির্বাচন আর অন্যদিকে ফালাকাটা বিধানসভা উপনির্বাচন যখন দরজায় কড়া নাড়ছে, ঠিক তখনই জেলা পর্যবেক্ষকের সামনেই তৃণমূলের দলীয় কোন্দলের ঘটনা ঘটল।

সূত্রের খবর, শনিবার আলিপুরদুয়ার শহরে জেলা তৃণমূলের কার্যালয়ে বারোটা থেকে দেড়টা পর্যন্ত দলের সমস্ত নেতাকর্মীর সাথে বৈঠক করেন জেলা পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী মলয় ঘটক। যেখানে প্রথমে ছাত্র-যুব এবং মহিলা শাখা সংগঠনের সঙ্গে বৈঠকের পর, পৌরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলারদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। জানা গেছে, এদিনের বৈঠকে পৌরসভা ভোটের পর সেখানকার চেয়ারম্যান কে হবেন, তা নিয়ে দুই নেতার মধ্যে তীব্র চাপানউতোর সৃষ্টি হয়। শহরের এক প্রাক্তন তৃণমূল কাউন্সিলর অন্য এক তৃণমূল নেতার নামে দলীয় কাজে হস্তক্ষেপের অভিযোগ জানান পর্যবেক্ষকের সামনে।

শুধু তাই নয় তৃণমূলের এক নেতা এক নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে রীতিমতো উত্তপ্ত হয়ে ওঠে তৃণমূলের এই রুদ্ধদ্বার বৈঠক যার ফলে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে পড়েন জেলা পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী মলয় ঘটক। আর নির্বাচনের আগে দলের অনৈক্য ভাব এখনও পর্যন্ত না যাওয়ায়, তৃণমূল নেতৃত্ব যে অনেকটাই অস্বস্তিতে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে ভেতর থেকে তৃণমূলের এই রুদ্ধদ্বার বৈঠকে গোষ্ঠী কোন্দলের আভাস পাওয়া গেলেও, বাইরে বেরিয়ে সেই সমস্ত কথা অস্বীকার করেছেন মলয় ঘটক।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তিনি বলেন, “দলীয় বৈঠক নিয়ে কিছু বলব না।” কিন্তু ভেতরে যেভাবে এক নেতা অন্য নেতার দিকে অভিযোগের আঙুল তুলতে শুরু করেছিলেন, তাতে তো পৌরসভা নির্বাচনের আগে দলের ভেতরের অনৈক্যের অভাবটাই বারবার ফুটে উঠছে! এদিন এই প্রসঙ্গে আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূল সভাপতি মৃদুল গোস্বামী বলেন, “বৈঠকে সাংগঠনিক আলোচনা হয়েছে। কোনো বিতর্ক হয়নি।”

তবে ড্যামেজ কন্ট্রোল করতে জেলা নেতা থেকে দলীয় পর্যবেক্ষক যে কথাই বলুন না কেন, দলে যে এখনও গোষ্ঠী কোন্দল রয়েছে এবং সেই গোষ্ঠী কোন্দল কিভাবে মেটানো যাবে, সেদিকেই এখন মাথা দিতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। সব মিলিয়ে এবার দলীয় শৃঙ্খলা ফেরাতে তৃণমূলের পক্ষ থেকে কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়, তার দিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!