এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > আশা জাগিয়েও বিজেপিতে খুলনা মুকুল রায়ের কপাল! জোড়া ধাক্কায় “বাংলার চাণক্যকে” নিয়ে জল্পনা!

আশা জাগিয়েও বিজেপিতে খুলনা মুকুল রায়ের কপাল! জোড়া ধাক্কায় “বাংলার চাণক্যকে” নিয়ে জল্পনা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – সম্প্রতি আশা তৈরি হয়েছিল তাকে কোনো গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দেওয়া হবে। বারবার তার দিল্লি সফর তার অনুগামীদের মধ্যে সেই আশার পারদ আরও দ্বিগুন করে দেখা দিয়েছিল। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশে অমর সিং রাইয়ের ছেড়ে যাওয়া রাজ্যসভা আসনে প্রার্থী করা হতে পারে বলে জল্পনা ছড়িয়ে পড়ে। আর এরপরই মুকুল রায়ের অনুগামীদের মধ্যে আশা তৈরি হয়, এবার হয়ত তাদের দাদা বড়সড় কোনো জায়গা পেতে পারেন।

কিন্তু না, উত্তরপ্রদেশে রাজ্যসভার যে আসন ফাঁকা হয়েছিল, এবার তার নির্বাচনের দিন যেমন ঘোষণা করল নির্বাচন কমিশন, ঠিক তেমনই বিজেপির তরফ থেকে ঘোষণা করে দেওয়া হল প্রার্থী। জানা গেছে, এখানে বিজেপির তরফ প্রার্থী করা হয়েছে সৈয়দ জাফর ইসলামকে। যার ফলে বাংলায় মুকুলবাবু এবং তার অনুগামীরা অনেকটাই হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়লেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তাহলে কি বারবার আশা ভঙ্গ হবে মুকুল রায়ের?

গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে বাংলায় 18 টি আসন পাইয়ে দেওয়ার পেছনে মুকুলবাবুর ভূমিকা অনস্বীকার্য। তৃণমূল থেকে হেভিওয়েট নেতাদের ভাঙিয়ে আনার পেছনে তার অবদান কখনই ভুলতে পারবে না ভারতীয় জনতা পার্টি।আগামী দিনে বিধানসভা নির্বাচনে যদি বিজেপিকে সাফল্য পেতে হয়, তাহলে মুকুল রায়ের মত চাণক্য মস্তিষ্ক অত্যন্ত প্রয়োজন গেরুয়া শিবিরের। কিন্তু তার নামের আগে বিজেপি নেতা শব্দ ছাড়া এখনও পর্যন্ত তেমন কোনো শব্দ বন্ধনী প্রয়োগ করা সম্ভব হয়নি।

তাই এই পরিস্থিতিতে যদি তাকে কোনো সরকারিভাবে বিজেপি দায়িত্ব না দেয়, তাহলে মুকুল রায় কতটা ব্যাটিং করবেন, তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। বস্তুত, তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের পর মুকুল রায় প্রায় প্রতিটি সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে ঘাসফুল শিবিরের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু সাম্প্রতিককালে তেমনভাবে লকডাউনের মুহূর্তে তাকে দেখা যায়নি‌।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

শুধু তাই নয়, বিজেপির নেতারা বিভিন্ন ইস্যুতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের বিরুদ্ধে সরব হলেও মুকুল রায় কার্যত নীরবতা পালন করে গিয়েছেন। যার ফলে তাঁর রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে তৈরি হয়েছিল জল্পনা। সকলেই দাবি করেছিলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিজেপিতে থেকে দলকে সাফল্য পাইয়ে দিয়েও যদি মুকুলবাবু দলের কোনো গুরুত্বপূর্ণ জায়গা না পান, তাহলে তিনি কেন এত পরিশ্রম করবেন, তাই তাকে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দেওয়ার পর তিনি আরও ভাল করে খেলতে শুরু করবেন।

যার ফলে সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশে রাজ্যসভার একটি আসন খালি হয়ে যাওয়ায় মুকুল রায়কে এইখানে প্রার্থী করতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টি বলে মনে করা হয়েছিল। কিন্তু এবার সেই আশাতেও যেভাবে জল পড়ে গেল, তাতে মুকুলবাবু এবং তার অনুগামীরা ব্যাপকভাবে ধাক্কা খেলেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক পরিস্থিতি। এখন গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!