এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আরও এক তৃণমূলী হেভিওয়েট রুপোলি সাংসদ এবার বেসুরো, ভাঙনের জল্পনা প্রবল

আরও এক তৃণমূলী হেভিওয়েট রুপোলি সাংসদ এবার বেসুরো, ভাঙনের জল্পনা প্রবল



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তৃণমূল শিবিরের কপালে আবারও চিন্তার ভাঁজ। আরও এক তৃণমূল সাংসদের গলায় বেসুরো আওয়াজ। গেরুয়া শিবিরের ইঙ্গিত আগেই ছিল, পৌষ সংক্রান্তির প্রাক্কালে আরোও একবার বড়োসড়ো দলবদল হতে চলেছে রাজ্যের শাসক শিবিরে। বিজেপির দাবিকেই উস্কে দিয়ে এবার তৃণমূলের অন্যতম রুপোলী সাংসদ শতাব্দি রায় এমন কিছু বার্তা দিলেন, যেখানে দলের বিরুদ্ধে তাঁর ক্ষোভ প্রকাশ পেয়েছে। উঠে এসেছে শতাব্দীর জমে থাকা আভিযোগ।

সম্প্রতি শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে গেছেন শাসক দলের তাবড় নেতা-নেত্রী। আর এবার শতাব্দি রায়ের কথায় শুরু হলো তীব্র রাজনৈতিক চাঞ্চল্য। এদিন শতাব্দি রায় ফ্যান ক্লাবের তরফ থেকে একটি পোস্ট করা হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে বীরভূমের মানুষকে সম্বোধন করে বলা হয়, শতাব্দী রায়কে দলের বহু কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছেনা। কারণ তিনি কোন দলীয় কর্মসূচীর কোনো খবর পাচ্ছেন না। শতাব্দি রায় আরও জানিয়েছেন দলের কাজে তিনি সর্বত্র যেতে চান, সব সময় থাকতে চান দলের পাশে।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর এরপরেই বড়সড় বোমা ফাটান তিনি। শতাব্দি আশংকা প্রকাশ করেছেন, কেউ কেউ চায়না তিনি মানুষের কাছে দলের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করুন। যদিও তিনি কারোর নাম স্পষ্ট করেননি। পাশাপাশি শতাব্দি জানিয়েছেন, নতুন বছরে তিনি এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেবেন যাতে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে তিনি কাজ করতে পারেন। আর সেক্ষেত্রে তিনি জানিয়েছেন, আগামী 16 ই জানুয়ারি শনিবার দুপুর দুটোয় শতাব্দি তাঁর সিদ্ধান্ত জানাবেন। যথারীতি বাংলার রাজনীতিতে আরো একবার বড়োসড়ো দলবদলের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

অন্যদিকে তৃণমূলের তরফ থেকে সৌগত রায় জানিয়েছেন, শতাব্দি রায় যথেষ্ট ইতিবাচক নেত্রী। তিনি অত্যন্ত সোজাসাপ্টা কথা বলেন। তবে দলের কর্মসূচিতে তাঁকে ডাকা হচ্ছেনা, একথা ঠিক নয়। শতাব্দী রায়ের অভিযোগ হেতু তার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা চালানো হবে তৃণমূলের পক্ষ থেকে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে, শতাব্দি রায় তাঁর সিদ্ধান্ত কি হবে তা এখনও স্পষ্ট করেননি। তবে ট্রেন্ড অনুযায়ী ধরা যেতেই পারে, শতাব্দি যেতে চলেছেন গেরুয়া শিবিরে। আপাতত শতাব্দীকে আটকাতে এবার তৃণমূল থেকে কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে তা নিয়ে চলছে ব্যাপক জল্পনা রাজনৈতিক মহলে।

 

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!