এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > বীরভূমের বেতাজ বাদশা অনুব্রত মন্ডলের ‘উন্নয়নের’ হাত ধরে নজিরবিহীন জয় তৃণমূলের

বীরভূমের বেতাজ বাদশা অনুব্রত মন্ডলের ‘উন্নয়নের’ হাত ধরে নজিরবিহীন জয় তৃণমূলের



পঞ্চায়েত নির্বাচন ঘোষণা হওয়ার আগেই বিজেপি নেতা মুকুল রায় জানিয়ে দিয়েছিলেন, পঞ্চায়েত নির্বাচনে গোটা রাজ্যে বিজেপি কি করতে পারবে জানিনা, কিন্তু বীরভূমে জেলা পরিষদ দখল করবে। পাল্টা বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মন্ডল, কার্যত চ্যালেঞ্জ করেছিলেন যে বিরোধীরা বীরভূমে ‘প্রার্থী খুঁজে পাবে না’, আর কার্যক্ষেত্রেও হল তাই। মনোনয়ন পর্বেই বিরোধীরা ৪২ টি জেলা পরিষদের আসনের মধ্যে ১ টি মাত্র আসনে প্রার্থী দিতে পেরেছিল, তাও সেই বিজেপি প্রার্থী চিত্রলেখা রায় ‘নিজের ভুল বুঝতে’ পেরে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে তৃণমূলে যোগ দেন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

আর মনোনয়ন প্রত্যাহার পর্বের শেষে দেখা গেল, হাসি ক্রমশ চওড়া হচ্ছে বীরভূমের বেতাজ বাদশা অনুব্রত মন্ডলের। তাঁর ‘রাস্তায় দাঁড়ানো উন্নয়নের’ তত্ব আর ‘মশারির ওষুধে’ কার্যত বিরোধী শূন্য গোটা বীরভূম জেলা। দিদির প্রিয় ভাই কেষ্ট তাঁকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৪২-০ ফলে জেলা পরিষদ উপহার দিলেন, যে ১২ টি আসনে ‘ভুতুড়ে’ মনোনয়ন জমা পড়েছিল বিজেপির নামে মনোনয়নের শেষ দিন – সেইসবই উধাও। শুধু তাই নয়, বির্বউমের ১৯ টি পঞ্চায়েত সমিতির মধ্যে ১৬ টি পঞ্চায়েত সমিতিই বিরোধীশূন্য। এমনকি ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের সবথেকে নিচে থাকা গ্রাম পঞ্চায়েতেও অনুব্রত মন্ডলের ‘আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে’ ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘উন্নয়ন দেখে’ ১৬৭ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ১৪০ টি গ্রাম পঞ্চায়েত বিরোধীশূন্য করেছেন অনুব্রত মন্ডল। অর্থাৎ সমগ্র বীরভূম জেলায় মাত্র ৩ টি পঞ্চায়েত সমিতি ও ২৭টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় ভোট হবে। বাকি জায়গায় ইতিমধ্যেই ‘গ্রাম থেকে অস্ত্র শান’ দিতে আসা তৃণমূলের পতাকা লাগানো বাইকবাহিনীর বিজয়োৎসব চলছে। তবে যেখানে যেখানে বিরোধীরা ‘ভুল করে’ মনোনয়ন দিয়ে ফেলেছেন, ফলে নির্বাচন হতে চলেছে, সেখানেও নির্বাচনের দিন ‘রাস্তায় দাঁড়ানো উন্নয়ন’ দেখানোর ‘কথা দিয়েছেন’ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একান্ত অনুগত ভাই অনুব্রত মন্ডল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!