এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > অনুব্রত গড়ে ফের ভাঙ্গন, দল ছাড়লেন হেভিওয়েট নেতা

অনুব্রত গড়ে ফের ভাঙ্গন, দল ছাড়লেন হেভিওয়েট নেতা



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – অনুব্রতর গড়ে ধীরে ধীরে বিরোধী সুর চড়া হচ্ছে বলেই শোনা গিয়েছিল। সেখানে অনুব্রত-গড়ে বিজেপি অফিসে ঢুকে তৃণমূলকে পেটানোর অভিযোগ উঠেছিল শাসকদলের বিরুদ্ধে। এছাড়াও তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে বিরোধীদের বলতে শোনা গিয়েছিল, পায়ের তলার মাটি যত সরছে, ততই বিজেপির নেতা-কর্মীদের উপরে হামলা বাড়ছে। মারধর করে, ভয় দেখিয়ে সাধারণ মানুষের মন ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে বলেই অভিযোগ করা হয়েছিল।

অন্যদিকে, অনুব্রত গড়ে বিজেপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে ‘রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে অশালীন পোস্টার সামনে এসেছিল। পোস্টারে দেখা গেছে এক রাক্ষসীর ছবি। আর পোস্টারের গায়ে লেখা রয়েছে, “হাঃ হাঃ হাঃ হিঃ হিঃ হিঃ। আমি পশ্চিমবঙ্গের সব লোক খেয়ে ফেলবো।” বস্তুত, এই পোস্টার এবং পোস্টারে উল্লেখিত শব্দগুলি যে বর্তমান বাংলার মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে, সেটা আলাদা করে বলে দিতে হয় না।

সেইখানে এই সম্ভাবনাকে নিশ্চিত করতে বিজেপির তরফে এই পোস্টার সম্পর্কে “রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করেই এই পোস্টার” একথা বলা হয়েছে বলেই দাবি করা হয়েছিল। বস্তুত, এই ঘটনার পরই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছিলেন যে বীরভূমে এবার কেষ্টর প্রভাব হয়ত কমতে চলেছে। যেখানে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় দলীয় কর্মীদের মধ্যে ভাঙনের সুর শোনা গেছে, সেখানে বীরভূমে সেই ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও মন্তব্য করেছিলেন তাঁরা।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর সেই সম্ভাবনার কথা সত্যি করেই বোলপুরে তৃণমূলে দেখা গেল ভাঙনের ছবি। সেখানে দল ছাড়লেন বোলপুরের এক কাউন্সিলার। বস্তুত, বুধবার সাংবাদিক বৈঠক করে দল ছাড়ার কথা জানিয়েছেন বোলপুর পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেলী রায়। শুধু তাই নয়, তাঁর সঙ্গে তাঁর স্বামী তথা প্রাক্তন কাউন্সিলর তমোজিত রায়ও বুধবার তৃণমূল ছাড়ার কথা ঘোষণা করেছেন বলেও জানা গেছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, তমোজিত রায় দু’বারের কাউন্সিলর। তিনি প্রথমবার ২০১০ সালে তৃণমূলের টিকিটে বোলপুর পুরসভা নির্বাচনে জিতেছিলেন বলে জানা যায়।সেখানে বরাবরই তাঁকে জেলায় অনুব্রত বিরোধী গোষ্ঠী হিসেবে দেখা গেছে। তিনি বস্তুত, বোলপুর পুরসভার প্রশাসক তথা প্রাক্তন চেয়ারম্যান সুশান্ত ভগতের অনুগামী বলে জানা গিয়েছিল।

তবে এই ঘটনার পর তিনি জানান,‌ জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াতেই তিনি সস্ত্রীক দলত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।এদিন কারও নাম না করেই তিনি বলেন, মাঝ রাতে তাঁর ফোনে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করা হচ্ছে। তাই তিনি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলেই জানিয়েছেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!