এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > অনুব্রতর গড়ে ট্রাক ধর্মঘটের ডাক,আসেনি সংকেত ব্যবসায়ীদের জন্য

অনুব্রতর গড়ে ট্রাক ধর্মঘটের ডাক,আসেনি সংকেত ব্যবসায়ীদের জন্য



ফের উত্তপ্ত অনুব্রত গড়। বেশ কয়েক দফার দাবী তুলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ট্রাক ধর্মঘটের ডাক দিলেন বীরভূম জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি মহম্মদ নাজিমউদ্দিন। গতকাল বীরভূমের মহম্মদবাজার কমিউনিটি হলে একটি বৈঠক করে এই সিদ্ধান্ত নেয় মালিক সমিতি। প্রায় এক হাজারেরও বেশি ট্রাক মালিক এই বৈঠকে জমায়েত হয়েছিলেন। ট্রাক বীরভূমের রাস্তায় বেরোলেই হুমকি দিয়ে তোলা আদায় করে পুলিশ। এ কার্যক্রম দীর্ঘদিন ধরেই চলছে। বারবার এর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনো তোলা আদায় বন্ধের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তাই অগত্যা উপায় না দেখে অনির্দিষ্টকালের জন্য ট্রাক ধর্মঘটের ডাক দিল ট্রাক মালিক সমিতি।

দাবীতে মালিক সমিতি জানিয়েছে,১.নিজেদের ক্ষমতার অপব্যাবহার করে লাগাতার তোলাবাজি চালিয়ে যাচ্ছে জেলা পুলিশ। এবং তোলা দিতে অস্বীকার করলে মারধোরও করা হচ্ছে। তাই সুরক্ষার নামে পুলিশি তোলা বন্ধ করার দাবী তাঁদের। ২. বিনা কারণে অযথা ট্রাক দাঁড় করিয়ে রাখা যাবে না। ৩. ট্রাক লোড হয়ে বেরোনোর জায়গাতেই সমস্ত নথি, কাগজপত্র দায়িত্ব সহকারে পরীক্ষা করে দেখতে হবে পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে। রাস্তার মাঝখানে দাঁড় করিয়ে চালান পরীক্ষা করা যাবে না।

অভিযোগে সরব হয়ে ট্রাক মালিকরা জানান, ট্রাক ওভারলোড হয়ে গেলেই মাঝপথে ট্রাক দাঁড় করিয়ে তোলা আদায় করছে পুলিশ। আর তোলা দিতে অস্বীকার করলে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড় করিয়ে রাখা হচ্ছে। এমনকী বিভিন্ন ধরণের কেসে ফাঁসিয়ে দেওয়া হচ্ছে ট্রাক মালিকদের। একবার চালান পরীক্ষা করা সত্ত্বেও পরে আবার বিভিন্ন জায়গায় দাঁড় করিয়ে চালান পরীক্ষা করা হচ্ছ। এবং বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে।পরিস্থিতির সামাল দিতে মোটা টাকা ভর্তুকি দিতে হচ্ছে পুলিশকে। এর জেরে ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে ট্রাক মালিকদের। এছাড়া এক জেলা থেকে আরেক জেলায় ট্রাক গেলে প্রতিটি প্রতিটি থানা থেকে কখনো দুশো কখনো তিনশো টাকা করে টাকা নেওয়া হয়। এতো টাকা বিনা কারণে পকেট থেকে বেরিয়ে যাওয়ায় মাথায় হাত পড়েছে ট্রাক মালিকদের। নতুন গাড়ি কেনার পরও গাড়ির কিস্তি মেটাতে নাকািনচোবানি খেতে হচ্ছে তাঁদের। তাই এবার তাঁরা বাধ্য হয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের পথে নামলেন। যতদিন না তাঁদের দাবীদাওয়া গুলো মেনে নেওয়া হয় ততদিন ধর্মঘটে অটল থাকবেন ট্রাক মালিকরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিকে ট্রাক পরিষেবা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ থাকার কারণে প্রভাব পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বীরভূমের পাথর শিল্পে। স্বাভাবিকভাবে বাড়বে দৈনন্দিন পন্যদ্রব্যের দাম। আশঙ্কায় দিন কাটছে আমজনতার। অথচ প্রশাসন এখনো নিষ্ক্রিয় অবস্থায় আছে। ধর্মঘট নিয়ে তাঁদের তরফ থেকে এখনো কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!