এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > অমিত শাহের সঙ্গে একটা বৈঠকের পরেই বিদ্রোহের চওড়া রাস্তা ছেড়ে সুর নরম করে ফেললেন মুখ্যমন্ত্রী?

অমিত শাহের সঙ্গে একটা বৈঠকের পরেই বিদ্রোহের চওড়া রাস্তা ছেড়ে সুর নরম করে ফেললেন মুখ্যমন্ত্রী?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কেন্দ্রের পক্ষ থেকে কৃষি আইন নামে করার পরেই দেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো তা নিয়ে বিরোধীতা তীব্র করতে শুরু করে। বিভিন্ন বিজেপি বিরোধী রাজ্যগুলো এই ব্যাপারে কেন্দ্রের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে শুরু করে। বিগত আটদিন ধরে দিল্লির একাধিক জায়গায় কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে কৃষকদের বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল। তবে কৃষকদের মধ্যে তৈরি হওয়া অসন্তোষকে দমানোর জন্য ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা বলা হয়েছে।

তবে কৃষকদের সঙ্গে আলোচনায় বসার আগেই এবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে বসলেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং। যাকে নিয়ে নতুন করে জল্পনা তৈরি হয়েছে। বস্তুত, এই অমরিন্দর সিং কৃষি আইনের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বেশি সরব হয়েছিলেন। এমনকি কেন্দ্রের পক্ষ থেকে আনা কৃষি আইনের পাল্টা নিজের রাজ্যের বিধানসভায় তিনটি কৃষি বিল আনেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী। স্বাভাবিকভাবেই বিজেপির সঙ্গে তার দ্বৈরথ চরম আকার ধারণ করেছিল। তবে অবশেষে সেই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর দেখা গেল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে।

বৈঠকে কী হল? এদিন এই প্রসঙ্গে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং বলেন, “রাষ্ট্রীয় সুরক্ষার জন্য এই আন্দোলন ক্ষতিকারক। তবে কৃষকদের দাবি মেনে নেওয়া উচিত। তাদের সঙ্গে কথা বলে কেন্দ্রীয় সরকার সিদ্ধান্ত নিক। দুই পক্ষের প্রতি আমার আবেদন যে, আলোচনার মাধ্যমে বিবাদ মিটিয়ে নেওয়া হোক। ওই আন্দোলনের জেরে পাঞ্জাবের অর্থ ব্যবস্থার উপর প্রভাব পড়েছে। তবে কেন্দ্রের আইনের বিরোধিতা করি, তাও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়ে দিয়েছি।”


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

একাংশের মতে, বিভিন্ন রাজ্যের পক্ষ থেকে যদি এই কেন্দ্রীয় আইনের বিরোধিতা করা হয়, তাহলে অনেকটাই চাপে পড়ে যেতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টি। ইতিমধ্যেই বিজেপি বিরোধী রাজ্যগুলোতে এর বিরুদ্ধে ব্যাপক সরব হতে দেখা গেছে সেখানকার শাসক দলকে। স্বাভাবিকভাবেই এমনিতেই বিজেপি এর ফলে চাপে পড়তে শুরু করেছিল। তাই এবার মান গলানোর জন্য সেই কৃষি আইনের সব থেকে বেশি বিরোধিতায় সরব হওয়া পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসে পরিস্থিতি সমাধানের চেষ্টা করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

ইতিমধ্যে কৃষকদের তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, কেন্দ্রের আনা এই নতুন কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে হবে। তবে কেন্দ্রীয় সরকার যে সেই পথে হাঁটবে না, তাও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাই এই পরিস্থিতিতে একদিকে কৃষকদের এই ক্রমাগত আন্দোলন যদি চলতে থাকে, তাহলে অর্থনৈতিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাই সেই সমস্ত দিক মাথায় রেখে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকে বরফ গলল কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!