এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > এবার অমিত শাহের ঘুম ওড়াতে সরাসরি ময়দানে নামলেন সেলিব্রিটি তৃণমূল সাংসদ নূসরাত জাহান?

এবার অমিত শাহের ঘুম ওড়াতে সরাসরি ময়দানে নামলেন সেলিব্রিটি তৃণমূল সাংসদ নূসরাত জাহান?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিজেপি সরকারকে নিয়ে কটাক্ষ করতে বারবার সামনে আসতে দেখা গেছে অভিনেত্রী তথা সাংসদ নুসরত জাহানকে। সম্প্রতি অমিত শাহের বঙ্গ সফরে এসে আদিবাসী বাবার বাড়িতে মধ্যাহ্নভোজ নিয়ে প্রশ্ন তুলতে দেখা গেছে তাঁকে। বস্তুত, এর আগেও বাংলায় বিজেপির মুখ নিয়ে বা বেকারত্ব নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে কটাক্ষ করতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। এমন পরিস্থিতিতে অমিত শাহের বঙ্গ সফর নিয়ে তিনি কোনো কথা বলবেন না, তা ভাবা যায় না।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গতকাল চতুর্ডিহর বিভীষণ হাঁসদার বাড়িতে দুপুরের মধ্যাহ্নভোজে অমিত শাহ ভাত, ডাল, পটল ভাজা, আলু পোস্ত সহযোগে তিনি মধ্যাহ্নভোজ সারেন। তবে এমন পরিস্থিতিতে বিভীষণ হাঁসদাকে আক্ষেপ করতে শোনা যায়, যে এত বড় ব্যক্তিত্ব এলেন, কিন্তু তাঁর সাথে সমস্যার কথা বলে ওঠা হয়নি। বিশেষত এত বড় ব্যক্তিত্ব তিনদিনের সফরে এলে একাধিক কর্মসূচি পালন করার দায়িত্ব তাঁর উপর থাকবে সে কথা স্বাভাবিক।

তাই বস্তুত কর্মব্যস্ততার কারণেই তাঁর কথা বলা হয়নি তা হয়নি বলেই মনে করেছিলেন তিনি। এমন পরিস্থিতিতে সেই ঘটনাকে সামনে এনে তৃণমূল সরকার যে বিজেপিকে কটাক্ষ করবে সেটাই স্বাভাবিক বলে মনে করেছিলেন রাজনৈতিকরা। আর সেই কাজটা করতেই দেখা গেছে অভিনেত্রী সাংসদ নুসরত জাহানকে। গতকাল সন্ধ্যায় উত্তর ২৫ পরগনার হিঙ্গলগঞ্জ এর একটি সভায় অমিত শাহকে কটাক্ষ করতে দেখা গেছে তাঁকে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তাঁর কথায়, “আমার ছবির সেটআপের থেকেও দারুণ। উনি এসে ভাত খেলেন, ডাল খেলেন, পটল ভাজা খেলেন, তারপর ইন্টারভিউ দিলেন আর চলে গেলেন”। সেই সঙ্গে তিনি আরো প্রশ্ন করেন যে, বাঁকুড়ায় যে পরিবারের আতিথ্যগ্রহণ করলেন তাঁদের সঙ্গেই কথা বলবেন না? এদিন সাংসদের সভা পুরো কানায়-কানায় ভরতি ছিল। আর সেই ভরা সভাতেই এরকম বাক্যবাণ চালালেন তিনি।

তাঁর কথায়, যাঁর বাড়িতে ডাল, পটল ভাজা খেলেন সেই বাড়ির ১৬ বছরের মেয়েটার ইনসুলিনের দায়িত্ব কে নেবে, সেই প্রশ্নই তুলেছেন তিনি। একেবারে “অমিত শাহ ভাট বকেছেন। এসব স্টান্ট বাংলার মানুষ মেনে নেবে না”। এমন চাঁচাছোলা কথাতেই কটাক্ষ করতে দেখা যায় তাঁকে। আর এর জন্য বাংলার মানুষের কাছে তাঁর হাত জোড় করে ক্ষমা চাওয়া উচিত বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তবে শুধু এখানেই থেমে থাকেননি তিনি। এরপর গত বছর কলকাতায় অমিত শাহের মিছিলের দিন বিদ্যাসাগর কলেজে ঈশ্বরচন্দ্রের মূর্তি ভাঙার প্রসঙ্গ টেনে তাঁকে বলতে শোনা গেছে, “গত বছর এসে ওঁরা বিদ্যাসাগরের স্ট্যাচু ভেঙেছিলেন, আর এবার বিরসা মুন্ডা বলে যে কোনও স্ট্যাচুতে মালা পরিয়ে দিলেন”। বস্তুত একুশের ভোটই যে বিজেপির পাখির চোখ আর সেজন্য তারা যে ভালোমতোই প্রচার চালাচ্ছেন সে কথা মেনে নিয়েছেন রাজনীতিবিদরা। বাংলায় নিজেদের শাসন কায়েম করতে কোনো খামতি রাখতেই রাজি নয় বিজেপি। কিন্তু তৃণমূলের সংসদের এহেন কটাক্ষ বানের কি ভাষায় জবাব দেন অমিত শাহ, এবার সেটাই দেখার অপেক্ষা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!