এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে ‘গোপন’ আলোচনা নিয়ে জল্পনা চরমে? অবশেষে মুখ খুললেন বৈশাখী ব্যানার্জি!

অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে ‘গোপন’ আলোচনা নিয়ে জল্পনা চরমে? অবশেষে মুখ খুললেন বৈশাখী ব্যানার্জি!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিজেপিতে যোগদান করেও সক্রিয় ভাবে এতদিন দেখা যায়নি শোভন আর বৈশাখীকে। কিছুদিন আগে সল্টলেকে পূর্বাঞ্চলীয় সংস্কৃতি কেন্দ্রে দুর্গাপুজোর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যেখানে মোদী দিল্লি থেকে ভার্চুয়ালি পুজোর উদ্বোধন করেন, এবং সেখানে কেন্দ্র এবং রাজ্য বিজেপি-র গোটা নেতৃত্বকে উপস্থিত থাকতে দেখা যায়, সেখানে শোভন-বৈশাখীকে দেখা যায়নি। অন্যদিকে তাঁদের ওই অনুষ্ঠানে আনার জন্য পঞ্চমীর রাত পর্যন্ত চেষ্টা করার সঙ্গে অতিথি তালিকাতেও তাঁদের নাম রাখা হয়েছিল বলে জানা গেছে।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেখানে তাঁদের দেখা যায়নি। আর তাতেই বিজেপিতে তাঁদের সক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। কিন্তু এবারের সাম্প্রতিক অমিত শাহের এই বঙ্গ সফরে সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হতেই দেখা গেছে। আর সেক্ষেত্রে বিজেপি নেতৃত্বের উদ্যোগ যে অবহেলা করা যায় না, তা বলাই বাহুল্য। আর এক্ষেত্রে বলতেই হয়, রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা বেহালা পূর্বের বিধায়কের কথা।

তথ্য সূত্রে জানা গিয়েছে, শোভন-বৈশাখীকে অমিতের সঙ্গে বৈঠকে আনতে নাকি বিশেষ ভাবে উদ্যোগী হয়েছিলেন দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং কেন্দ্রীয় সম্পাদক তথা এ রাজ্যের সহকারী পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন। অন্যদিকে গতকাল অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকের কথা স্বীকারও করতে দেখা গিয়েছিল বৈশাখীকে। ফলত মানুষের উৎসুক চোখ সেদিকেই তাকিয়ে ছিল।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর সেইমত বৃহস্পতিবার রাতে নিউটাউনের হোটেলে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি-র শীর্ষনেতা অমিত শাহের সঙ্গে শোভন ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় বৈঠক করেন বলে জানা যায়। অন্যদিকে তাঁর সঙ্গে কথা বলে যে শোভন বা বৈশাখী দুজনেই সন্তুষ্ট, সে কথা অকপটে জানিয়েছেন তাঁরা। বৈশাখীর কথায়, খুব ইতিবাচক বৈঠক হয়েছে বলেই জানা যায়।

তাঁর কথায়, অমিতজির মতো এমন ধৈর্যশীল নেতা তিনি নিজের জীবনে খুব কম দেখেছেন। তিনি তাঁদের প্রত্যেকটা কথা অত্যন্ত মনোযোগ দিয়েই শুনেছেন বলে জানান তিনি। আর তার ভিত্তিতেই যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে পরবর্তী কর্মপন্থাও তিনি স্থির করে দিয়েছেন বলেও জানা গেছে। সেইসঙ্গে তাঁর বক্তব্য, ‘বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির তাঁকে কতটা প্রয়োজন হবে, সেটা তাঁর জানা নেই হলেই জানিয়েছেন তিনি।

কিন্তু যদি প্রয়োজন হয়, তাহলে সেটা কিরকম প্রয়োজন আগে সেটা বুঝে দেখে তারপর কাজ করবেন বলেই জানান তিনি। তবে সম্মানের সঙ্গে যদি কাজ করতে পারেন, তাহলেই কাজ করবেন বলেই জানান তিনি। কিন্তু এত কিছুর মধ্যে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে দলে এবার দেখা গেলেও তাঁকে সক্রিয় ভাবে দেখা যাবে কিনা, সেই নিয়ে জল্পনা এখনও রয়েই গেছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!