এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > নজিরবিহীনভাবে ১৮০০ হোয়াটস্যাপ গ্রূপে জয়েন করলেন অমিত শাহ, কারন জানলে চমকে যাবেন

নজিরবিহীনভাবে ১৮০০ হোয়াটস্যাপ গ্রূপে জয়েন করলেন অমিত শাহ, কারন জানলে চমকে যাবেন



সোস্যাল মিডিয়ায় দলের কর্মীদের ওপরে অত্যন্দ্র প্রহরা বজায় রাখতে নয়া পদক্ষেপ গেরুয়া শিবিরের।  দলের কর্মীরা কেউ সোস্যাল মিডিয়ায় বে আইনী, বিভ্রান্তি মূলক বা মিথ্যা পোষ্ট করছে কিনা সেই ব্যাপারে নজর রাখতে এদিন বিজেপির দিল্লির শাখা একইদিনে  ১৮০০ টি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ তৈরী করেছে। আর নজির বিহীনভাবেই ওই ১৮০০ টি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের সদস্য হলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ।

একই সাথে ঐ ১৮০০ টি গ্রুপের  সদস্য হিসেবে যুক্ত করা হয়েছে অমিত মিশ্র ও দিল্লির বিজেপি প্রধান মনোজ তিওয়ারিকে। বর্তমান সময়ে যে কোনোরকম প্রচার কার্যে সোস্যাল মিডিয়ার ভূমিকা অনস্বীকার্য। মুহূর্তের মধ্যে দেশ বিদেশের নানা পরিচিত বা অপরিচিত সকল মানুষের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করা যায় এই মাধ্যমে। আবার একইভাবে এই সোস্যাল মিডিয়ার সাহয্যে  প্রচার করাও খুবই সহজ হয়।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

প্রসঙ্গত চলতি বছরের শুরুতেই কেন্দ্রীয় সরকার একটি নির্দেশিকা জারী করে বলেছিলো সংবাদ মাধ্যমের একটি বড় অংশ ভূয়ো সংবাদ প্রচার করছে। তাই তাদের আচরন বিধি নিয়ন্ত্রন করা দরকার । কিন্তু পরবর্তী সময়ে সংবাদমাধ্যমের প্রবল চাপের কাছে সরকার তার নির্দেশিকা প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়। এই সময়েই সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা কেন্দ্রীয় সরকারের জ্ঞাতার্থে প্রমাণ সহ তথ্য পেশ করে জানায় যে কী করে  মন্ত্রীরা ভূয়ো ছবি খবর ইত্যাদি সোস্যাল মিডীয়ায় প্রচার করেন। দেখা যায় বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের এরকম অসংখ্য ভূয়ো পোস্টে দেশের বিভিন্ন জায়গায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। খোদ গেরুয়া শিবিরের কর্মী ও সমর্থকদের এহেন কাজ কর্ম প্রকাশ্যে এসে যাওয়ায় অস্বস্তিতে পরে দলের শীর্ষ নেতারা। এরপরে গত মাসে দিল্লীতে বিজেপির ‘সোশাল মিডিয়া ওয়ারিয়র্স’-এর প্রায় ৩০০ কর্মী সমর্থকদের নিয়ে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ বৈঠক করেন।

সেখানেই তিনি উপস্থিত সকল কর্মীকে জাল খবর ছবি ইত্যাদি পোস্ট করার বিষয়ে সংযত থাকতে বলেন। এইসব পোস্টের পরিবর্তে তিনি নির্দেশ দেন গত ৪ বছরে মোদী সরকারের সাফল্যকে প্রচার করতে। সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে বিজেপি সভাপতি এর আগের বৈঠকে ‘সোশাল মিডিয়া ওয়ারিয়র্স’-দের বলেছিলেন, আগামী দিনগুলোতে তাদের ফলোয়ারের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি করতে হবে। শুধু তাই নয়,  তাদের ফেসবুক পোস্ট, টুইট , যাতে সর্বাধিক লোকের কাছে পৌঁছায় এটাও সুনিশ্চিত করতে হবে। সেই লক্ষ্য পূরণের জন্যেই বিজেপি শিবিরের পক্ষ থেকে সোস্যাল মিডিয়া ব্যাপক হারে সক্রিয়তা দেখা যাচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!