এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > একদা বিজেপি ঘনিষ্ঠ নেতা এখন মমতার অন্যতম প্রধান সারথী! নিলেন বিজেপিকে ৮০-তে আটকানোর অঙ্গীকার

একদা বিজেপি ঘনিষ্ঠ নেতা এখন মমতার অন্যতম প্রধান সারথী! নিলেন বিজেপিকে ৮০-তে আটকানোর অঙ্গীকার



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একসময় বিজেপির পক্ষে ছিলেন গোর্খা নেতা বিমল গুরুং। এরপর গত ২০১৭ সালের পর থেকে দীর্ঘ সময় ধরে তিনি ফেরার। গত পঞ্চমীর দিন বিকেলে তাঁকে অকস্মাৎ দেখা যায় কলকাতার রাজপথে। যেখান থেকে তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূয়শী প্রশংসা করলেন। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রীকে সমর্থনের কথা জানালেন। এরপর দীর্ঘ সময় পর পাহাড়ে ফিরেছেন বিমল গুরুং। পাহাড়ে ফেরার পর সম্প্রতি ডুয়ার্সের গোর্খা প্রধান এলাকা গুলিতে তৃণমূলের হয়ে প্রচার কার্য শুরু করেছেন বিমল গুরুং।

ডুয়ার্সের গোর্খা প্রধান অঞ্চলগুলোতে তৃণমূলের হয়ে প্রচারকার্য শুরু করেছেন তিনি গত বৃহস্পতিবার থেকে। গতকাল তিনি জলপাইগুড়ি জেলার মেটলি ব্লকের চিলোনি চা বাগান থেকে জনসংযোগ কর্মসূচি শুরু করলেন। তৃণমূলের হয়ে তিনি বক্তব্য রাখলেন। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি ক্ষমতায় আসতে পারবে না বলে, দাবি করলেন তিনি। বিমল গুরুং জানালেন যে, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যে ৭০ থেকে ৮০ টির বেশি আসন বিজেপি পাবে না।

প্রসঙ্গত, গত লোকসভা নির্বাচনে তরাই- ডুয়ার্সে তৃণমূলকে অনেক পেছনে ফেলে এগিয়ে যায় বিজেপি। গোর্খা অধ্যুষিত কেন্দ্রগুলিতেও তৃণমূল বিজেপির কাছ থেকে অনেকটা পিছিয়ে পড়ে। আবার একসময় গোর্খা সম্প্রদায়ের মধ্যে বিমল গুরুং এর বিশেষ প্রভাব ছিল। তাকে কাজে লাগিয়েই আগামী বিধানসভা নির্বাচন উত্তরবঙ্গের গোর্খা অধ্যুষিত আসনগুলোতে বাজিমাত করতে চাইছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তবে, একথাও ঠিক যে, গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে একসময় তরাই, ডুয়ার্সে যথেষ্ট রকম অরাজকতা শুরু হয়েছিল বিমল গুরুংয়ের নেতৃত্বে। দীর্ঘসময় ধরে পরিস্থিতি উত্তাল ছিল। ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, মারামারি, খুন চলেছিল। দীর্ঘ সময় ধরে সাধারণ জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। এরপর দীর্ঘদিন ধরে ফেরার হয়েছিলেন বিমল গুরুং। এখন তিনি ফিরেছেন পাহাড়ে। তাই এখন তাঁর ওপর কতটা জনসমর্থন থাকবে? সে বিষয়ে একটা প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

আবার, তরাই ডুয়ার্সে গোর্খাদের একটা বড় অংশ গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির পক্ষে ছিলেন। এবার তাঁরা কতটা তৃণমূলের পক্ষে যাবেন? সে বিষয়েও যথেষ্ট সন্দেহ থেকে যাচ্ছে বলেই বিশ্লেষকদের মতামত। এই পরিস্থিতিতে গোর্খা সম্প্রদায়কে তৃণমূলের দিকে টানতে আপ্রাণ চেষ্টা করছেন বিমল গুরুং। গতকাল বিমল গুরুং জানালেন যে, এবারের ফল ভালোই হবে, তবে আগের মত হবে না। কিন্তু তৃণমূলই সরকার গঠন করবে। বিজেপি নির্বাচনে জেতার যে দাবি করেছে এটা একেবারেই ভুল। সারা রাজ্যে ৭০ থেকে ৮০ টির বেশি আসন বিজেপি পাবে না।

তাঁর এই বক্তব্যের জবাবে তাকে কটাক্ষ করে জলপাইগুড়ি জেলা বিজেপির সহ-সভাপতি অলক চক্রবর্তী জানালেন যে, তিনি অবাক হচ্ছেন যার জন্য ডুয়ার্স দিনের পর দিন ধরে উত্তপ্ত ছিল, সেই দাগি আসামিকে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী (দিদিভাই) এখানে দলের প্রচার করছেন। দিনের পর দিন তিনি পাহাড় ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন। মানুষ এদেরকে চেনেন, মানুষ এদের নেবেন না, মানুষ কখনোই এদের পাশে থাকবেন না।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!