এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > সামনে এল এবিপি-সি ভোটার সমীক্ষা, কত আসন পাবে গেরুয়া শিবির? মুখ্যমন্ত্রীকে কত নম্বর জনতার?

সামনে এল এবিপি-সি ভোটার সমীক্ষা, কত আসন পাবে গেরুয়া শিবির? মুখ্যমন্ত্রীকে কত নম্বর জনতার?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিহার বিধানসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শাসক থেকে বিরোধী প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল জোরকদমে প্রচারে নেমে পড়েছে। প্রায় প্রত্যেকেই আত্মবিশ্বাসী, এবার তারা বিহারের ক্ষমতা দখল করছে। কিন্তু শেষ কথা বলবে ভোটবাক্স। তবে তার আগে বেশ কিছু সমীক্ষা এখন সামনে আসতে শুরু করেছে। যাকে নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

সূত্রের খবর, এবিপি-সি ভোটারের সমীক্ষায় আভাস পাওয়া গেছে যে, বিহারে আবারও নীতীশ কুমারের নেতৃত্বাধীন বিজেপি-জেডিইউ জোট সরকার প্রতিষ্ঠিত হতে চলেছে। যেখানে নীতীশ কুমারকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কত শতাংশ মানুষ সমর্থন করছেন, তাও এই সমীক্ষায় উঠে এসেছে। স্বাভাবিক ভাবেই বিরোধী দলের পক্ষ থেকে মূলত তেজস্বী যাদব যখন জনসভায় ভিড় দেখে তারা ক্ষমতায় আসবে বলে দাবি করছে, তখন এই সমীক্ষা বিরোধীদের অনেকটাই চাপে ফেলে দিল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, এবিপি-সি ভোটারের সমীক্ষা অনুযায়ী বিহারের প্রায় 29.5 শতাংশ মানুষ চাইছে নীতীশ কুমার আবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হন। অন্যদিকে বিজেপি-জেডিইউ জোট 43 শতাংশ ভোট পেয়ে 135 থেকে 159 টি আসন দখল করতে পারে বলে দাবি করছে এই সংস্থা। জানা গেছে, নীতীশ কুমারকে যেমন বেশকিছু মানুষ পছন্দ করছেন, ঠিক তেমনই 28 শতাংশ মানুষ তার কাজকে ভালো এবং 27 শতাংশ মানুষ তার কাজকে চলনসই বলেছেন।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে নীতীশ কুমারের কাজ অত্যন্ত সাধারণ মানের বলে জানিয়েছেন 45 শতাংশ মানুষ। অন্তত সমীক্ষাতে এই তথ্যই উঠে এসেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেভাবে এই সমীক্ষায় আবারও বিহারে নীতীশ কুমারের নেতৃত্বাধীন জোট সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে বলে আভাস দেওয়া হল, তাতে বিরোধীরা অনেকটাই চাপে পড়ে গেল। যখন বিরোধীদের পক্ষ থেকে দুর্নীতি সহ একাধিক বিষয়ে নীতীশ কুমারের সরকারকে কটাক্ষ করা হচ্ছে, ঠিক তখনই সমীক্ষায় সেই বিজেপি-জেডিইউ জোটকে এগিয়ে দেওয়া বিরোধীদের দাবিকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দিল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে অনেকে আবার বলছেন সমীক্ষা সব সময় শেষ কথা বলে না। ভোটবাক্সে এমন অনেক সময় গেছে, যখন সমীক্ষার বিপরীত ফল হয়েছে। তাই যা হচ্ছে, তাতে অনেক কিছুই পাল্টে যেতে পারে। বিরোধীদের দাবি, এবারে বিহারে পরিবর্তন হচ্ছে। মানুষের স্বতঃস্ফূর্ততা অন্তত সেকথাই বলছে। তবে সমীক্ষক সংস্থার আভাস যে কিছুটা হলেও মেলে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু এবার বিহার বিধানসভা নির্বাচনের পর ভোটবাক্স খোলার পর এই সমীক্ষা বাস্তবের সঙ্গে কতটা মিল খায়, কোন দল সবথেকে বেশি চাপে পড়ে, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!