এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বেনারস থেকে ধরা পড়ল মনোজ উপাধ্যায়ের খুনিরা

বেনারস থেকে ধরা পড়ল মনোজ উপাধ্যায়ের খুনিরা



গত মঙ্গলবার ২১ শে নভেম্বর একদল দুস্কৃতির হাতে খুন হয়েছিলেন ভদ্রেশ্বরের সৎ নেতা বলে খ্যাত তথা পুরপ্রধান মনোজ উপাধ্যায়। খুনের পর থেকেই দলের ভিতরেই কর্মীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ শুরু হওয়াতে একে একে সরানো হয় চন্দননগর পুলিশ কমিশনারেটের কমিশনারকে এবং তারপরে ভদ্রেশ্বর ও.সি কেও। কিন্তু অতিরিক্ত চাপের মুখে নতুন কমিশনারের উপরও আস্থা রাখতে না পেরে সোমবার তদন্তের ভার সিআইডির হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় নবান্ন। এমনকি মনোজবাবুর খুনের ঘটনায় দলীয় পর্যায়েও তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেও সূত্রের খবর।
সিআইডির দ্বায়িত্বাধীনে তদন্ত শুরু হবার পরেই দ্রুত বিভিন্ন রাজ্যে পাড়ি দিয়েছিল কমিশনারেটের একাধিক তদন্তকারী দল। ডিসিপি সুমিত কুমারের নেতৃত্বে একটি দল বিহারে এবং ওপর একটি দল ঝাড়খণ্ডে পাড়ি দিলে সেখান থেকেই জানা যায় পুরপ্রধান খুনের অভিযুক্ত ভদ্রেশ্বরেরই বাসিন্দারা বেনারসে গা ঢাকা দিয়ে আছে, এরপরে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের সহায়তায় বেনারসের এক লজ থেকে গ্রেফতার হয় এফআইআর এ নাম থাকা রতন চৌধুরী, রাজু চৌধুরী, আকাশ চৌধুরী, রাজেশ চৌধুরী ও কৃষ্ণ চৌধুরী। ধৃতদের ট্রানজিট রিমান্ডে কলকাতায় আনা হচ্ছে বলে সিআইডি সূত্রে খবর। এছাড়াও গ্রেফতার করা হয়েছে দেবু পাকড়ে এবং সন্তোষ পাকড়ে নামে আরো দুই ব্যক্তিকে। তবে আরও এক অভিযুক্ত ভদ্রেশ্বর পুরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের নির্দল কাউন্সিলর রাজু সাউ এখনো নাগালের বাইরে আছে বলেই জানা যাচ্ছে। মনোজ বাবুর হত্যা কে ইস্যু বানিয়ে ইতিমধ্যেই দোষারোপের পর্ব শুরু হয়ে গেছে বিভিন্ন দলের মধ্যে। একদিকে তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী ববি হাকিম সিপিএম এবং বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগের তীর ছুঁড়েছেন, অপরদিকে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, মনোজ বাবু ভালো মানুষ ও পুরোনো আরএসএস কর্মী ছিলেন, তিনি তৃণমূল থেকে বিজেপিতে ফিরতে চাইছিলেন বলেই খুন হয়ে গেলেন। যদিও মনোজবাবুর দাদা সুনীল উপাধ্যায় এই দাবী উড়িয়ে দিয়েছেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!