এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন করতে নিরাপত্তা নিয়ে কি ব্যাবস্থা নিলো রাজ্য-জানালেন DG

শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন করতে নিরাপত্তা নিয়ে কি ব্যাবস্থা নিলো রাজ্য-জানালেন DG



রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে আগামী ১৪ ই মে এক দফায় পঞ্চায়েত নির্বাচন করার প্রস্তাবে সম্মতি দিলো রাজ্যের নির্বাচন কমিশন। বার বার বিরোধীরা অভিযোগ করেছেন যে রাজ্যের শাসকদল রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে নানা সন্ত্রাস চালাচ্ছে। পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়নপর্বে সন্ত্রাস হয়েছে আর নির্বাচনেও যে এমনটা হবে না তও নিশ্চিত ভাবে বলা যাচ্ছে না।এদিকে পঞ্চায়েতে বুথ সংখ্যা হলো ৫৮,৪৬৭ আর রাজ্য পুলিশ হলো ৫৮,০০০। যার মধ্যে সশস্ত্র পুলিশ মাত্র ৪৬ হাজার বাকি হয় সিভিক ভলান্টিয়ার বা হোমগার্ড। আর তাই সব বুথে সশস্ত্রবাহিনী কিভাবে রাখা হবে – তাই নিয়ে উঠে গেছে প্রশ্ন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

বিরোধীদের তরফ থেকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবিও তোলা হয়েছে বারবার।রাজ্য সরকার আশ্বাস দেন যে নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই, সে দায়িত্ব রাজ্যের এবং রাজ্য তা যথাযথ ভাবেই পালন করবে। সূত্রের খবর, রাজ্য সরকার ইতিমধ্যেই সেই প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে। আর সেই মতো আজ রাজ্য পুলিশের DG সুরজিৎ কর পুরকায়স্থ সাংবাদিক বৈঠক করে জানিয়ে দিলেন একই কথা।DG জানান যে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের বর্তমান ক্ষমতা আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। সংখ্যায় ও তারা অনেক বেশি আছেন। অনেক নিয়োগ হয়েছে।” পাশাপাশি তিনি জানান যে,”আমরা যথেষ্ট শক্তিশালী অ্যারেঞ্জমেন্ট করছি। তা সত্ত্বেও ফুল ব্যাক আপ দেওয়ার জন্য চার-পাঁচটি রাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। সেখান থেকেও অতিরিক্ত বাহিনী পাব। আমরা চাই শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন হোক। তার জন্য সবার সহযোগিতা চাই। এই মুহূর্তে আমাদের সিকিউরিটি অ্যারেঞ্জমেন্ট পর্যাপ্ত বলে মনে করি। এবং প্রত্যেকটি প্রেমিসেসে আর্মড কভারেজ থাকবে।” একদিকেকারাদপ্তর, বনদপ্তর, আবগারিদপ্তরের অস্ত্র প্রশিক্ষণে থাকা কর্মীদেরকেও ভোট করার কাজে লাগাতে চলেছে রাজ্য সরকার। তিনটি দপ্তর থেকে দু’হাজার কর্মীকে নির্বাচনে কাজে লাগানো হবে বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। অন্যদিকে প্রয়োজনে অন্য রাজ্য থেকে পুলিশ এনে সামাল দেওয়ার কথাও ভাবা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!