এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পঞ্চায়েতে ‘দেদার ছাপ্পা’ আটকাতে বিশেষ পদক্ষেপ রাজ্য নির্বাচন কমিশনের

পঞ্চায়েতে ‘দেদার ছাপ্পা’ আটকাতে বিশেষ পদক্ষেপ রাজ্য নির্বাচন কমিশনের



পঞ্চায়েত নির্বাচনে জালিয়াতি আটকাতে নতুন পরিকল্পনা করল এবার রাজ্য নির্বাচন কমিশন। এই সোমবারই রাজ্যের ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচন। আর পরেরদিনই ভোট পরবর্তী স্ক্রুটিনিগুলো ভোটের সরঞ্জাম গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জানা গেছে কোনো ব্লকে যদি গড় ভোটের ১৫% কম বেশি হলেই সংশ্লিষ্ট বুথে হবে ভোট পরবর্তী এই স্ক্রুটিনি। এবং সেই বুথে পড়তে হবে ১০ টার বেশি টেন্ডার ভোট। এই পরিস্থিতি তৈরি হলেই সংশ্লিষ্ট প্রার্থীদের স্ক্রুটিনির সময় হাজির থাকার নির্দেশ দিয়েছিলো রাজ্য নির্বাচন কমিশন। তবে তা পরিবর্তন করা হয়েছে। কারণ প্রার্থীরা স্ক্রুটিনির সময় উপস্থিত হলে অযথাই বাড়বে ভীড়। তাতে পরিস্থিতি বিশৃঙ্খল হয়ে উঠেতে পারে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

৬ মে রাজ্য নির্বাচন কমিশন এক নির্দেশিকা জারি করেছিলো তাত উল্লেখ ছিল যে ৯০% বেশি বুথে ভোট পড়লেই হবে স্ক্রুটিনি। তা নিয়ে বিভিন্ন জেলার প্রশাসনিক কর্তারা বলেন যে, পঞ্চায়েতের বহু বুথেই নাকি স্বাভাবিকভাবেই ৯০% এর বেশি ভোট পড়ল। জেলা প্রশাসনের এই তথ্য জানানোর পড়েই নির্বাচন কমিশন বলে স্ক্রুটিনি হবে ব্লকে গড়ে ১৫% এর কম বেশি ভোট পড়লেই। এই বক্তব্য জানিয়েই রাজ্য নির্বাচন কমিশন জেলা শাসক ও আধিকারিকদের কাছে এদিন চিঠি দিয়েছে। জানা গেছে কমিশনের কন্ট্রোল রুম রবিবার সকাল থেকেই খোলা থাকবে। ফোন নম্বরও জানানো হয়েছে ২২৮০-৫৮০৩/০৪। থাকবে নির্ভয়ে ভোট দেওয়ার আশ্বাস বার্তা নির্বাচন কমিশনের পক্ষের বিজ্ঞাপনে। ভোট দেওয়া যাবে সচিত্র পরিচয়পত্র ( এপিক) ছাড়া মোট ১৪ টি পরিচয়পত্র দিয়। এ ভিতর পড়ছে আধার কার্ডও।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!