এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > কৃষকের জমি অধিগ্রহণ নিয়ে আবার গুজরাটের রাজনীতি, চিন্তার ভাঁজ গেরুয়া শিবিরে

কৃষকের জমি অধিগ্রহণ নিয়ে আবার গুজরাটের রাজনীতি, চিন্তার ভাঁজ গেরুয়া শিবিরে



অধিকার এমনই জিনিস যা চেয়ে চিনতে মেলা দুস্কর। তা কেড়ে অথবা দখল করে নিতে হয়। গুজরাটের ভাবনগর এলাকার সু্রখা গ্রামে ৫০০ কৃষক নিজেদের অধিকার রক্ষার দাবিতে পথে নেমেছিলেন। আন্দোলন করেছিলেন তাঁরা। এই আন্দোলন ছিলো মূলত জমি অধিগ্রহণের বিরুদ্ধে। আহমেদাবাদের ১৭৬ কিমি পশ্চিমে, রাজ্য সরকার গুজরাট পাওয়ার কর্পোরেশন লিমিটেডের হাতে জমি তুলে দিতে চেয়েছিলেন। কৃষকেরা যার বিরোধীতা করলে পুলিশের কাছে শারিরীক হেনস্থার শিকার হতে হয়। যার জেরে এলাকা সহ গোটা রাজ্য উত্তাল হয়ে ওঠে। কর্ণাটক বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নিজের রাজ্যে এমন একটি ঘটনা স্বাভাবিকভাবেই জাতীয় রাজনীতিতে প্রভাব ফেলছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এই কৃষক আন্দোলন প্রসঙ্গে ভাবনগরের পুলিশ সুপার পি এল মাল বললেন, “ কৃষকেরা একত্রিত হয়ে যে আন্দোলন শুরু করেছিলো সেখান থেকে পুলিশ কে লক্ষ্য করে ইঁট-পাটকেল ছোঁড়া হয়। তা রুখতে পুলিশ টিয়ার গ্যাসের শেল ফাটায়। তখন থেকে পরিস্থিতি আরোও অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠলে ৫০০ কৃষককে গ্রেফতার করা হয়। এদিকে আন্দোলনরত কৃষকদের মধ্যে প্রভিনসিন গোহিল নামক জনৈক কৃষক এই ঘটনা প্রসঙ্গে বললেন, “কৃষকদের সাথে ২০০ জন যুবকেও আটক কয়া হয়েছিলো। পরে অবশ্য তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের না করে ছেড়ে দেওয়া হয় । এই ৫০০ জন কৃষকের মধ্যে ১৮০ জন মহিলা ছিলো। আমরা জমি ফেরতের দাবিতে আন্দোলন করছিলাম। পুলিশই আমাদের আন্দোলনে বাধা দিলে পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। তবে আমাদের দাবি দ্রুত না মেনে নিলে প্রথমে গান্ধীনগর ও পরে দিল্লী পর্যন্ত কৃষকদের মিছিল পৌঁছে যাবে। আর তারপর মামলা গায়ের করা হবে গুজরাট হাইকোর্টে।” রাজনৈতিক মহলের মতে এই কৃষক আন্দোলন অল্প দিনের মধ্যেই বৃহত্তর প্রভাব ফেলবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!