এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মনোনয়ন প্রত্যাহারেই বাম-কংগ্রেস জোটে সিলমোহর পড়ে যাবে? জল্পনা তুঙ্গে

মনোনয়ন প্রত্যাহারেই বাম-কংগ্রেস জোটে সিলমোহর পড়ে যাবে? জল্পনা তুঙ্গে



আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে সিপিএম এবং কংগ্রেস জোট সম্ভবনা নিয়ে এখন থেকেই তুমুল বিতর্কের  শুরু। মাত্র দু দিন আগেই সিপিএম নেতা গৌতম দেব কংগ্রেসের সঙ্গে জোট সম্ভবনার ইঙ্গিত দেন। উল্লেখ্য গত সপ্তাহে হায়দ্রাবাদে আয়োজিত সিপিএম এর ২২ তম পার্টি কংগ্রেসে সিপিএম এবং কংগ্রেসএর জোট প্রস্তাব মান্যতা পায়। এদিন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী , গৌতম দেবে’র জোট সম্ভবনার ইঙ্গিতকে সাধুবাদ জানালেন। গৌতম দেব তাঁর বক্তব্যে বলেছিলেন, “কংগ্রেসের সঙ্গে তাঁদের বোঝাপড়ায় কোনও সমস্যা নেই। যেখানে আমাদের প্রার্থী নেই, সেখানে আমরা কর্মী-সমর্থকদের বলব ভোটটা কংগ্রেসকে দিন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

প্রয়োজনে আমরা কিছু প্রার্থীপদও প্রত্যাহার করে নিতে পারি বোঝাপড়ার ভিত্তিতে।” এই কথা প্রত্যুত্তরে অধীর বাবু জানালেন,”গত বিধানসভায় সিপিএমের সঙ্গে জোট গড়ে আমরা গ্রহণযোগ্য শক্তি হিসেবে উঠে এসেছিলাম। কিন্তু ভোটের পর বামেরা জোট ভেঙে আলাদা এগোতে চাওয়ার পরই সমস্যা তৈরি হয়েছিল। গৌতমবাবুর প্রস্তাবে কংগ্রেস সম্মতি জানাচ্ছে।” আগামী দিনে জোট সম্ভবনা প্রসঙ্গে অধীর চৌধুরী এদিন আরোও বললেন, “রাজ্যের বহু জায়গাতেই অলিখিত জোট হয়েছে। নেতৃত্বের সমাঝোতার দরকার হয়নি। মানুষই তাঁদের প্রয়োজনে বিরোধীদের জোট করে নিয়েছে। এই জোট তৃণমূলের বিরুদ্ধে অনাস্থার জোট। মানুষ যদি সত্যিকারের জোট গড়ে, সেখানে কোনও শক্তিই তাঁকে আটকাতে পারবে না, আর তৃণমূল তো কোন ছাড়।”  রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে কংগ্রেস ও সিপিএম নেতৃত্বের দৃঢ় বিশ্বাস বাম-কংগ্রেস একত্রিত হয়ে নির্বাচনে লড়াই করলে প্রতিরোধ গড়ে তোলার কাজ আরও ভালোভাবে করা যাবে। সম্প্রতি দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি রাহুল গান্ধীর কাছে রাজ্যের অরাজকতার পরিবেশ নিয়ে অভিযোগ করেন অধীর বাবু। তারপর তিনি এখন আবার রাজ্যে সরকার বিরোধী জোট গড়ার সম্ভবনাকে সক্রিয় করে রাজ্য সরকারকে কার্যত কোনঠাসা করতে তৎপর হয়ে উঠেছেন । অধীর বাবু এই প্রসঙ্গে স্বভাবতই মনে করেন যে সেখানে শাসক প্রার্থীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে ফেলে দেওয়াই তাঁদের মুল লক্ষ্য হওয়া উচিত ।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
Facebook Friends
error: Content is protected !!