এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বড়ধাক্কা! আপনার ৫ বছরের পুরোনো এটিএমের তোলা টাকার জন্যও কর দিতে হবে এবার

বড়ধাক্কা! আপনার ৫ বছরের পুরোনো এটিএমের তোলা টাকার জন্যও কর দিতে হবে এবার



পণ্য পরিষেবা কর দপ্তরের ডিরেক্টর জেনারেলের অফিস থেকে বিগত পাঁচ বছর ধরে এটিএম থেকে টাকা তোলার জন্য দেওয়া পরিষেবার ওপর কর জমা পড়েনি কেন ,তার কারণ ব্যাখ্যা চেয়ে স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া, এইচডিএফসি, আইসিআইসিআই, কোটাক মাহিন্দ্র এবং অ্যাক্সিস ব্যাঙ্কের প্রভৃতি রাষ্ট্রায়ত্ত এবং বেসরকারী ব্যাঙ্কের কাছে নোটিস পাঠালো। শুধু এই কয়েকটা ব্যাঙ্কই নয় শীঘ্রই সমস্ত ব্যাঙ্কের কাছে জবাব চেয়ে নোটিশ পাঠাবে পণ্য পরিষেবা কর দপ্তরের ডিরেক্টর জেনারেলের অফিস। অনুমান করা হচ্ছে সমস্ত ব্যাঙ্কের থেকে এই কর আদায় করা সম্ভব হলে দেখা যাবে তার পরিমাণ কয়েক হাজার কোটি টাকার ও বেশি। এরফলে ভবিষ্যতে তো বটেই, অতীতে এটিএম থেকে তোলা টাকার ওপরেও সমস্ত ব্যাঙ্ক-গ্রাহককে কর দিতে হতে পারে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

উল্লেখ্য পূর্বেকার এফআরডিআই বিল অর্থাৎ যে বিলে ব্যাঙ্কে রাখা গ্রাহকের টাকা দিয়েই ব্যাঙ্কের লোকসান মেটানোর পরিকল্পনার কথা বলা হয়েছিলো তা ভেস্তে যায়। কিন্তু এতেও দমে না থেকে মোদী সরকার নতুন এই ব্রহ্মাস্তটি পাঁচটি ব্যাঙ্কের উদ্দেশ্যে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করলো। এখানে বলা হয়েছে ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে বাধ্যতামূলক ন্যূনতম টাকা না রেখেই যদি কেউ এটিএম থেকে টাকা তোলেন, সেক্ষেত্রে তাঁর কাছ থেকে ব্যাঙ্ক যে চার্জ আদায় করে, তার ওপর পরিষেবা কর সরকারের কাছে জমা দেওয়া হয়নি কেন? একই সঙ্গে অভিযোগ করা হয়েছে, ন্যূনতম টাকা রেখে যারা এটিএম থেকে টাকা তোলেন, তাঁদের ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক এই পরিষেবা বিনামূল্যে দিয়ে থাকলেও, সেই পরিষেবার ওপর করই বা দেওয়া হবে না কেন? ন্যূনতম টাকা জমা না-রাখলে ব্যাঙ্ক যে জরিমানা আদায় করে, সেটাকেই এটিএম থেকে টাকা তোলার পরিষেবা মূল্য ধরে নিয়ে দাবি করা হয়েছে, পরিষেবা বিনামূল্যে দেওয়া হলেও, তার ওপর ধার্য কর বাদ যাবে কেন? সুতরাং, গত ৫ বছর ধরে এটিএম থেকে তোলা প্রতিটি টাকার ওপর হিসেব করে ব্যাঙ্কগুলিকে কর জমা দিতে হবে সরকারের কাছে। কারণ, ৫ বছরের পুরনো পরিষেবা কর আর দাবি করা যায় না। এদিকে পণ্য পরিসেবা দফতর থেকে জবাবদিহি চেয়ে নোটিশ পাঠানোর কথা মেনে নিয়ে এক ব্যাঙ্ক কর্তা জানালেন , গ্রাহকের পুরনো এটিএম লেনদেনের ওপর কর সংগ্রহ করা কি সোজা কাজ নাকি? অ্যাকাউন্টে ন্যূনতম টাকা না-থাকার জরিমানাকে পরিষেবা দেওয়ার খরচ হিসেবে দেখিয়েই যুক্তি সাজিয়েছে পণ্য পরিষেবা করের দপ্তর। কিন্তু কোনও বছরের কর প্রস্তাবেই এ কথা স্পষ্টভাবে বলা ছিল না যে এটিএম থেকে টাকা তোলা পণ্য পরিষেবা করের আওতায় পড়বে। তিনি জানালেন এই কর-আরোপের বিরোধিতা করে সমস্ত ব্যাঙ্কই সরকারের কাছে আবেদন করবে, বিষয়টি যথাযথ ব্যাখ্যাও করবে। তবে এই কর আরোপ করা হোক বা নাই হোক কর দপ্তরের এই উদ্যোগে ব্যাঙ্ক পরিষেবার ওপর সাধারণ মানুষের আস্থা যে নষ্ট হলো, সে ব্যাপারে কোনও দ্বিমত নেই।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!