এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > আব্বাসকে কড়া হুঁশিয়ারি অধীরের, জোট নিয়ে ফের অশনি সংকেত!

আব্বাসকে কড়া হুঁশিয়ারি অধীরের, জোট নিয়ে ফের অশনি সংকেত!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বামেদের সঙ্গে কংগ্রেসের জোটের ব্যাপারে তেমন কোনো সংশয় না থাকলেও, আব্বাস সিদ্দিকীর দলের সঙ্গে এখনও পর্যন্ত যথেষ্ট দূরত্ব রয়েছে কংগ্রেসের। ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে তা কার্যত প্রকাশ্যে এসেছে। যেখানে অধীর রঞ্জন চৌধুরী বক্তব্য রাখার সময় মঞ্চে উপস্থিত হন আব্বাস সিদ্দিকী। আর সেই সময় উপস্থিত জনতার মুখে “ভাইজান” শব্দ শুনে রীতিমতো নিজের বক্তব্য স্থগিত রাখেন প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে চলে যায় যে, বক্তব্য না রেখেই মঞ্চ থেকে চলে যেতে চান অধীরবাবু। পরবর্তীতে তাকে শান্ত করতে উদ্যত হন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু।

স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনার পর থেকেই সংযুক্ত মোর্চা ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করলেও, কংগ্রেস এবং আব্বাস সিদ্দিকীর দলের মধ্যে কতটা সু-সম্পর্ক হবে, তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় তৈরি হয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে আসন ভাগাভাগি নিয়ে কড়া হুঁশিয়ারি দিলেন প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। যেখানে মালদহ এবং মুর্শিদাবাদের একটি আসনও পীরজাদাদের ছাড়া হবে না বলে জানিয়ে দিবেন তিনি।

সূত্রের খবর, এদিন এই প্রসঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেন, “আমাদের জোট হয়েছে বামফ্রন্টের সঙ্গে। সেখানেই চূড়ান্ত আসন সমঝোতা অমীমাংসিত। ফলে অন্য আরেকটি দলের বিষয়ে আলাদা করে কিছু ভাবছি না। মালদা, মুর্শিদাবাদে কংগ্রেস জেতে। আমরা আমাদের জেতা আসন পীরজাদাদের দিতে যাব কেন? এরা অন্য জায়গায় আসন নিন না! কিন্তু কোনো অবস্থাতেই মালদহ, মুর্শিদাবাদে দেব না।”

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অর্থাৎ মালদহ এবং মুর্শিদাবাদ সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকা হলেও, সেখানে আব্বাস সিদ্দিকীর দলকে যে তারা কোনোভাবেই আসন ছেড়ে দেবেন না, তা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। আর তার এই মনোভাব থেকেই স্পষ্ট হয়ে গেল, বাম, কংগ্রেস এবং আব্বাস সিদ্দিকীর জোটের সমস্যা। অনেকে বলছেন, আসন ভাগাভাগির ব্যাপারে বামফ্রন্টের সঙ্গে হয়ত বা সমস্ত সমস্যা মিটে গিয়েছে আব্বাস সিদ্দিকীর। কিন্তু কংগ্রেসের সঙ্গে এখনও তাদের দরকষাকষি চলছে। সেদিক থেকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির এই মন্তব্য আব্বাস সিদ্দিকীর সাথে তার দূরত্বকে যে আরও বাড়িয়ে দিল, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

পর্যবেক্ষকদের একাংশ বলছেন, সংযুক্ত মোর্চার এই লড়াইয়ে সবথেকে বড় সমস্যা এখন হয়েছে আব্বাস সিদ্দিকীর দল এবং কংগ্রেসকে নিয়ে। এই দুই দলের মধ্যে যদি দরকষাকষি না হয়, তাহলে এই জোট শেষ পর্যন্ত কতটা সফলতা পাবে, তা নিয়ে যথেষ্ট চিন্তা রয়েছে। মালদহ এবং মুর্শিদাবাদ সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকা হওয়ার কারণে সেখানে যে আব্বাস সিদ্দিকীর দল প্রার্থী দেওয়ার ব্যাপারে চেষ্টা চালিয়ে যাবে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতির মন্তব্য থেকে পরিষ্কার, তারা এই দুইটি জেলায় কোনোভাবেই আসন ছেড়ে দিতে নারাজ।

স্বাভাবিক ভাবেই যদি কংগ্রেসের সঙ্গে এই ব্যাপারে দড়ি টানাটানি শুরু হয় আব্বাস সিদ্দিকীর, তাহলে শেষ পর্যন্ত এই বৃহত্তর জোট ভেস্তে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। যার ফলে বাম, কংগ্রেস এবং এই আব্বাস সিদ্দিকীর দলের ক্ষতি হবে বলেই দাবি করছেন একাংশ। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, শেষ পর্যন্ত আলোচনার মধ্য দিয়ে সমস্যার সমাধান হয় কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!