এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ফের সেনাপতি হয়ে ময়দানে নামলেন দিলীপ ঘোষ, লক্ষ্য কি? জানুন বিস্তারিত

ফের সেনাপতি হয়ে ময়দানে নামলেন দিলীপ ঘোষ, লক্ষ্য কি? জানুন বিস্তারিত



2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করেছে বিজেপি। এবং সেই লক্ষ্যে রাজ্য বিজেপির খোলনলচে বদলানোর কথা ছিল আগেই। সেই প্রস্তুতির পদক্ষেপ হিসাবেই দ্বিতীয়বারের জন্য পশ্চিমবঙ্গ বিজেপি সভাপতি নির্বাচিত হলেন দিলীপ ঘোষ। রাজ্য সভাপতি নির্বাচনের জন্য আজ সভা বসেছিল ন্যাশনাল লাইব্রেরীতে এবং সেখানেই দ্বিতীয়বার সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন দিলীপ ঘোষ। আর তিন বছরের জন্য বিজেপির রাজ্য সভাপতি নির্বাচিত হয়ে পুরনো ফর্মে ফিরে গেলেন দিলীপ ঘোষ। রাজ্য বিজেপি সভাপতি হিসেবে এবার তাঁর দ্বিতীয় ইনিংস শুরু।

দ্বিতীয়বার রাজ্য বিজেপি সভাপতির আসনে বসার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তার বক্তব্যে ফুটে উঠল আগ্রাসী মনোভাব। একইসঙ্গে তিনি রাজ্যের বাম কংগ্রেস তৃণমূলকে তীব্র আক্রমণ করলেন। বুঝিয়ে দিলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি কোনোভাবেই মিষ্টি কথা বলতে পারবেন না বরং অনেক বেশি কড়া কথা শোনাবেন। সম্প্রতি রানাঘাটে গিয়ে সিএএ এবং এনআরসি নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, সিএএ ও এনআরসিতে যারা বিরোধিতা করছেন, তাঁদেরকে গুলি করে মারা উচিত। ক্ষমতায় এলে তাঁদের গুলি করে মারা হবে। যা নিয়ে ইতিমধ্যে রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

দিলীপ ঘোষের মন্তব্যকে ঘিরে ইতিমধ্যে রাজ্যের বিরোধীরা তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে। শুধু তাই নয়, বিরোধীদের সাথে সাথে তাঁর নিজের দলেও যথেষ্ট সমালোচনা হয়েছে। এই ঘটনায় কার্যত বিজেপি দল কিছুটা অস্বস্তিতে পড়েছে বলে দাবি করেছে রাজনৈতিক দলের একাংশ। কিন্তু তা সত্ত্বেও দিলীপ ঘোষ তাঁর বক্তব্য থেকে বিন্দুমাত্র সরেননি। উল্লেখযোগ্যভাবে তাঁর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এদিন দ্বিতীয়বার রাজ্য বিজেপি সভাপতি হয়ে দিলীপ ঘোষ এ রাজ্যের বিজেপি কর্মীদের অসহায় অবস্থা নিয়ে কথা বলেছেন। তিনি হিসাব দিয়েছেন, এ রাজ্যের কতজন বিজেপি কর্মী ঘরছাড়া এবং কতজন মারা গিয়েছেন। এবং তারপরই তিনি বলেছেন, এইসব ঘটনার পরে তিনি কখনোই মিষ্টি কথা বলতে পারবেন না বরং কড়া কথা শোনার জন্য তৈরি থাকতে হবে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

রাজ্য বিজেপি সভাপতি দ্বিতীয়বার দলের হাল ধরে তিনি কর্মীদের প্রবলভাবে উৎসাহ প্রদান করেছেন। কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, বিজেপি কখনো পোষ্টের মাধ্যমে পার্টি করে না। তাঁদের অস্ত্র ঝান্ডা। আর এই আদর্শ দেখেই দলে কর্মীরা আসেন। পরিষ্কার করে বুঝিয়ে দেন তিনি, আগামী দিনের বিধানসভা নির্বাচন তাঁদের কাছে একটা বিশাল বড় পরীক্ষা। এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘মানুষ বিকল্প (বিজেপি) খুঁজে নিয়েছে। কিন্তু পরীক্ষা দেওয়া বাকি। আমাদের পরীক্ষায় পাস করতে হবে।’

প্রসঙ্গত, চার বছর আগে কেন্দ্রীয় বিজেপির পক্ষ থেকে রাজ্য বিজেপি সভাপতি করা হয় দিলীপ ঘোষকে। তার আগে রাজ্য সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন রাহুল সিনহা। কিন্তু সেসময় রাজ্যে বিজেপির উত্থান না হওয়ার তাঁকে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে জবাবদিহি করতে হয়েছে বহুবার। কিন্তু দিলীপ ঘোষ রাজ্য সভাপতি হওয়ার পরেই পশ্চিমবঙ্গে পদ্ম শিবিরের হওয়া অন্যখাতে বইতে শুরু করে। লোকসভা নির্বাচনের ফল সাধারণ মানুষ দেখেছে। তাই এই মুহূর্তে দিলীপ ঘোষকে নিয়ে বহু বিতর্ক তৈরি হলেও 2021 সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব মেদিনীপুরের সংসদ দিলীপ ঘোষের উপরেই ভরসা রাখলেন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞগণ।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!