এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ফের ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল এর এসএসসি নিয়োগ নিয়ে বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি উঠলো

ফের ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল এর এসএসসি নিয়োগ নিয়ে বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি উঠলো



SSC নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষোভে ভুগছিল রাজ্যবাসী| এবার ইসলামপুর ঘটনাকান্ডকে ঘিরে সেই ক্ষোভই বিক্ষোভের আকার নিলো| SSC নিয়ে দুর্নীতি রাজ্যবাসীর কাছে নতুন ঘটনা নয়| এবার সেই দুর্নীতির তদন্তের দাবি উঠলো| আজ সকালে SSC নিয়োগ সংক্রান্ত বিভিন্ন দাবি নিয়ে আচার্য সদনের সামনে জমায়েত করেন ছাত্রযুব অধিকার মঞ্চের সদস্যরা। সেখানে যোগদান করেন অনেক SSC-র চাকরিপ্রার্থীরা| সেখানেই তারা ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত প্রাইমারি থেকে ক্লাস টুয়েলভ পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে যত নিয়োগ হয়েছে তার বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি জানায়| শুধু নিয়োগ সংক্রান্ত দাবিদাওয়াই নয়, ইসলামপুরের ঘটনার জন্য বিকাশ ভবন, শিক্ষামন্ত্রক ও শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেই দায়ী করেছেন তাঁরা। এমনকি ইসলামপুরে ছাত্র মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেঁধে নীরবতা পালন করেন তাঁরা| আজ দুপুর ১২টা থেকে বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু করেন চাকরিপ্রার্থীরা। আগে থেকে অনুমতি নিয়ে আসা হলেও চেয়ারম্যান দেখা না করায় শুরু হয় এই বিক্ষোভ|

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আন্দোলনকারী মহম্মদ মেহবুব মণ্ডলের অভিযোগ অনুযায়ী নাইন-টেনের বাংলা বিষয়ের কাউন্সেলিং বিভিন্ন মামলার জেরে আটকে রয়েছে। এইসব মামলা মিটিয়ে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে কাউন্সেলিং চালু করতে হবে। অন্যদিকে ওয়ার্ক এডুকেশন, ফিজিক্যাল এডুকেশনের ফলাফল দীর্ঘদিন ধরে আটকে আছে। সেটাও দ্রুত প্রকাশের দাবি তোলা হয়েছে এই আন্দোলনে| বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন গেজেট মেনে নিয়োগ না করা হলে পুজোর পর আরও বড় আন্দোলন করবেন তাঁরা| এমনকি আমরণ অনশন কর্মসূচি গ্রহণ করবেন বলেও জানিয়েছেন। মেহবুব মণ্ডল বলেন, “আজ আমাদের আন্দোলনের সঙ্গে ইসলামপুর ইশুকে যুক্ত করেছি। কারণ, ইসলামপুরে শিক্ষক নিয়োগের দাবির উপর একটা আক্রমণ হয়েছে তাই এই আন্দোলনে এই বিষয়কেও তারা যুক্ত করেছে। আন্দোলনকারীদের মতে ইসলামপুরের ঘটনাটিকে নিয়ে একটা নোংরা রাজনীতি করা হচ্ছে| সেই সব ঘটনাগুলি SSC-র চাকরিপ্রার্থীদের উপরই আক্রমণ বলে মনে করায় এই ঘটনার তীব্র বিরোধিতা করছে বলে জানিয়েছে মেহবুব মন্ডল নামে ওই বিক্ষোভকারী| রাজ্যে SSC পরীক্ষা না হওয়ায় ক্ষোভে তারা বলেন যে সরকার দীর্ঘদিন শিক্ষক নিয়োগ না করাই এই সমস্যাটা হল, শিক্ষাঙ্গন রক্তাক্ত হল। সরকার সাত বছর ধরে কোনও নিয়োগ করেনি। দায়ী বিকাশ ভবন, শিক্ষামন্ত্রক।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!