এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ১০০ দিনের কাজ নিয়ে চরম ধাক্কা খেতে চলেছে মমতা প্রশাসন? এখনো পর্যন্ত টাকা দেয় নি কেন্দ্র

১০০ দিনের কাজ নিয়ে চরম ধাক্কা খেতে চলেছে মমতা প্রশাসন? এখনো পর্যন্ত টাকা দেয় নি কেন্দ্র



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গতবছর করোনা সংক্রমনের সময়ে কাজ হারিয়েছিলেন বহু মানুষ, বহু পরিযায়ী শ্রমিক কাজ হারিয়ে ভিন রাজ্য থেকে বাড়ি ফিরে এসেছিলেন। তাদের অনেকেরই হাতে কোনো কাজ ছিল না। এই পরিস্থিতিতে গ্রামীণ মানুষকে কর্মমুখী করতে ১০০ দিনের কাজের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করে রাজ্য সরকার। গত বছর ১ কোটিরও বেশি মানুষ ১০০ দিনের কাজের সঙ্গে যুক্ত হন। ১১ হাজার কোটিরও বেশি অর্থ এই খাতে কেন্দ্র রাজ্যকে প্রদান করেছিল। চলতি বছরেও আংশিক লকডাউন থাকার কারণে বহু মানুষ কাজ হারিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে গ্রামের মানুষদের বিকল্প জীবিকার সন্ধান করে দিতে ১০০ দিনের কাজকে গুরুত্ব দিতে চাইছে রাজ্য সরকার। কিন্তু আশঙ্কার কথা চলতি বছর ১০০ দিনের কাজের জন্য এখনো পর্যন্ত কোনো অর্থ দান করে নি কেন্দ্রীয় সরকার। অর্থের অভাবে এই প্রকল্প থমকে যাবার আশঙ্কা করছেন অনেকে।

গত গতবছর করোনা সংক্রমণে বহু মানুষ যখন কর্মহারা, সেসময় ১০০ দিনের কাজে রাজ্য রেকর্ড তৈরি করেছিল। গত বছর ১১ হাজার ১০১ কোটি ৫ লক্ষ টাকা কেন্দ্র রাজ্যকে প্রদান করেছিল এই খাতে। গত বছর ১ কোটি ১৮ লক্ষ ২৯ হাজার রাজ্যবাসী ১০০ দিনের কাজের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন। ১২ লক্ষ ৯৬ হাজার ৪৩৯ রকম কাজ এই প্রকল্পের মধ্যে হয়েছিল। কিন্তু, এবছর এখনো পর্যন্ত এই খাতে কোনো অর্থ পাঠায় নি কেন্দ্রীয় সরকার। এ কারণেই ১০০ দিনের কাজ নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিকে রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী হিসেবে পুনঃনিযুক্ত হয়েছেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। চলতি বছরে কর্মহারা মানুষের কর্মসংস্থানের জন্য ১০০ দিনের কাজকে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিতে চাইছেন তিনি। ১০০ দিনের কাজে গতি আনতে সচেষ্ট তিনি। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের সঙ্গে তিনি আগামী মঙ্গলবার বৈঠক করতে চলেছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, গত বছর ১০০ দিনের কাজের রেকর্ড গড়েছিল রাজ্য। গ্রামীণ অর্থনীতির মূল চাবিকাঠি হয়ে উঠেছে ১০০ দিনের কাজ। যা একটা অধিকার। ভোট নিয়ে দুমাস তিনি ব্যস্ত ছিলেন। এবার আধিকারিকদের থেকে রিপোর্ট নিয়ে, গ্রাম উন্নয়ন মন্ত্রকের কাছে দরবার করবেন তিনি।

এদিকে, চলতি বছর নির্বাচন থাকলেও ১০০ দিনের কাজ থমকে থাকে নি। চলতি আর্থিক বছরের দেড় মাস পার হয়ে গেলেও এখনও পর্যন্ত এই খাতে কেন্দ্রীয় সরকারের অর্থ না আসা, আশঙ্কা বাড়িয়ে দিয়েছে। ১০০ দিনের কাজের মতো প্রকল্প যদি থমকে যায়, তবে কর্মহারা হয়ে পড়বেন বহু মানুষ। এ বিষয়ে উপযুক্ত অর্থসংস্থানের উদ্দেশ্যে কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি দিয়ে বিস্তারিত জানানো হয়েছে রাজ্যের পক্ষ থেকে। তবে, এখনও পর্যন্ত কেন্দ্রের পক্ষ থেকে আর্থিক সাহায্য না আসায়, আশঙ্কা বাড়ছে এই প্রকল্পকে নিয়ে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!