এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > দলের যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতিকে গ্রেফতার করে মারধরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে,রিপোর্ট তলব কেন্দ্রের

দলের যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতিকে গ্রেফতার করে মারধরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে,রিপোর্ট তলব কেন্দ্রের

দলের যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি দেবজিৎ সরকারকে গ্রেফতার করার পর পুলিশি নির্যাতনের অভিযোগ তুলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রককে চিঠি পাঠিয়েছে রাজ্য বিজেপি। বিষয়টি প্রথমে নজরে আনা হয় বিজেপি-র যুব মোর্চার সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মধুকেশ্বর দেশাই-এর। তিনিই মেল করে কেন্দ্রীয় মন্ত্রককে অভিযোগটি জানান। অভিযোগ পেয়েই নড়েচড়ে বসেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কিরেন রিজেজু। এই অভিযোগ সংক্রান্ত রিপোর্ট তলব করেছেন তিনি। এ নিয়ে বিজেপির অন্দরে তুমুল চাঞ্চল্য রয়েছে। গুঞ্জন শুরু হয়েছে বিরোধী শিবিরেও।

প্রসঙ্গত,২৬ সেপ্টেম্বর বিজেপির ডাকা ১২ ঘন্টার বনধে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি ছিল উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর ব্লকে। কয়েকটি সরকারি বাসে ভাঙচুরের পাশাপাশি ৪ টি সরকারি বাসে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগও ওঠে বনধ সমর্থনকারী বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে তাঁদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তিও হয়। মুহূর্তেই সংঘর্ষ ভয়ানক রূপ ধারণ করে। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়া অভিযোগও ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। টায়ার জ্বালিয়ে রাস্তা অবরোধ করলে পুলিশ বনধ সমর্থনকারীদের লাঠিচার্জও করে। তাতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না এলে ছোঁড়া হয় কাঁদানে গ্যাস এবং রাবার বুলেটও। শেষে সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস করার অপরাধে মোট ১৩৩ জন বনধ সমর্থকদের গ্রেফতার করে পুলিশ। রাতে এদের মধ্য ৬৪ জনকে ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন দেয় পুলিশ। বাকি দেবজিৎ বাবু সহ ৬৯ জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনেী ২৫ ও ২৭ ন্যাশনাল হাইওয়ে আইনের ১৪৭,১৪৮ ও ১৪৮ ধারার মামলা রজু হয়েছে। রয়েছে বিস্ফোরক আইনি মামলাও। এদিন ইসলামপুর আদালতে অভিযুক্তদের তোলা হলে এক সপ্তাহে পুলিশে হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

আদালত থেকে বেরিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নিজের উপর হওয়া পুলিশি নির্যাতনের কথা ফাঁস করেন দেবজিৎ সরকার। স্বীকারোক্তিতে বলেন,রাত নটার পর থেকেই তাকে জেলবন্দি করে বেধড়ক মারধোর করেছে কমব্যাট ফোর্সের এক কর্মী। পিঠে, ঘাড়ে ব্যাপক চোট পেয়েছেন তিনি। সেই চোট পাওয়ার দাগ তিনি মিডিয়াকে দেখিয়েছেনও। শুধু তাই নয়,রাতে খেতেও দেননি তাঁদের ইসলামপুর থানার পুলিশ। অন্য আসামীদের বাড়ি থেকে আনা খাবার ভাগ করে খেতে হয়েছে তাঁদের। আজ আদালতে আসার পর বিচারকের নির্দেশে রুটি তরকারি খেতে দিয়েছে পুলিশ,এমনটাই জানান তিনি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

দেবজিৎ বাবুর এই বক্তব্যের পরই বিজেপি তরফ থেকে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। তবে এ অভিযোগের ব্যাপারে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি ইসলামপুর পুলিশের তরফ থেকে। উল্লেখ্য,সম্প্রতি পুলিশের গুলিতেই ইসলামপুরের স্কুলে আন্দোলনরত দুই ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে,এই অভিযোগেই কার্যত চাপে রয়েছে রাজ্যপুলিশ। তারউপর বনধ সমর্থনকারীদের উপর জেলবন্দি করে অকথ্য অত্যাচারের মামলা চলায় কোনঠাসা অবস্থা পুলিশ প্রশাসনের। একদিকে দিল্লিতে এর বিরুদ্ধে নালিশ গিয়েছে অন্যদিকে এর বিরুদ্ধে মামলাও চলছে। এই সমস্যা থেকে খুব জলদি ইসলামপুরের পুলিশ প্রশাসন নিস্তার পাবে না বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!