এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > রাজ্যজুড়ে লক্ষ লক্ষ ‘ভুতুড়ে’ কর্মী! খোঁজ শুরু হতেই চোখ কপালে সবার!

রাজ্যজুড়ে লক্ষ লক্ষ ‘ভুতুড়ে’ কর্মী! খোঁজ শুরু হতেই চোখ কপালে সবার!

সরকারি দপ্তরে যত কর্মী কাজ করেন তার থেকে বেশি রয়েছে অনেক ভুতুড়ে কর্মী। যারা কোন কাজ না করেও পেয়ে যান মাসিক বেতন। আর ঠিক কারা কারা এই তালিকায় রয়েছেন তার খোঁজ করতে তিন মাস আগেই নেওয়া হয়েছিল একটি পদক্ষেপ।

আর সেইখান থেকেই পাওয়া এক তথ্যে দেখা গেছে যে, রাজ্যের 50 টি সরকারি দপ্তরে বর্তমানে রয়েছে 3 লক্ষ 13 হাজার কর্মচারী। আর এর মধ্যে 17 হাজার 427 জন কর্মী ঠিক কোন পদে কাজ করেন তা জানাই যায়নি। আর তাই শেষ পর্যন্ত এই বাড়তি 17 হাজার 427 জন কর্মীর পদ ঠিক করতে রাজ্যের অর্থ দপ্তরকে নিতে হয়েছে সিদ্ধান্ত।

তবে রাজ্য সরকারের ধারণা, শুধুই 50 টি দপ্তর নয়। এখনও এমন অনেক দপ্তর রয়েছে যেখানে প্রচুর সংখ্যায় এই ভুতুড়ে কর্মীর বাড়বাড়ন্ত শুরু হয়েছে। আর এই দপ্তরের মধ্যে স্কুল-কলেজ, পঞ্চায়েত, পুরসভা, সরকারি অধীনস্ত সংস্থা, কমিশন এবং পর্ষদের মত দপ্তরগুলির মধ্যেই লুকিয়ে রয়েছে সর্ষের ভেতর বপন করা ভূত। তাই এখন সেখানেও খোঁজখবর করতে শুরু করেছে অর্থ দপ্তর।

জানা গেছে, বর্তমানে প্রতি মাসে রাজ্যের 10 লক্ষ কর্মীর বেতন দিতে হয় সরকারকে। ফলে অতীতে 50 টি দপ্তরের মধ্যে ভুতুড়ে কর্মীর খোঁজ পেলেও সেই বেতন সরকারের তরফ থেকে বন্ধ না করা হলেও এখন নতুন দপ্তরগুলিতে যদি ভুতুড়ে কর্মীর খোঁজ পাওয়া যায় সে ক্ষেত্রে সরকার আদৌ তাদের বেতন বন্ধ করবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছেন অনেকেই।

সূত্রের খবর, একটা সময় ছিল যখন ট্রেজারি থেকে তুলে এনে নগদ বেতন দেওয়া হতো কর্মীদের। কিন্তু বর্তমানে বেতন থেকে ছুটি, সার্ভিস বই থেকে পদোন্নতি সব কিছুই নিয়ন্ত্রিত হয় “হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম” নামে বিশেষ সফটওয়্যারের মাধ্যমে।

আর এরই মাঝে ভুতুড়ে কর্মী ধরতে এইচএমআরএসের মাধ্যমে রাজ্যের সরকারি দপ্তরগুলিতে কোথায় কে কোন পদে কাজ করেন তা চিহ্নিত করণের কাজ শুরু হয়। আর সেখানে 17 হাজার সরকারি কর্মচারী বলে পরিচয় দেওয়া ব্যক্তি নিজেদের সরকারি কর্মচারী বলে প্রমাণই করতে পারেননি। আর এরপরই অনেকের মনে হয়েছিল যে, সরকার হয়তো এবার কঠোর সিদ্ধান্ত নেবে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কিন্তু সেই রাস্তায় না হেঁটে সেই সমস্ত কর্মচারীর নতুন পদ অনুমোদনের জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে অর্থ দপ্তর। ফলে নতুন করে যদি রাজ্যের সরকারি দপ্তরগুলিতে এইরূপ ভুতুড়ে কর্মীর হদিস মেলে তাহলে আদৌ কি সরকার তাদের ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নেবে তা নিয়ে সংশয়ে আধিকারিকদের একাংশই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!