এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলায় সিপিএম ভেঙে ‘নতুন দল’ তৈরি হওয়া কি এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা?

বাংলায় সিপিএম ভেঙে ‘নতুন দল’ তৈরি হওয়া কি এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা?

রাজ্য-রাজনীতিতে প্রাসঙ্গিকতা ধরে রাখতে এবারের সিপিআইএমের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক বঙ্গ-ব্রিগেডের কাছে অত্যন্ত গুরুত্ত্বপূর্ন ছিল। আর বঙ্গ ব্রিগেডের মত মেনে নিয়ে তাতে নেতৃত্ত্ব দিয়েছিলেন সীতারাম ইয়েচুরি। কিন্তু প্রকাশ কারাট গোষ্ঠীর কাছে কার্যত পর্যদুস্ত ইয়েচুরি গোষ্ঠীর মত। ফলে নিজেদের প্রাসঙ্গিকতা ধরে রাখতে, বিভিন্ন সংবাদপত্রের খবরের পরিপ্রেক্ষিতে জানা যাচ্ছে, সিপিএমের ভাঙন শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা। কেননা কারাট পন্থীরা এখনো বিশ্বাস করেন তাঁদের একনম্বর প্রতিপক্ষ বিজেপি ও দুই নম্বর কংগ্রেস। সুতরাং সামগ্রিক পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপি বা কংগ্রেসের সঙ্গে সমদূরত্ত্ব রেখে কংগ্রেসে জোট সঙ্গী কোনো ধর্মনিরপেক্ষ শক্তির (যেমন – বাংলায় তৃণমূল কংগ্রেস বা তামিলনাড়ুতে ডিএমকে) সঙ্গে জোট করা যেতে পারে।

কিন্তু বঙ্গ ব্রিগেডের স্পষ্ট মত, সারা ভারতের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাকে দেখা ঠিক হবে না। এ রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস হচ্ছে তাদের পয়লা নম্বর প্রতিপক্ষ। আর বাংলায় বিজেপির কোনো শক্তিই নেই, যেটুকু উত্থান তা রাজনৈতিক ‘শূন্যতার’ কারণে, আর তাই বিজেপিকে দূরে রাখতে এবং তৃণমূল কংগ্রেসকে আটকাতে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করা ছাড়া উপায় নেই। অন্যদিকে যদি প্রকাশ কারাটদের মত মেনে নিতে হয়, অর্থাৎ তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করার কথা ভাবা হয় – তাহলে তা একদিকে অবাস্তব ও হাস্যকর, অন্যদিকে তা করলে দলের যেটুকু ভোটব্যাঙ্ক অবশিষ্ট আছে তা বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

সবথেকে বড় কথা, বঙ্গ ব্রিগেডের দাপুটে নেতাদের কথামত, দল পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা ও কেরালার বাইরে সেভাবে বিস্তার পায় নি। অন্যদিকে প্রকাশ কারাটের ‘দূরদৃষ্টিতে’ এই তিনরাজ্য থেকেও অস্তিত্ত্ব ক্রমশ মুছে যাচ্ছে। প্রকাশ কারাট বঙ্গ ব্রিগেডের জন্য উপহার দিয়েছেন একের পর এক ঐতিহাসিক ভুল। যেমন

১. জ্যোতি বসুকে প্রধানমন্ত্রী না হতে দেওয়া
২. পরমাণু ইস্যুতে ইউপিএ ওয়ান সরকারের উপর থেকে সমর্থন তুলে নেওয়া, যা পশ্চিমবঙ্গে বামফ্রন্ট সরকারের পতনের অন্যতম কারণ বলে পার্টি মনে করে
৩. সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়কে স্পিকার পদ থেকে সরানো ও দল থেকে ছেঁটে ফেলা

আর তাই এবারে আরেকটি ‘ঐতিহাসিক ভুলের’ পথে আর যেতে রাজি নয় বঙ্গ-সিপিএম। সুতরাং ‘আদ্যিকালের পার্টি লাইন’ থেকে সরে না আসলে বিশেষত বাংলায় সিপিএমের ঘুরে দাঁড়ানো কার্যত অসম্ভব। অতএব একবার ‘শেষ চেষ্টা’ করে দলের হায়দারাবাদ সম্মেলনে দেখা হবে, কিন্তু সেখানেও যদি প্রকাশ কারাটরা বঙ্গ রাজনীতির বাস্তবতা বুঝতে না পারেন, তাহলে ‘অন্যরকম’ কিছু ভাবতেই পারেন সীতারাম ইয়েচুরি, বিমান বসু, সূর্য্যকান্ত মিশ্র, গৌতম দেব, সুজন চক্রবর্তী, অশোক ভট্টাচার্য, নেপালদেব ভট্টাচার্যরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!