এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল থেকে শোভন চ্যাটার্জি কি এবার গেরুয়া শিবিরের পথে? জল্পনা বাড়ালেন দিলীপ ঘোষ

তৃণমূল থেকে শোভন চ্যাটার্জি কি এবার গেরুয়া শিবিরের পথে? জল্পনা বাড়ালেন দিলীপ ঘোষ

আগেই হাত থেকে গিয়েছিল পরিবেশ দপ্তর – তারপর গিয়েছিল দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা সভাপতির পদ। আর গতকাল, দলনেত্রীর সঙ্গে বাদানুবাদের জেরে গেছে হাতে থাকা আরও দুই মন্ত্রক – আবাসন ও দমকল। আজ হয়ত দলের চাপে যেতে পারে কলকাতার মেয়রের পদও। আর তাই সব মিলিয়ে রাজ্য রাজনীতির এই মুহূর্তে সব থেকে বেশি চর্চিত নাম – শোভন চট্টোপাধ্যায়।

তাঁকে নিয়ে জল্পনা চলছিল বিগত বেশ কয়েকমাস ধরেই। প্রথমে স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা, আর পরে ‘বান্ধবী’ বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতি – যা ঘিড়ে রীতিমত মুখরোচক খবর পরিবেশিত হয়েছে বিভিন্ন মিডিয়ায়। অনেক আগেই প্রশ্নটা উঠে গিয়েছিল – কিন্তু, বারেবারে দলনেত্রীর সঙ্গে কথা বলে ব্যাপারটা ধামাচাপা দিয়ে রাখা হয়েছিল।

কিন্তু, গতকালের পর খুলে গিয়েছে সব আগল। তৃণমূল কংগ্রেসের অন্দরেই তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ ঘিরে। মন্ত্রীত্ত্ব, জেলা সভাপতির পদ, এমনকি কলকাতার মেয়রের পদও তাঁর হাত থেকে চলে যাওয়ায় তিনি এখন একজন দলীয় কর্মী-বিধায়ক ছাড়া কিছু নন। তাঁর কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হয়েছে সরকারি গাড়ি ও সুযোগ-সুবিধাও!

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এই পরিস্থিতিতে কি শোভনবাবু ঘাসফুল ছেড়ে পদ্মফুল শিবিরে ভিড়বেন? এটাই এখন তৃণমূল-বিজেপি কর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের কাছে লাখ টাকার প্রশ্ন। আর সেই জল্পনায় আরও গতি পেয়েছে, যখন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ মন্তব্য করেছেন, কেউ আমাদের দলে আসতে চাইলে, অবশ্যই আসতে পারেন। আমাদের তো কোনও বাধা নেই। তবে একটা বিষয়, আমরা এক্ষেত্রে জাল বিছিয়ে রেখেছি। সব কিছু খতিয়ে দেখেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

যদিও শোভনবাবু নিজে এই নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি। তবে, এর আগে স্বয়ং দলনেত্রী তাঁকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন তিনি বিজেপিতে পা বাড়িয়ে আছেন কিনা। জবাবে শোভনবাবু জানিয়েছিলেন, তৃণমূল কংগ্রেস ছাড়লে তিনি রাজনৈতিক সন্ন্যাস নিয়ে নেবেন। কিন্তু, কিছুতেই গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাবেন না। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, শোভনবাবুর মত হাই-প্রোফাইল রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ত্ব এত তাড়াতাড়ি রাজনৈতিক সন্ন্যাস নিলে – সেটাই আশ্চর্যের! সবদিক বিবেচনা করে তাঁর গেরুয়া শিবিরে যোগ দেওয়ার সম্ভাবনাই উজ্জ্বল – এখন দেখার শোভনবাবু নিজে এই নিয়ে কি সিদ্ধান্ত নেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!