এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > আরো কংগ্রেস বিধায়ক তৃণমূলের কাছাকাছি, দল না ছেড়েও শাসকদলের বড়সড় দায়িত্ত্বে

আরো কংগ্রেস বিধায়ক তৃণমূলের কাছাকাছি, দল না ছেড়েও শাসকদলের বড়সড় দায়িত্ত্বে

2016 র বিধানসভা নির্বাচনের পরেই সমস্ত শ্রমিক সংগঠন ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছিল পশ্চিম বর্ধমানে। দীর্ঘদিন ধরে আসানসোল বা দুর্গাপুরের কোনো কারখানাতেই শ্রমিক সংগঠন না থাকায় প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছিল। এবার সেই প্রশ্নকেই দূরে সরিয়ে শুক্রবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোলকাথায় ডেকে এই জেলার তৃনমূল প্রভাবিত শ্রমিক সংগঠনের চেয়ারম্যানের দায়িত্বভার তুলে দেন ভি শিবদাসনের হাতে এবং সংগঠনের সভাপতি করেন দুর্গাপুরের বিশ্বনাথ পাড়িয়ালকে। আর বিশ্বনাথবাবুর কাধে ফের এ ধরনের দ্বায়িত্ব তুলে দেওয়ায় জেলা তৃনমূলের অন্দরে অনেকেই নতুন সমীকরনের ইঙ্গিত পেতে শূরু করেছেন! কিন্তু হঠাৎ এই বিশ্বনাথ পাড়িয়াল পদ পাওয়াতে জেলাজুড়ে এত জল্পনা কেন?

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

 

জানা গেছে, 2016 র বিধানসভা নির্বাচনের সময় দল থেকে দূরে সরে গিয়ে বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী হয়ে তৃনমূলের অপূর্ব মুখোপাধ্যায়কে প্রায় 40 হাজারের বেশি ভোটে পরাজিত করেন এই বিশ্বনাথ পাড়িয়াল। কিন্তু জেতার সাথে সাথেই ফের তৃনমূলে যোগদান করে দুর্গাপুর পরুসভা নির্বাচনে তৃনমূলের হয়ে প্রচার করতেও দেখা যায় তাঁকে। কিন্তু এরপর বেশ কয়েকমাস তাঁকে আর রাজনীতির ময়দানে দেখা যায়নি। অবশ্য তাঁর অনুপস্থিতির কারন হিসাবে অনেকে অবশ্য দলের গোষ্টীদ্বন্দ্বকেই দায়ী করছেন। তবে এদিন নতুন দ্বায়িত্ব পেয়ে বিশ্বনাথ পাড়িয়াল বলেন, “দিদি যে দ্বায়িত্ব দিয়েছেন তা শক্ত হাতে পালন করে সংগঠনকে মজবুত করার চেষ্টা করব।” অপরদিকে এদিন শ্রমিক সংগঠনের চেয়ারম্যান হিসাবে দ্বায়িত্ব নেওয়ার পর ভি শিবদাসন বলেন, ” দিদি নিজে নবান্নতে ডেকে আমাদের কাঁধে দ্বায়িত্ব তুলে দিয়েছেন। সংগঠনকে শক্তিশালী করতে দলের বর্ষীয়ান নেতা মলয় ঘটকের সাথে একযোগে সবাই মিলে কাজ করব।” সব মিলিয়ে বিধানসভায় বিরোধী দলের নেতা বিশ্বনাথ পাড়িয়াল এখন পশ্চিম বর্ধমানের শাসকদলের শ্রমিক সংগঠনের এক নম্বর ব্যাক্তি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!