এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আগামী মাসেই বাংলার রাজ্যপালের দায়িত্ব কোনও ‘কড়া’ হাতে দিতে চলেছে কেন্দ্র?

আগামী মাসেই বাংলার রাজ্যপালের দায়িত্ব কোনও ‘কড়া’ হাতে দিতে চলেছে কেন্দ্র?

ভোট পরবর্তী হিংসায় কার্যত জ্বলছে বাংলা। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তেই অবাধে চলছে গুলি-বোমা, প্রাণ যাচ্ছে রাজনৈতিক কর্মীদের। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদিও বলছেন, সব ঠিক আছে! অতিরঞ্জিত করে রাজনীতি করছে বিজেপি! কিন্তু, ঠিক যে নেই, তা বাসে-ট্রেনে বা চায়ের দোকানের আড্ডায় কান পাতলেই স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে কিছুদিন আগে সন্দেশখালিতে যেভাবে মাথায় বা চোখে গুলি করে নৃশংসভাবে বিজেপি কর্মীদের খুন করা হল – তা নিয়ে বর্তমানে উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি।

ইতিমধ্যেই, রাজ্যের এই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করে এসেছেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি। সূত্রের খবর, মুখ্যমন্ত্রীর দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে দুটি বৈঠকেই রাজ্যের অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ে কড়া রিপোর্ট দিয়েছেন তিনি। আর সেই রিপোর্ট হাতে পেতেই রীতিমত নড়েচড়ে বসেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রক। কেননা, সন্দেশখালি কাণ্ডের সময় অভিযোগ উঠেছিল, এই ঘটনার পিছনে আছেন তৃণমূল নেতা শাহজাহান। তার থেকেও বড় কথা এই শাহজাহানের ‘বাহিনীর’ মধ্যে অন্যতম ‘রত্নরা’ হলেন নাকি আদতে ‘রোহিঙ্গা জঙ্গি’!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এমনিতেই বাংলা সীমান্তবর্তী রাজ্য হওয়াই এবং এখানে বারবার রোহিঙ্গাদের অনুপ্রবেশ নিয়ে প্রশ্ন ওঠায়, দেশের আভ্যন্তরীন নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বাংলার অবস্থান নিয়ে রীতিমত চিন্তিত কেন্দ্র। তার উপরে অতীতে দেখা গেছে, রাজ্যপালের সঙ্গে সহাবস্থান করে কাজ করার বদলে রাজ্যপালকে এড়িয়ে কাজ করতে চাইছে রাজ্য সরকার। এমনকি, রানীগঞ্জে যখন অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি হয়, তখন সেখানে শান্তির আবেদন নিয়ে যেতে চাইলে রাজ্যপালকে প্রথমে আটকে দিতে চায় রাজ্য সরকার বলে অভিযোগ ওঠে। আর এই পরিস্থিতিতে আগামী ২৩ জুলাই বাংলার রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর মেয়াদ শেষ হতে চলেছে।

আর তাই সূত্রের খবর এবার বাংলার রাজ্যপাল হিসাবে ‘কড়া মনোভাবের’ কাউকে বসাতে চাইছে কেন্দ্র সরকার। এমনিতেই নির্বাচনে না লড়া একাধিক হেভিওয়েট বিজেপি নেতাকে বিভিন্ন রাজ্যে রাজ্যপালের দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে বলে জল্পনা ছড়িয়েছে। সেই তালিকায় নাম রয়েছে – মুরলীমনোহর যোশি, সুষমা স্বরাজ, সুমিত্রা মহাজন, কলরাজ মিশ্র, বন্দারু দত্তাত্রেয়, ভগত্‍ সিং কোশ্যারি, কারিয়া মুন্ডা, বিজয়া চক্রবর্তীদের মত নেতা-নেত্রীদের। ইতিমধ্যেই প্রায় সব ক’টি রাজ্যের রাজ্যপালকে সঙ্গে দিল্লিতে বৈঠক করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। আর তাই রাজধানীর অলিন্দে জল্পনা, খুব বড় কোনো অঘটন না ঘটলে আগামী মাসেই বাংলার রাজ্যপালের দায়িত্ব কোনও ‘কড়া’ হাতে দিতে চলেছে কেন্দ্র সরকার।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!