এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় কি ২০১৬ এর পুনরাবৃত্তি? বাড়ছে জল্পনা

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় কি ২০১৬ এর পুনরাবৃত্তি? বাড়ছে জল্পনা

রক্তক্ষরন হতে হতে বর্তমানে রাজ্যে অস্তিত্ব বিপন্ন বামেদের – বলেই ধারণা রাজনৈতিক মহলের। আর তাই, আগামী লোকসভায় নিজেদের শক্তিকে তুলে ধরতে এই রাজ্যে ২০১৬-এর বিধানসভা নির্বাচনের মতোই আবারো কংগ্রেসের সাথেই হাত ধরার পক্ষে ছিলেন আলিমুদ্দিনের নেতারা। কিন্তু দলের শীর্ষস্তরের বাধায় তা হয়ে ওঠেনি। রাজ্যে একদিকে শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেস এবং অপরদিকে বিরোধীদল হিসাবে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসা বিজেপিকে সরাতে তাদের একার শক্তি যে কখনই কাজ দেবে না তা ভালোই জানেন এই রাজ্যের বাম নেতারা।

আর তাইতো বিগত ২০১৬-এর বিধানসভা নির্বাচনের কংগ্রেসের সাথে জোট মডেলকে হাতিয়ার করে এবার এই রাজ্যের লোকসভায় লড়তে চাইছে বামেরা। সূত্রের খবর, পুজোর আগে দুদিন ব্যাপী সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে এহেন কথাই উঠে এসেছে নেতাদের মুখে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিজেপি মোকাবিলায় সিপিএমের হায়দরাবাদ পার্টি কংগ্রেসেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল যে ধর্মনেরপেক্ষ শক্তি হিসাবে কংগ্রেসের হাত ধরা যেতেই পারে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না – তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

কিন্তু রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ সহ পাঁচ রাজ্যের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে আসন সমঝোতা নিয়ে কংগ্রেস কড়াকড়ি করলে এখনই জোটের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে চাইছে না সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটি। আর কেন্দ্রীয় কমিটি এহেন শঙ্কার মধ্যে পড়লেও বাংলার নেতারা যে সেই কংগ্রেসের সাথেই জোট করতে আগ্রহী সম্প্রতি রাজ্য কমিটির বৈঠকে সেই কথাই শোনা গেছে সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্রের গলায়। তবে, রাজ্য-রাজনীতিকে চমকে দিয়ে সিপিএমের সঙ্গে কংগ্রেসের মূল কারিগর ছিলেন অধীর চৌধুরী – যিনি বর্তমানে ক্ষমতার ভরকেন্দ্রের বাইরে।

অধীর চৌধুরীর স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন সোমেন মিত্র – যিনি একসময় তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ থাকলেও, তাঁর সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পর্ক খুব একটা সুমধুর নয়। তবে, কেন্দ্র থেকে বিজেপি সরকারকে সরাতে রাহুল গান্ধী বা সোনিয়া গান্ধী তৃণমূল-নেত্রীর উপরেই বেশি ভরসা করতে চাইবেন। সেক্ষেত্রে, হাইকম্যান্ডের নির্দেশ এড়িয়ে সোমেন মিত্ররা কি সিপিএমের সঙ্গেই জোটের পথে হাঁটবেন নাকি তৃণমূলের হাত ধরবেন সেটাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন। এখন এই পরিস্থিতিতে রাজ্যে তৃনমূল এবং বিজেপিকে আটকাতে আগামী লোকসভা ভোটে হাত শিবিরের হাত ধরা নিয়ে সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটি ঠিক কী বার্তা দেয় রাজ্য নেতাদের সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!