এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > পঞ্চায়েত ভোটের আগে শাসকশিবিরের কারা কারা বিজেপির টার্গেটে?

পঞ্চায়েত ভোটের আগে শাসকশিবিরের কারা কারা বিজেপির টার্গেটে?

কিছুদিন আগেই বিজেপিকে বড়সড় ধাক্কা দিয়ে তাদের বুদ্ধিজীবী সেলের আহ্বায়ক দীপতাংশু চৌধুরীকে নিজেদের দলে নেয় রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। সেই শূন্যস্থান অবশেষে পূরণ করে ফেলল রাজ্য বিজেপি। দীপতাংশুবাবুর জায়গায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ শিক্ষাবিদ পঙ্কজ রায়কে বিজেপির বুদ্ধিজীবী সেলের আহ্বায়ক হিসাবে ঘোষণা করেন। আর নতুন দায়িত্ত্ব নিয়ে পঙ্কজবাবু জানান, রাজ্যের বুদ্ধিজীবী মহলের একটা বড় অংশ এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে নেই। তাঁদেরকে নিজেদের দিকে আনতে হবে, নতুবা তৃণমূলের বিরুদ্ধে অন্তত পথে নামাতে হবে। এটাই হবে তৃণমূলকে পাল্টা ধাক্কা দেওয়া। আর তাঁর এই ঘোষণার পরেই রাজ্য-রাজনীতিতে প্রবল জল্পনা তাহলে শাসকশিবিরের ঠিক কারা এখন বিজেপির নজরে? কাদের কাছে টানতে চাইছে বিজেপি?

সূত্রের খবর, তৃণমূলের পথেই হাঁটতে চলেছে রাজ্য বিজেপি। ২০১১ তে ৩৪ বছরের বাম শাসনের পরিবর্তন ঘটাতে একঝাঁক বুদ্ধিজীবী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থনে সরব হয়েছিলেন, পথে নেমেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে বিভিন্ন ইস্যুতে তাঁদের একটা বড় অংশের সঙ্গে শাসকদলের বেশ কিছুটা দূরত্ত্ব তৈরি হয়ে গেছে। বিভিন্ন ইস্যুতে তাঁরা বারবার সরব হচ্ছেন শাসকদলের বিরুদ্ধে এবং স্পষ্ট জানাচ্ছেন যে পরিবর্তন তাঁরা চেয়েছিলেন তা বাস্তবে হয় নি। বুদ্ধিজীবী শ্রেণির সেইসব ‘একদা তৃণমূলপন্থী’ মানুষদেরই এবার টার্গেট করেছে বিজেপি, পঞ্চায়েতের আগে রাজ্যে প্রকৃত পরিবর্তনের আওয়াজ তুলে তাঁদের নিজেদের দিকে ভিড়াতে চাইছেন মুকুল রায়-দিলীপ ঘোষরা। এঁদের যদি সরাসরি গেরুয়া শিবিরে যোগদিতে আপত্তি থাকে, তাহলে ঘুরপথে কোনো অরাজনৈতিক মঞ্চের মাধ্যমে এঁদের কাছে টানা হতে পারে বলে সূত্রের খবর। তবে এই নিয়ে এখনই তাড়াহুড়ো করতে চাইছে না বিজেপি শিবির, ইতিমধ্যেই তৃণমূলে মোহভঙ্গ হওয়া বুদ্ধিজীবীদের একটা তালিকা তৈরি করে ফেলেছে বিজেপি। এঁদের যদি ঞ্চায়েত ভোটের আগে যদি নিজেদের দিকে আনা না যায়, তাহলে লোকসভা ভোটের দিকে নজর রেখে তার আগেই আনার ব্যবস্থা করা হবে। মোটের উপর পশ্চিমবঙ্গে শাসকদলকে ধাক্কা দিতে শিল্প-সংস্কৃতি ও ত্রীড়া জগতের ব্যক্তিদের আবারো পরিবর্তনপন্থী করে ফেলাটাই এখন গেরুয়া শিবিরের মূল লক্ষ্য।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!