এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > লোকসভা ২০১৯ – কোন কোন আসনে নতুন প্রার্থী করার সম্ভাবনা তৃণমূল কংগ্রেসের? শেষ পর্ব

লোকসভা ২০১৯ – কোন কোন আসনে নতুন প্রার্থী করার সম্ভাবনা তৃণমূল কংগ্রেসের? শেষ পর্ব

লোকসভা ভোটের ঢাকে কাঠি পরে গেল। রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং জানিয়ে রেখেছেন এবারে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই হয়ে যেতে পারে লোকসভা নির্বাচন, ফলে এখন থেকেই তিনি দলকে পুরো প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে বলেছেন। এমনিতে গতবার রাজ্যের ৪২ টি আসনের মধ্যে ৩৪ টিতেই জিতেছিল ঘাসফুল শিবির, আর সাধারণত জয়ী প্রার্থীদের দলনেত্রী পুনরায় টিকিট দিয়ে থাকেন। তাই অনেকেই নিশ্চিন্ত ছিলেন নিজেদের টিকিট নিয়ে, কিন্তু রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন এবার বহু আসনেই পুরোনো সাংসদরা বা প্রার্থীরা টিকিট নাও পেতে পারেন। বা শেষপর্যন্ত টিকিট পেলেও সেই সকল আসনের টিকিটের দাবিদার অনেকেই, ফলে পুরোনো সাংসদ বা প্রার্থী বলেই যে নিশ্চিন্ত তা কিন্তু নয়। যদিও তৃণমূল কংগ্রেসে টিকিট পাওয়া নিয়ে শেষ কথা বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সুতরাং লোকসভা নির্বাচন ঘোষণা হলে শেষপর্যন্ত তিনিই সিদ্ধান্ত নেবেন। তবুও একনজরে দেখে নেওয়া যাক কোন কোন লোকসভা আসন নিয়ে গুঞ্জন উঠছে, আজ তৃতীয় ও শেষ পর্ব –

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

১৯. আরামবাগ – এতদিনের বামফ্রন্টের অনিল বসুর মিথ ভেঙে তৃণমূল নেত্রী গতবার প্রার্থী করেন রাজনীতির ময়দানে আনকোরা নবীন মুখ অপরূপা পোদ্দার আফরিন আলিকে। কিন্তু তাঁর নাম জড়ায় নারদ কাণ্ডে, অন্যদিকে দলীয় কর্মীদের বা সাধারণ মানুষের প্রতি তাঁর আচরণ নিয়ে প্রকাশ্যেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন তৃণমূল নেত্রী। ফলে সব মিলিয়ে দ্বিতীয়বার টিকিট পাওয়া নিয়ে খুব বেশি নিশ্চিন্ত থাকতে পারছেন না তৃণমূল সাংসদ।

২০. ঘাটাল – গতবার লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করতে গিয়ে প্রথম যে নামটি তৃণমূল নেত্রী তালিকা থেকে বলেছিলেন তা হল ঘাটালের দীপক অধিকারী তথা বাংলা সিনেমার বর্তমান হার্টথ্রব দেব। কিন্তু শোনা যায় তিনি নিজে রাজনীতির ময়দানে নামতে খুব একটা আগ্রহী ছিলেন না, শুধুমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুরোধ ফেলতে না পেরে শেষপর্যন্ত নির্বাচনের ময়দানে আসেন। তাই দ্বিতীয়বার তিনি নিজেই দাঁড়াতে চাইবেন কিনা তা নিয়ে অনেকেরই সন্দেহ আছে। অন্যদিকে কংগ্রেস থেকে আগত এক বিধায়ক, যিনি নিজে আবার বর্তমানে রাজ্যসভার সাংসদ চাইছেন এই কেন্দ্র থেকে নিজের পুত্রকে টিকিট দেওয়াতে, ফলে এই কেন্দ্রে নতুন মুখ দেখা যেতেই পারে।

২১. ঝাড়গ্রাম – গতবারের এখানে অরাজনৈতিক মুখ ডাঃ উমা সরেনকে প্রার্থী করেন তৃণমূল নেত্রী। কিন্তু তাঁর কাজে যে তিনি একেবারেই খুশি নন তা গত কোর কমিটির বৈঠকে একেবারে নাম ধরে বলে দিয়েছেন তিনি। এমনকি উমাদেবীর কিছু মন্তব্যে ক্ষোভ তৈরী হয়েছে স্থানীয় আদিবাসীদের মধ্যে বলেও দলীয় সূত্রে খবর। তার থেকেও বড় কথা এই জেলায় বিজেপির উত্থান – সবমিলিয়ে বর্তমান সাংসদ যদি দ্বিতীয়বার টিকিট পান সেটাই হবে মহাশ্চর্যের।

২২. মেদিনীপুর – সিনেমা জগতের অতীত দিনের তুমুল জনপ্রিয় নায়িকা সন্ধ্যা রায়কে এখানে প্রার্থী করা মাস্টারস্ট্রোক ছিল তৃণমূল নেত্রীর। সন্ধ্যাদেবী কাজও করেছেন ভালো, কিন্তু অরাজনৈতিক জায়গা থেকে আশায় এখনো সংগঠনের সঙ্গে তাঁর যথেষ্ট দূরত্ত্ব বলে শোনা যায় তৃণমূলের অন্দরেই। অন্যদিকে ভারতী ঘোষ এই জেলার এসপি পদ থেকে সড়ে যাওয়ার পর গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব আরো বেড়েছে বলেই স্থানীয় মহলে শোনা যাচ্ছে। অন্যদিকে, এই রাজ্যের ‘সম্ভাবনাময়’ আসনগুলির তালিকায় এই আসনকে বিজেপি সবার উপরে রাখছে, তাই স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের ধারণা এই আসনে এবার নতুন মুখ দেখতে পাওয়া প্রায় অবশ্যম্ভাবী।

২৩. পুরুলিয়া – এই আসনে সাংসদ মৃগাঙ্ক মাহাতোর আবার টিকিট পাওয়ার পথে সবথেকে বড় বাধা বিজেপি। জেলাজুড়ে বিজেপির উত্থান এবং বেশ কিছু তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে স্বজনপোষণ ও দুর্নীতির অভিযোগে স্থানীয়দের ক্ষোভ নতুন করে ভাবাচ্ছে শাসকদলকে। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে এখানে হেরে গেছেন স্বয়ং সভাধিপতির মত হেভিওয়েট নেতা, ফলে এই ‘ড্যামেজ’ আসনটি পুনরুদ্ধারে কোনো চমক জাগানো নাম থাকতেই পারে।

২৪. বাঁকুড়া – গতবার বামফ্রন্টের হেভিওয়েট প্রার্থী বাসুদেব আচারিয়ার বিরুদ্ধে মুনমুন সেনকে প্রার্থী করে চমকে দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী। প্রবল তৃণমূল হাওয়ায় ইন্দ্রপতন হয়, হেরে যান এই কেন্দ্রের টানা ৯ বারের সাংসদ বাসুদেববাবু। কিন্তু, মুনমুন সেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ – সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ তো দৃঢ় করেনই নি, এমনকি যথেষ্ট সময় দেন নি এলাকাতেও। যখন বাঁকুড়ায় বন্যা হয়েছিল, তিনি পরিদর্শনে আসার বদলে দিল্লিতে ‘সংসদ চলছে’ যুক্তিতে বসেছিলেন। আর এইসবের আঁচ কিছুটা স্পষ্ট হয়েছে গত বিধানসভা নির্বাচনেই। ফলত, এখানে নতুন মুখ আসা অনিবার্য বলেই মনে করছে তৃণমূলের অন্দরমহল।

২৫. বর্ধমান-দুর্গাপুর – একদিকে বামফ্রন্ট-কংগ্রেস জোটের চাপ, অন্যদিকে গেরুয়া শিবিরের ক্রমশ উত্থান – সব মিলিয়ে রীতিমত কঠিন লড়াই হতে চলেছে শাসকদলের কাছে। সেই কঠিন লড়াইয়ে পুরনো সাংসদ মমতাজ সঙ্ঘমিত্রার উপরই ভরসা রাখেন তৃণমূল নেত্রী নাকি দেন কোনো ‘চমক’ তাই এখন লাখ টাকার প্রশ্ন তৃণমূলের অন্দরে। গত পুরভোটে বিরোধীরা একটাও আসন পায় নি দুর্গাপুরে, কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে অন্য ‘লড়াই’ হবে জানাচ্ছেন স্থানীয় গেরুয়া নেতা-কর্মীরা। তার উপরে শোনা যাচ্ছে বিজেপি এখানে প্রার্থী করতে পারেন দাপুটে এক অবাঙালি মহিলা আইনজীবীকে, এই অঞ্চলের অবাঙালি ভোটার কথা মাথায় রেখে যা চাপ বাড়াচ্ছে শাসকদলের। তার উপরে আছে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব – সব মিলিয়ে কোনো বহিরাগত ‘চমককে’ প্রার্থী করে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া হতে পারে বলে ধারণা স্থানীয় নেতৃত্ত্বের।

২৬. আসানসোল – গতবারের সব থেকে চমক জাগানো আসন। সবাইকে চমকে দিয়ে হেভিওয়েট তৃণমূল প্রার্থী দোলা সেনকে হারিয়ে দিয়ে কেন্দ্রে মন্ত্রীত্ত্ব করছেন বাবুল সুপ্রিয়। দোলাদেবী আপাতত রাজ্যসভার সাংসদ। অন্যদিকে, রামনবমীকে ঘিরে বেশ কিছু ঘটনা এখানে ভোটের মেরুকরণ করতে বাধ্য বলে ধারণা রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। আর তাই কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে হারাতে কোনো হেভিওয়েট নতুন মুখই আসতে চলেছেন। তবে এখানে টিকিট পাওয়ার জন্য এক মন্ত্রীর ভাই ও স্থানীয় এক অবাঙালি নেতার লড়াই তুঙ্গে – শিকে শেষ পর্যন্ত কার ভাগ্যে ছেঁড়ে সেটাই দেখার।

২৭. বোলপুর – গতবারেই সাংসদ হওয়া অধ্যাপক অনুপম হাজরার সঙ্গে বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি তথা এখানকার সর্বেসর্বা অনুব্রত মন্ডলের ‘সুমধুর’ সম্পর্কের কথা বর্তমানে ‘ওপেন-সিক্রেট’, যদিও অনুপমবাবুর সঙ্গে দলনেত্রীর সম্পর্ক বেশ ভালো। কিন্তু অনুব্রতবাবু নিজে কতখানি মেনে নেবেন সাংসদকে তার উপর নির্ভর করছে তাঁর দ্বিতীয়বার টিকিট পাওয়া।

২৮. বীরভূম – গত দুবারের সাংসদ শতাব্দী রায়, কিন্তু তাঁর সঙ্গেও অনুব্রত মন্ডলের সম্পর্ক বেশ ‘শীতল’ বলেই গুঞ্জন। এমনকি অনুব্রতবাবুর ঘনিষ্ঠ নেতাদের দাবি সাংসদকে এলাকায় দেখা যায় না। অন্যদিকে দুর্জনেরা বলে থাকেন সাংসদ এলাকার বিভিন্ন বোর্ডের মাথায় কে বসবেন তা নিয়েই ঠান্ডা লড়াই সাংসদ ও জেলা সভাপতির। বিধায়ক-সাংসদ যেই হোক বীরভূম জেলায় শেষ কথা বলবেন জেলা সভাপতিই – এই ফর্মুলা মেনে নিয়ে তৃতীয়বারের টিকিট পান শতাব্দীদেবী, নাকি নিজের পছন্দের আরেক প্রার্থীকে টিকিট দেওয়ান অনুব্রতবাবু সেটাই এখন এই আসনের সব থেকে বড় প্রশ্ন।

আরও পড়ুন: লোকসভা ২০১৯ – কোন কোন আসনে নতুন প্রার্থী করার সম্ভাবনা তৃণমূল কংগ্রেসের? দ্বিতীয় পর্ব

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!