এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > একনজরে পঞ্চায়েতে ১০০% সাফল্য পেতে কোন জেলার দায়িত্ত্বে মুখ্যমন্ত্রীর কোন সেনাপতি

একনজরে পঞ্চায়েতে ১০০% সাফল্য পেতে কোন জেলার দায়িত্ত্বে মুখ্যমন্ত্রীর কোন সেনাপতি

পঞ্চায়েত নির্বাচনের ঢাকে কাঠি পড়তেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, পঞ্চায়েত ভোটটা আপনারা করুন, লোকসভা ভোটটা আমি করব। সেদিনই ঠিক হয়ে গিয়েছিল পঞ্চায়েতের প্রচারে থাকছেন না মা-মাটি-মানুষের ভরসা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর যতই আইনি জটে জটিল হয়ে থাক পঞ্চায়েতের ভাগ্য, প্রচারে কোনো খামতি না রাখতে বিভিন্ন জেলার জন্য নিজের সেনাপতিদের বেছে নিলেন তৃণমূল নেত্রী। এমনিতেই মনোনয়ন পর্বে রাজ্যের এক-তৃতীয়াংশ আসন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতাতে নিজেদের ঝুলিতে ভরে ফেলেছে শাসকদল, কিন্তু বাকি নির্বাচন হতে চলা দুই-তৃতীয়াংশ আসনেও যে কোনো রকম খামতি রাখতে চাইছেন না তা তাঁর বেছে নেওয়া সেনাপতিদের নামেই স্পষ্ট। তৃণমূল সূত্রের খবর, পঞ্চায়েতের প্রচারে এবার মূল দায়িত্ত্ব পাচ্ছেন –

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

১. সুব্রত মুখোপাধ্যায় – মেদিনীপুর ও বাঁকুড়া জেলা
২. ফিরহাদ হাকিম – পুরুলিয়া, হাওড়া ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলা
৩. শশী পাঁজা – মালদহ ও দুই দিনাজপুর জেলা
৪. অরূপ বিশ্বাস – হুগলি ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলা
৫. জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক – উত্তর ২৪ পরগনা জেলা

সূত্রের খবর উত্তর ২৪ পরগনা জেলাকে এবার বিশেষ গুরুত্ত্ব দেওয়া হচ্ছে শাসকদলের তরফে। এছাড়াও পঞ্চায়েতের সার্বিক দায়িত্ত্ব পাচ্ছেন দলের দুই তরুণ তুর্কি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও শুভেন্দু অধিকারী। তাছাড়া দলের সমস্ত বিধায়ক, সাংসদ ও মন্ত্রীকে নিজের নিজের এলাকায় মাটি কামড়ে পরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দলনেত্রীর কড়া নির্দেশ, মানুষের সঙ্গে আরও জনসংযোগ বাড়াতে হবে, যাতে কোনওভাবেই মানুষের কাছে ভুল বার্তা না যায়। রাজ্যের উন্নয়নের কথা, জনদরদী প্রকল্পের কথা মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে। আর শুধু জনসভা নয়, মানুষের দোরে দোরে যেতে হবে দলের হেভিওয়েট নেতাদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!