এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ডিও/বিএলও ডিউটির হাত থেকে ‘মুক্তি’ পেতে আজই নিন এই পদক্ষেপ, জানাল শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ

ডিও/বিএলও ডিউটির হাত থেকে ‘মুক্তি’ পেতে আজই নিন এই পদক্ষেপ, জানাল শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ

গতকালই আমরা আমাদের প্রকাশিত খবরে আপনাদের জানাই যে, ডিও/বিএলও ডিউটির ‘যন্ত্রণার’ হাত থেকে প্রাথমিক শিক্ষকদের ‘রেহাই’ দেওয়াতে শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চ নামে একটি সংগঠন এবার বড়সড় পদক্ষেপ নিতে চলেছে। গতকালই সংগঠনের তরফে মইদুল ইসলাম, শাশ্বত ঘোষ একঝাঁক শীর্ষনেতা এই নিয়ে প্রখ্যাত আইনজীবী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্যের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। আলোচনায় বিকাশবাবু রীতিমত আইনের ‘রেফারেন্স’ দিয়ে দেখিয়ে দেন – যে ডিও/বিএলও ডিউটি করতে প্রাথমিক শিক্ষকদের একপ্রকার ‘বাধ্য’ করা হয়, তা মোটেই আইনসম্মত নয়।

বিকাশবাবুর সঙ্গে আলোচনার শেষে সংগঠনের অন্যতম শীর্ষনেতা মইদুলবাবু জানিয়ে দেন – ‘রাইট টু এডুকেশনাল অ্যাক্ট ২০০৯ এর ২৭ এর সি’ ধারা অনুযায়ী, শিক্ষকরা শিক্ষা বহির্ভূত অন্য কোন কাজ করতে পারেন না। এছাড়া সুপ্রিম কোর্টের ‘সেন্ট মেরি’ জাজমেন্ট অনুযায়ী, নির্বাচনের কাজে প্রথমে ব্যাঙ্ক ও সরকারি কর্মীদের নিযুক্ত করা হয়। তারপরেও যদি প্রয়োজনীয় কর্মী অপ্রতুল থাকে তাহলে ‘বিশেষ অবস্থায়’ শিক্ষকদের এই কাজে নিযুক্ত করা যেতে পারে। কিন্তু, সেক্ষত্রে কিন্তু যে দিনে বা দিনগুলিতে ওই নির্বাচনী কাজ শিক্ষকদের করতে হবে তা ‘ঘোষিত ছুটি’ হতে হবে। কিন্তু ১ লা সেপ্টেম্বর থেকে ৩১ শে অক্টোবর পর্যন্ত – বর্তমানে যে ডিও/বিএলও ডিউটি প্রাথমিক শিক্ষকদের করতে হচ্ছে – তা উপরোক্ত কোনো নিয়ম মেনেই হচ্ছে না। এছাড়াও, চাকরির নিয়ম অনুযায়ী এই ডিউটি করতে প্রাথমিক শিক্ষকরা এই ডিও ডিউটি করতে কোনোমতেই বাধ্য নন।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

আর তাই, শিক্ষক ঐক্য মুক্ত মঞ্চের তরফ থেকে একটি লিগ্যাল ড্রাফট বানানো হয়েছে। সংগঠনটির হোয়াটস্যাপ গ্রূপ ও ফেসবুক পেজে সেটি আপনারা পেয়ে যাবেন। এছাড়াও, এখানে ক্লিক করলেও আপনি ড্রাফটটি ডাউনলোড করতে পারবেন। সংগঠেনর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ডট ডট দেওয়া জায়গায় নিজেরা তথ্য দিয়ে পূরণ করে ফেলুন। আর তারপর ‘স্পিডপোস্ট’ করে নিজের নিজের সংশ্লিষ্ট বিডিওকে তা আজকের মধ্যেই (৬ ই সেপ্টেম্বর ২০১৮) পাঠিয়ে দিন। তবে, তার আগে ঐ চিঠিটা ভর্তি করার পর একটা জেরক্স করে রাখবেন এবং পোস্ট অফিস থেকে স্পিডপোস্টের যে কনসাইনমেন্ট নম্বর দেবে ওটাও আপনার কাছে রাখবেন, পরে তা দরকার পড়তে পারে।

সংগঠনের তরফে আরো জানানো হয়েছে, যদি না এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিডিওদের কাছ থেকে ওই ড্রাফট পাঠানোর ৭২ ঘন্টার মধ্যে কোনো সুরাহা পাওয়া না যায় তাহলে বিকাশবাবুর সুযোগ্য সহকারী ফিরদৌস শামিম (তিনিও ইতিমধ্যেই বেশ কিছু হাই প্রোফাইল কেস লড়ে খবরের শিরোনামে এবং শিক্ষাগত মামলার ব্যাপারে অন্যতম বিশেষজ্ঞ আইনজীবী) এই ব্যাপারটি নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করতে চলেছেন আগামী সোমবার, ১০ ই সেপ্টেম্বর। এমনকি, ইতিমধ্যেই সেই মামলার প্রস্তুতি হিসাবে ১২ জন শিক্ষক একটি ওকালতনামায় স্বাক্ষর করেছেন এবং ফিরদৌস সাহেব সেই মামলার প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন।

Top
error: Content is protected !!