এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে ‘বদলে’ গেছেন মুকুল রায়?

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে ‘বদলে’ গেছেন মুকুল রায়?

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে বদলে গেছেন মুকুল রায়? এমনটাই গুঞ্জরিত হচ্ছে রাজধানীর আকাশে-বাতাসে। পঞ্চ ব্যঞ্জন সহযোগে লোক খাওয়াতে বরাবরই ভালোবাসেন মুকুল রায়। মাছ মাংস মিলিয়ে নিদেনপক্ষে দু’টি আমিষ পদ তো বাঁধা থাকত অতিথিদের জন্য। রীতিমতো ফরমায়েশ দিয়ে মাছ আনিয়ে কিংবা নির্দিষ্ট দোকান থেকে আমিষ খাবার এনে লোক খাওয়ানো বরাবরই পছন্দ ছিল তাঁর। আর সেই মুকুল রায় এখন আমিষ ছেড়ে নিরামিশে! বিজেপিতে যোগদানের পর পর থেকে আজ পর্যন্ত তাঁর দিল্লির বাড়িতে দেওয়া দু-দুটি মধ্যাহ্নভোজে ব্রাত্য রইল আমিষ খানা।পরিবর্তে টেবিল জুড়ে বাহার ছড়ালো একাধিক নিরামিষ পদ। ফলে স্বভাবতই জল্পনা ছড়িয়েছে যে গোটাটাই কি কাকতলীয়? নাকি গেরুয়া শিবিরে যোগদানের পর থেকে অন্তত প্রকাশ্যে সাত্ত্বিক হয়েছেন মুকুলবাবু! বিশেষ করে যখন আমিষ খাওয়া নিয়ে আপত্তি রয়েছে গেরুয়া শিবিরের একাংশের!
অবশ্য পরিবর্তনের এই ছবি গোটা বাড়ির চৌহদ্দিতেই। দিল্লিতে মুকুলের একেবারে পাশেই বাড়ি তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও ডেরেক ও’ব্রায়েনের। তাই হয়তো বিজেপিতে যোগদানের পরেই বাড়ির সীমানা ঢেকে দেওয়া হয়েছিল দলীয় পতাকা ও নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের কাট আউটে। গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশে বিজেপির জয় উপলক্ষে ভোজের আসরে অতিথিদের জন্যে আনা চেয়ারের কভারও আনা হয়েছিল একেবারে বেছে বেছে, দলীয় প্রতীক গেরুয়া রংকে মাথায় রেখেই। বাড়ির অঙ্গসজ্জার মতোই খাদ্যাভাসের এই পরিবর্তন পরিকল্পিত কিনা তা নিয়ে মুকুল শিবির নিশ্চুপ। তবে গুজরাত জয়ের পরে দেওয়া ভোজে মেনু অবশ্য পুরোপুরি বাঙালি। মেনুতে ছিল ভাত, মুগের ডাল, পোলাও, পনির, আলু-ফুলকপির তরকারি ও ধোঁকার ডালনা। শেষ পাতে চাটনি, পাঁপড়ের সঙ্গে লাড্ডু ও মিষ্টি দই। মুকুলবাবুর দেওয়া মধ্যাহ্নভোজে হাজির হয়েছিলেন বাংলার স্বপন দাশগুপ্ত এবং রুপা গঙ্গোপাধ্যায়ও।
অন্যদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির জয়কে – ‘নৈতিক পরাজয়’ বলে কটাক্ষ করেছিলেন, বলেছিলেন ২০১৯ সালের ভোটের আগে ‘বিড়ালের গলায় ঘন্টা বাঁধার’ কাজ গুজরাতের মানুষ করে দেখিয়েছেন। জবাবে মুকুলবাবু পাল্টা দেন, এই জয় দেখে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভয় পেয়ে গিয়েছেন। কারণ পশ্চিমবঙ্গে এবার পরিবর্তনের পালা। আগামী লোকসভাতেও বিজেপি ক্ষমতায় ফিরতে চলেছে। সম্ভবত এই বার্তাই দিতে চেয়েছেন তৃনমূল নেত্রী!

Top
error: Content is protected !!