এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > রাজ্যসভায় তাত্‍ক্ষণিক তিন তালাক বিল – কি হল শেষ পর্যন্ত? জানুন বিস্তারিত

রাজ্যসভায় তাত্‍ক্ষণিক তিন তালাক বিল – কি হল শেষ পর্যন্ত? জানুন বিস্তারিত

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির স্বপ্নের তাত্‍ক্ষণিক তিল তালাক বিল লোকসভায় পাশ হওয়ার পর আজ পেশ হয় রাজ্যসভায়। আর বিল পেশ হতেই তার সংশোধনীর দাবিতে সরব হয় বিরোধীরা। আর বিরোধীদের তুমুল শোরগোলের জেরে – সুষ্ঠুভাবে আলোচনাই হল না এই বিল নিয়ে। যার জেরে আগামী বুধবার পর্যন্ত অধিবেশন মুলতুবি হয়ে যায়।

গত ২৭ শে ডিসেম্বর এই বিল লোকসভায় পেশ হয়। তখন কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস সহ অন্যান্য বিরোধীরা এই বিলের তুমুল বিরোধিতা করে। কিন্তু, নিজেদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার জেরে শেষপর্যন্ত এই বিল লোকসভায় পাশ করিয়ে নেয় কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন বিজেপি। তখনই, মনে করা হচ্ছিল এই বিল রাজ্যসভায় গেলে – নিজেদের সংখ্যাগরিষ্ঠতার সুযোগ নিয়ে তীব্র বিরোধিতার পথে হাঁটবে বিরোধী দলগুলি।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সেই আশঙ্কাকেই সত্যি করে – সকাল থেকেই এই বিলের তীব্র বিরোধিতা করতে থাকে বিরোধী দলগুলি। কংগ্রেস সহ অন্যান্য বিরোধীদের দাবি, বিলটি জয়েন্ট সিলেক্ট কমিটিতে পাঠানো হোক। ফলে, অধিবেশন দুপুর ২ টো পর্যন্ত মুলতুবি হয়ে যায়। পরে অধিবেশন শুরু হলে ফের শুরু হয় গণ্ডগোল, আর তার জেরেই আগামী ২ রা জানুয়ারী পর্যন্ত অধিবেশন মুলতুবি রাখার ঘোষণা হয়।

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে জানানো হয়ছে, গত বছরই সুপ্রিম কোর্ট তাত্‍ক্ষণিক তিন তালাক প্রথাকে অসাংবিধানিক ও বেআইনি বলেছিল। বিলটি কোনও সম্প্রদায়, ধর্ম বা বিশ্বাসের বিরুদ্ধে নয়। এই বিলটি মহিলাদের অধিকার এবং বিচার পাওয়ার জন্য নিয়ে আসা হয়েছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বিজয় গোয়েল বলেন, মুসলিম মা-বোনেদের ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার এটাই উপযুক্ত সময়। এই অমানবিক তিন তালাক প্রথার জন্য তাঁদের অনেক কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে। কিন্তু, এই বিল এনে ধর্মীয় ব্যাপারে নাক গলিয়েছে সরকার – এই দাবিতে শোরগোল তুলে বিলটিকে আটকানোর চেষ্টায় কংগ্রেস, তৃণমূল কংগ্রেস সহ সম্মিলিত বিরোধীরা।

আপনার মতামত জানান -
Top