এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এবার জিএসটিতে ৪৫ হাজার কোটি টাকার ‘ফ্রডের’ বিস্ফোরক অভিযোগ নিয়ে এলেন অর্থমন্ত্রী

এবার জিএসটিতে ৪৫ হাজার কোটি টাকার ‘ফ্রডের’ বিস্ফোরক অভিযোগ নিয়ে এলেন অর্থমন্ত্রী

দেশে বর্তমানে প্রবল আর্থিক সঙ্কট চলছে বলে মাঝেমধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে দেখা গেছে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী সাথে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠকের পর কেন্দ্রের সাথে রাজ্যের দূরত্ব অনেকটাই ঘুচবে বলে রাজনৈতিক মহলের একাংশ মনে করেছিল। কিন্তু বরফ যে তাতেও বিন্দুমাত্র গলেনি, তা ফের দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের বক্তব্যেই স্পষ্ট হয়ে গেল।

সূত্রের খবর, দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করলেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। রাজ্যের অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে উঠে এসেছে যে প্রভূত মন্দার মধ্যেও এই রাজ্য কীভাবে গোটা দেশকে দিশা দেখাতে শুরু করেছে। সূত্রের খবর, গত বৃহস্পতিবার শহরে এক বণিকসভার উদ্যোগে ‘ইনভেস্ট বেঙ্গল কনক্লেভ’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী। আর এরপরই সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় তিনি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ আনার পাশাপাশি, বাংলা কিভাবে অর্থনৈতিক ভাবে এগিয়ে চলেছে তা তুলে ধরেন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র বলেন, “দেশের অর্থনীতি কালো মেঘে ঢেকে গিয়েছে, যা বেশ চিন্তার বিষয়। কর আদায় কমে গিয়েছে, বৃদ্ধির হার কমে গিয়েছে, বাড়ছে বেকারত্ব। নোট বাতিলের ফলে দেশের অসংগঠিত ক্ষেত্র খতম হয়ে গিয়েছে। জিএসটি চালুর সময়ে বলেছিলাম, এখনও ক্ষেত্র প্রস্তুত নয়। জিএসটিও লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছয়নি – জিএসটিতে ৪৫ হাজার কোটি টাকার ‘ফ্রড’ হয়েছে। আজ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে।” একইসঙ্গে দেশে গাড়ি বিক্রি কমে যাওয়ায় কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী যেভাবে অ্যাপ-নির্ভর লাক্সারি ট্যাক্সি সংস্থাগুলিকে দায়ী করেছেন, তার সঙ্গে একমত নন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র।

এদিন তিনি আরও বলেন, “এনিয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর গভীরভাবে চিন্তার অবকাশ রয়ে গিয়েছে। যদিও গোটা দেশে এমন অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে এই রাজ্য নতুন পথের দিশা দেখাচ্ছে।” পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, “রাজ্যের মূলধনী ব্যয় ১১ গুণ বেড়েছে। বৃদ্ধির হারে এ রাজ্য প্রথম স্থানে। পরিকল্পনা খাতে ব্যয়ও প্রায় পাঁচগুণ বেড়েছে।” এদিকে এদিনের সভায় রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র ছাড়াও বক্তব্য রাখেন রাজ্যের অতিরিক্ত মুখ্য সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অন্যান্যরা। রাজ্যের নানা প্রকল্প, কাজকর্মের কথা এই সভায় তুলে ধরেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!