এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > ‘জয় শ্রীরাম’ বলায় মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে গ্রেপ্তার ৭, উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি

‘জয় শ্রীরাম’ বলায় মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে গ্রেপ্তার ৭, উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি

বাংলায় বিজেপিকে লোকসভা নির্বাচনে ‘গোল্লা’ দিতে গিয়ে ‘গণতন্ত্রের থাপ্পড়’ খেয়ে তৃণমূল নেত্রীকে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখতে হয়েছে বিজেপি বাংলা থেকে দলীয় রেকর্ড সংখ্যক ১৮ জন সাংসদ নিয়ে দিল্লি গেছে। শুধু তাই নয়, সেই ‘গেরুয়া সুনামির’ দাপটে তাঁর দল তৃণমূল কংগ্রেস ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাবার শামিল হয়েছে। মাদার-যুব-ছাত্র সব সংগঠন থেকেই লাইন লাগিয়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানোর হিড়িক পরে গেছে।

সব মান-অভিমান ভুলে দলে এতদিন ব্রাত্য করে রাখা নেতাদের ফিরিয়ে খড়কুটোর মধ্যে আঁকড়ে ভেসে থাকতে চাইছে রাজ্যের শাসকদল। কিন্তু, জট দিন গড়াচ্ছে ততই যেন পায়ের তলার মাটি আরও আলগা হয়ে যাচ্ছে তৃণমূল নেত্রীর। আর তাই বোধহয়, কিছুতেই বাংলার বুকে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনিকে সহ্য করতে পারছেন না তিনি বলে ধারণা বিরোধীদের। নির্বাচনের মাঝেই একবার গেরুয়া শিবিরের সমর্থকদের ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি শুনে কনভয় থামিয়ে তেড়ে গিয়েছিলেন তিনি।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

‘জয় শ্রীরাম’ বলার অপরাধে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি, রীতিমত গ্রামে ঢুকে তান্ডব চালিয়েছিল তাঁর পুলিশ। কিন্তু, তখন নির্বাচন কমিশন এটা নিয়ে নড়েচড়ে বসতেই, কোনো ‘কেস’ না দিয়েই সেইসব বিজেপি সমর্থকদের চুপচাপ ছেড়ে বাধ্য হয়েছিল রাজ্য পুলিশ। কিন্তু, ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনিকে গলা টিপতে যাওয়ায় ‘গণতন্ত্রের থাপ্পড়ে’ টালমাটাল হয়ে গিয়েছিল মমতা ব্যানার্জির রাজ্যপাট তা ২৩ শে মে লোকসভার ফলাফল ঘোষণা হতেই স্পষ্ট হয়ে যায়। আর তারপর এই নিয়ে তাঁর রাগ আর ক্ষোভ আরও বেড়ে গেছে বহুগুন।

গতকাল ভাটপাড়া দিয়ে যারা সময়, মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় দেখেই একদল যুবক ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনিতে মুখর করে তোলেন এলাকা। ততক্ষনাৎ, গাড়ি থেকে নেমে রীতিমত উত্তেজিত হয়ে তেড়ে যান তিনি! বেশ কিছু ‘অশ্লীল শব্দও’ তাঁর মুখ নিঃসৃত হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। সেখানেই তিনি পুলিশকে নির্দেশ দেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আটক করতে! আর তারপরেই জগদ্দল থানার পুলিশ ‘জয় শ্রীরাম’ বলার ‘অপরাধে’ ৭ জন গেরুয়া সমর্থককে গ্রেপ্তার করে। তারমধ্যে দুজনের বিরুদ্ধে ‘চার্জ’ মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় আটকানোর – যদিও গোটা ভিডিওতে এরকম কিছু দেখা যায় নি! সবমিলিয়ে ‘জয় শ্রীরাম’ বলে গ্রেপ্তার হতে হওয়ায় রীতিমত শোরগোল পরে গেছে রাজ্য রাজনীতিতে!

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!