এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভোটে হারতেই কোদাল হাতে এলাকা সাফাইয়ে নেমে পড়েছেন তৃণমূল বিধায়ক-মন্ত্রী

ভোটে হারতেই কোদাল হাতে এলাকা সাফাইয়ে নেমে পড়েছেন তৃণমূল বিধায়ক-মন্ত্রী

ভারতবর্ষে গান্ধীজীর ভাবধারায় অনুপ্রাণিত হয়ে ‘স্বচ্ছ ভারত অভিযান’ প্রথম শুরু করেছিলেন বিজেপির নরেন্দ্র মোদি। এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অনুসরণ করেই রাজ্যের তৃণমূল বিধায়ক মন্ত্রীও একই পথের পথিক হলেন। এলাকা সাফাইয়ে নেমে পড়লেন তিনিও। কথা হচ্ছে তৃণমূল বিধায়ক মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরার প্রসঙ্গে। লোকসভা ভোটে তৃণমূলের হয়ে তিনি বিষ্ণুপুর থেকে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে আগেই তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়া সৌমিত্র খানের কাছে পরাজিত হন।

শারদ উৎসবের প্রাকমুহুর্তে ‘সুস্থ পরিবেশ গড়তে সাফাই অভিযান’ স্লোগান কে সঙ্গী করে এদিন স্থানীয় হেতিয়া বাজারকে জঞ্জালমুক্ত করার জন্য সাফাই অভিযানে নামলেন এলাকার বিধায়ক রাজ্যের মন্ত্রী অধ্যাপক শ্যামল সাঁতরা।

শ্যামল সাঁতরা এদিন বাঁকুড়ার জয়পুরের হেতিয়া প্রভাতী সংঘের উদ্যোগে সাফাই অভিযানে নামেন। যদিও এই ঘটনায় এলাকার মানুষ অবাক হননি। কারণ এলাকার মানুষের কাছে শ্যামল সাঁতরা অত্যন্ত জনপ্রিয় বলেই জানা গেছে। প্রশাসনিক স্তরে তিনি উচ্চপদে থাকলেও সাধারণ মানুষের ডাকে তিনি সবসময় তাদের পাশে থেকেছেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এলাকার ক্লাব প্রভাতী সংঘের একজন সাধারণ সদস্য হলেন অধ্যাপক শ্যামল সাঁতরা। তাই তিনি পুজোর আগে ক্লাবের সমস্ত পদাধিকারী ও সদস্যদের সঙ্গে এলাকা জঞ্জালমুক্ত করতে হাত লাগিয়েছেন। তিনি স্বয়ং কোদাল দিয়ে জঞ্জাল পরিষ্কার করেছেন, এমনকি সে জঞ্জাল ঠেলাতেও চাপিয়ে দিয়েছেন। ক্যামেরায় এমন ছবি ধরা পড়েছে বলে দাবি। যদিও প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এই ছবির সত্যতা যাচাই করে দেখেনি।

এই ঘটনায় রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, বিধানসভা ভোটের আগে পুজোর মরশুমকে কাজে লাগাতে চলেছে তৃণমূল। তাই এই নতুন অভিযান নিয়ে পথে নেমেছেন তৃণমূল বিধায়ক। অন্যদিকে, বিরোধী দল দাবি করেছে, তাঁদের দেখানো পথেই পথ হাঁটতে শুরু করেছে তৃণমূল। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে তৃণমূলের নিজস্ব ভাবধারা তলানীতে। তবে আগামী দিনের ভোটযুদ্ধে জিততে সামনের দিনগুলিকে কাজে লাগাতে রাজ্যের বিরোধী দল এবং শাসক দল প্রত্যেকেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে ভোট যুদ্ধের ফলে কি হবে, সেদিকে নজর রাখবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!