এখন পড়ছেন
হোম > চাকরি > চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর, ভোটের মুখে জল্পনা বাড়িয়ে 12 বছর হতে চলেছে রাজ্য সরকারের ক্লার্কশিপ পরীক্ষা

চাকরিপ্রার্থীদের জন্য সুখবর, ভোটের মুখে জল্পনা বাড়িয়ে 12 বছর হতে চলেছে রাজ্য সরকারের ক্লার্কশিপ পরীক্ষা

অবশেষে প্রায় 12 বছর পর রাজ্যে হতে চলেছে ক্লার্কশিপ পরীক্ষা। গত 2007 সালে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের পক্ষ থেকে রাজ্য সরকারের দপ্তর গুলিতে গ্রুপ সি পদমর্যাদার কর্মী নিয়োগের জন্য এই পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল। আর তার পর এবার চলতি বছরে ফের এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে চলেছে।

কিন্তু ঠিক কবে হবে এই পরীক্ষা? সূত্রের খবর, দেশে আর কদিনের মধ্যেই লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণা হয়ে যাবে। যা দেশগত আদর্শ আচরণবিধি লাভ করবে। আর তাই আগে থেকেই এই ব্যাপারে প্রস্তুতি সুরে রাখতে আগামী 25 শে মার্চ পর্যন্ত ডব্লিউ ডব্লিউ ডব্লিউ ডট পিএসসি ডব্লিউ বি অ্যাপ্লিকেশন ডট কম এই ওয়েবসাইটে আবেদন করতে পারবেন পরীক্ষার আবেদনকারীরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

তবে ঠিক কবে এই ব্যাপারে পরীক্ষা হবে তা নিয়ে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। জানা গেছে, মোট দুই পর্বে পরীক্ষা হবে। প্রথমে মাল্টিপল চয়েস ভিত্তিক দেড় ঘন্টা লিখিত পরীক্ষায় 100 নম্বরের, যার মধ্যে ইংরেজি 30, পাটিগণিতে 30 এবং জেনারেল স্টাডিস বিষয়ে 40 নম্বর বরাদ্দ থাকবে। আর এখানেই সফল হওয়া পরীক্ষার্থীদের দ্বিতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষায় ডেকে নেওয়া হবে। যেখানে এক ঘন্টার পরীক্ষায় ইংরেজিতে 50 আর মাতৃভাষা কেন্দ্রিক বিষয়ে 50 নম্বরের প্রশ্ন থাকবে।

এদিকে এই লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ বলে বাংলায় মিনিটে দশটি শব্দ এবং ইংরেজিতে কুড়িটি শব্দ টাইপ করার দক্ষতা যাচাই করা হবে পরীক্ষার্থীদের। আর তারপরই সেই দুটি লিখিত পরীক্ষায় পাওয়া পরীক্ষার্থীদের প্রাপ্ত নম্বর এবং টাইপ টেস্টের যোগ্যতামান মিলিয়ে চূড়ান্ত মেধা তালিকা তৈরি হবে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে এই সফল পরীক্ষার্থীদের ন্যূনতম বেতন 54000 এবং সর্বোচ্চ বেতন হবে 25 হাজার 200 পর্যন্ত।

তবে এই পরীক্ষায় আবেদন করার ক্ষেত্রে কিছুটা বয়সের সময়সীমাও রয়েছে। আবেদনকারীদের প্রত্যেকের বয়স 18 থেকে 40 বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে এসসি, এসটি প্রার্থীদের ক্ষেত্রে বাড়তি 5 বছর এবং ওবিসিদের জন্য তিন বছরের ছাড় দেওয়া হয়েছে। রাজ্য সরকারের সূত্রের খবর, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই রাজ্যের সমস্ত সরকারি দপ্তর থেকে এই গ্রুপ সি কর্মীদের শূন্যপদের তালিকা চাওয়া হবে। তবে এই পরীক্ষায় খুব কম হলেও 15 থেকে 18 লক্ষ আবেদনকারী পরীক্ষায় বসতে পারেন বলেই মনে করছেন একাংশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!