এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > বৃদ্ধ মায়ের উপর অত্যাচার,ভাইরাল ভিডিও, বাড়িতে গেলো পুলিশ

বৃদ্ধ মায়ের উপর অত্যাচার,ভাইরাল ভিডিও, বাড়িতে গেলো পুলিশ

মদ্যপ যুবকের অত্যাচারের আরো এক নজির সম্প্রতি স্যোশাল মিডিয়া তোলপাড় করছে। ভিডিও দেখে লজ্জায় চোখ ঢাকছে আট থেকে আশি সকলেই। মর্মস্পর্শী ভিডিওটি দেখে সমালোচকদের ছিঃ ছিঃ রবেরও অন্ত নেই। দেশের যুবক সমাজ যারা কিনা দেশকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কান্ডারী আজ তাদের হাতেই হচ্ছে এধরনের অন্যায়কর কাজ! কিন্তু কী ছিল সেই মর্মান্তিক ভিডিওটিতে? আসুন দেখে নেওয়া যাক্।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

একজন যুবক তাঁর নিজের মাকেই চুলের মুঠি ধরে টানতে টানতে নিয়ে যাচ্ছে। মায়ের আর্ত চিৎকার ভিডিওটি দেখা মানুষগুলোর মরমে আঘাত করলেও পৌছায়নি তাঁর কান অব্দি। অত্যাচার অব্যাহত থাকে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়গ্রাম শহরের তিন নম্বর ওয়ার্ডের শক্তিনগর এলাকায়। অভিযুক্ত যুবকটির নাম গনেশ পাত্র। সংসারে রয়েছেন তাঁর স্ত্রী গীতা পাত্র এবং দুই ছেলে মেয়ে আর বছর পঁয়ষট্টির বৃদ্ধা মা কুন্টি পাত্র। স্ত্রী বাড়ি বাড়ি রান্নার কাজ করলেও গনেশবাবু তেমন কোনো কাজই করেন না। গনেশের মাকেও জীবনধারণের জন্য এই পৌঢ় বয়েসে কাজ করতে হয়। কেটারিংয়ে জোগাড়ের কাজ করেন তিনি। প্রতিবেশীদের অভিযোগ, বেশ কয়েকবছর ধরে প্রায়শই নাকি গনেশ এবং তাঁর স্ত্রী নিয়মিত অত্যাচার করেন বৃদ্ধা মায়ের উপর। মাকে মারধোর করার প্রতিবাদ প্রতিবেশিরা করতে গেলে তাঁদেরকেও মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিতে থাকেন পাত্র দম্পতি।

এদিন দুপুরের পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরতে থাকে কুন্টিদেবীকে মারধর করার ভিডিওটি। ভিডিওটি ভাইরাল হতেই সমালোচনার ঝড় উঠতে থাকে ফেসবুক,ওয়াটস্ অ্যাপে। পুলিশের কাছে খবর পৌছালে রাতেই শক্তিনগর গ্রামে তাঁরা আসে তদন্ত করতে। প্রতিবেশীদের দফায় দফায় জেরা করা হয়। তখনই সামনে আসে অত্যাচারের প্রামাণ্য তথ্য। তবে পুলিশ আসার খবর শুনতেই অভিযুক্ত গনেশ পাত্র তাঁর স্ত্রী এবং ছেলে মেয়েকে নিয়ে বাড়ি ছেড়ে চম্পট দেয়। ওই বাড়িতেই অসুস্থ অবস্থায় রয়েছেন নির্যাতিতা কুন্টি দেবী। তাকে আপাতত দেখ ভাল করছেন প্রতিবেশীরাই। ঝাড়গ্রাম থানার পুলিশের তরফ থেকে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে যে অবিলম্বেই গ্রেফতার করা হবে অভিযুক্তকে। গোটা ঘটনাটাই যুবসমাজের ভাবমূতির উপর কালিমা লেপে দিয়েছে। এমনটাই মনে করছেন সমালোচকরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!