এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বড় খরচ করে ঝাঁ-চকচকে অফিস! অথচ দেখা নেই কর্মী বা অফিসারের! উত্তরকন্যা “লোক দেখানো” – দাবি বিরোধীদের!

বড় খরচ করে ঝাঁ-চকচকে অফিস! অথচ দেখা নেই কর্মী বা অফিসারের! উত্তরকন্যা “লোক দেখানো” – দাবি বিরোধীদের!

উত্তরবঙ্গের মানুষকে যাতে সমস্ত কাজের সুবিধা পেতে কলকাতায় ছুটতে না হয় সেজন্য উত্তরবঙ্গে সরকারের মিনি সচিবালয় হিসেবে শিলিগুড়িতে “উত্তরকন্যা” গড়ে তুলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু ঝাঁ-চকচকে উত্তরকন্যায় এখনও তেমনভাবে কোনো কাজই হয় না।

সূত্রের খবর, 2014 সালে এইখানে সিএমও, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ভূমি, অনগ্রসর, হিল অ্যাফেয়ার্স, পরিবহন, কারিগরি শিক্ষা মিলিয়ে মোট 24 টি দপ্তর স্থাপিত হয়েছিল। কিন্তু দপ্তর থাকলেও সেখানে বসেন না কোনো মন্ত্রী থেকে সচিব। কচিৎকল্পে কখনও কখনও স্থানীয় বাসিন্দা তথা রাজ্যের উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে এখানে বসতে দেখা গেলেও বিভিন্ন দপ্তরদের সচিবের দেখা প্রায় পাওয়াই যায় না।

ঘর আছে, ঘরের দরজায় নামও লেখা আছে, কিন্তু অফিসারের দেখা নেই। ফলে অফিসারদের দেখা না পেয়ে সেই কলকাতাতেই ছুটতে হচ্ছে বিভিন্ন মানুষকে। তাহলে কোটি কোটি টাকা খরচ করে এই উত্তরকন্যা স্থাপনের উদ্দেশ্য কি? বিরোধীদের অভিযোগ, এটা লোক দেখানো ছাড়া আর কিছুই নয়। যে উদ্দেশ্যে এই উত্তরকন্যা স্থাপিত করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী, তা বাস্তবে কার্যকরই হচ্ছে না।

এদিন এই প্রসঙ্গে উত্তরবঙ্গের বাসিন্দা তথা রাজ্যের উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, “নিয়মিত না হলেও সচিবরা এখানে আসেন। এখানে যে সমস্ত দপ্তর রয়েছে তার শব কটিরই কাজ হয়। মোটামুটি উত্তরবঙ্গের কাজকর্ম এখান থেকেই নিয়ন্ত্রিত হয়। অন্যদিকে পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব এই ব্যাপারে কোনোরূপ মুখ খুলতে চাননি।

তবে শাসকদলের নেতা মন্ত্রীরা যাই বলুন না কেন, এই ব্যাপারে সরকারকে তীব্র কটাক্ষ করেছে বিরোধীদল বিজেপি এবং সিপিএম। এদিন এই প্রসঙ্গে শিলিগুড়ির মেয়র তথা সিপিএমের রাজ্য কমিটির সদস্য অশোক ভট্টাচার্য বলেন, “এখানে সচিবালয়ের কোনো ফাংশনই নেই। সচিব পর্যায়ে কোনো অফিসারই এখানে বসেন না। ফলে এই সিদ্ধান্ত নবান্নকেই কার্যকর করতে হয়। তাহলে এই মিনি সচিবালয় তৈরির গুরুত্ব কি?”

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

পাল্টা বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা রাহুল সিনহা এদিন বলেন, “আসলে উত্তরকন্যা মুখ্যমন্ত্রীর একটা নির্বাচনী চমক। নির্বাচন শেষ হয়ে গিয়েছে, তাই এর গুরুত্বও হারিয়েছে। যে উদ্দেশ্যে এই মিনি সচিবালয় তৈরি হয়েছিল সেখানে 10 শতাংশও কাজ হয় না।” সব মিলিয়ে এবার উত্তরকন্যা নিয়েও শাসক-বিরোধী তরজা চরমে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!