এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তর দিনাজপুরকে উন্নয়নে মুড়ে দিতে ৪০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিল উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর

উত্তর দিনাজপুরকে উন্নয়নে মুড়ে দিতে ৪০ কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নিল উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর

লোকসভা ভোটের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে উত্তর দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন জায়গার রাস্তা,সেতু হাট সহ অন্যান্য উন্নয়নমূলক কাজের জন্যে ৪০ কোটি টাকার কাজের প্রস্তাব গ্রহণ করল উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর। দপ্তর থেকেই সরাসরি টেন্ডার করা হবে। মানুষেট চাহিদার দিকে গুরুত্ব দিয়েই কাজগুলি নির্বাচন করা হবে। কাজ যত দ্রু সম্ভব শেষ করার আশ্বাস দিলেন এদিন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।

এদিন সন্ধ্যায় রায়গঞ্জের কর্ণজোড়ায় প্রশাসনিক বৈঠকের পর এমনটাই জানালেন মন্ত্রী। বৈঠকের পাশাপাশি এদিন তাঁর হাত দিয়ে দুটো সেতুর শিলান্যাসও হয়। এছাড়া দাড়িভিট হাইস্কুল লাগোয়া এলাকার একটি সেতু তৈরির আশ্বাস দেন তিনি। বৈঠক শেষে পুরানো কাজের কতোটা অগ্রগতি হয়েছে,সেটাও খতিয়ে দেখেন মন্ত্রী।

এদিন জেলা সফরে গিয়ে ইসলামপুরের মাটিকুণ্ডায় দলঞ্চা ও থুকরাবাড়িতে রতুয়া নদীর উপরে দু’টি সেতুর শিলান্যাস করেন মন্ত্রী। মাটিকুণ্ডার সেতুটির জন্য ৭ কোটি ৮৮ লক্ষ টাকা ও থুকরাবাড়ির সেতুটির জন্য ৭ কোটি ৩৪ লক্ষ টাকা বরাদ্দ হয়েছে। ইসলামপুরের মাটিতে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন,দপ্তর থেকে জেলার সাতটি সেতুর টেন্ডার হয়েছে। চাষীদের সুবিধার কথা মাথায় রেখেই খুব শীঘ্রই সোলার সিস্টেমে পাম্প সেট চালানোর কাজ শুরু করা হবে।

এর ফলে চাষীরা কম খরচে চাষের কাজে সেচ দিতে পারবেন। বিশেষ করে ধানজমিতে এটি কাজে লাগবে। সঙ্গে জুড়ে আরো জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ-এর পর্যাপ্ত জোগানের ঘাটতি আটকাতে স্কুল কলেজ সহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে সোলার সিস্টেম বসানো হবে। এর ফলে বাড়তি বিদ্যুৎ বিক্রি করেও আয় করা যাবে।

ইসলামপুর থেকে রায়গঞ্জে যাওয়ার পথে দাড়িভিট গ্রামের দলঞ্চা নদীর উপরে বাঁশের সাঁকোটি পরির্দশনও করেন রবীন্দ্রনাথবাবু এদিন। ইসলামপুরের বিধায়ক কানাইয়ালাল আগরওয়ালকে তিনি সেতুটি পাকা করার জন্য প্রস্তাব পাঠাতে বলেন। মন্ত্রীর এই সেতু পরিদর্শনে সন্তুষ্ট দাড়িভিটের স্থানীয়রা।

দাড়িভিটের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবী করা সেতুটি নির্মান করার জন্যে প্রাথমিক স্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথাও জানালেন তিনি। তবে নির্মাণকার্যটি সম্পন্ন হতে যথেষ্ট সময় লাগবে বলেও জানান তিনি। পাশাপাশি এদিন সন্ধ্যায় সার্কিট হাউসের বৈঠকে জেলায় উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের মাধ্যমে যে কাজগুলি হচ্ছে সেই সমস্ত কাজের খোঁজ নেন মন্ত্রী।

কোন কাজ আরেকটু আগে শেষ হওয়ার ছিল,কোন কাজে একটি গলদ রয়ে গিয়েছে,কোন কাজ আরো ভালো হতে পারতো,তা নিয়ে বিস্তারে আলোচনা করেন তিনি। তবে এটাও ঠিক যে বর্ষা,ছুটি এবং পুজোর কারণে কাজগুলো একটু পিছিয়ে পড়েছে। এই কাজগুলোকেই এবার অবিলম্বে শেষ করার নির্দেশ দিলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী।

উল্লেখ্য,মাসখানেক পেরিয়ে গেলেও দাড়িভিট কান্ডের জট এখনো উদ্ধার হয়নি। শিক্ষক নিয়োগের দাবীতে রাজ্য পুলিশের গুলিতে কেন ছাত্রদের মৃত্যু হল? এর উত্তর এখনো দিতে পারেনি রাজ্যসরকার। স্থানীয়রা এখনো সিবিআই তদন্তের দাবীতে সোচ্চার রয়েছে। এ ব্যাপারে রাজ্যের শাসকদল এখনো কাঠগড়ায়। লোকসভা ভোটের প্রস্তুতি পর্বে ছাত্র হত্যাকান্ডের মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্য অভিযোগের আঙুল উঠেছে শাসকদলের বিরুদ্ধে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

বিরোধীরা এটাকেই ইস্যু বানিয়ে রাজ্য থেকে তৃণমূল উৎখাতের ডাক দিয়েছে। এরকম প্রতিকূল পরিস্থিতিতে মানুষের মনে জায়গা করে নিতে এবং ভোটব্যাঙ্ক বাঁচাতে দাড়িভিটের উন্নয়নমূলক কর্মসূচিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ার পক্ষপাতী রাজ্যসরকার। এটাকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি রণকৌশল হিসাবেই দেখছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!