এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উস্থির অনশনের চাপে রাজ্য সরকার বেতন বাড়িয়ে পিছু হঠতেই অনশন প্রত্যাহার শিক্ষকদের

উস্থির অনশনের চাপে রাজ্য সরকার বেতন বাড়িয়ে পিছু হঠতেই অনশন প্রত্যাহার শিক্ষকদের

গত ১৪ দিন ধরে রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের অনশন অবশেষে আজ সমাপ্ত হল। ন্যায্য বেতনের দাবিতে বারবার রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়ে অবশেষে আমরণ অনশনের পথ বেছে নেন রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকরা। উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের তরফে ১৯ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা বিকাশ ভবনের অদূরে উন্নয়ন ভবনের সামনে শুরু করেন অনশন।

কিন্তু, রাজ্য সরকার প্রথমে এই অনশনকে ধর্তব্যের মধ্যেই আনতে চায় নি। শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় তো প্রথমে এই নিয়ে কোনো মন্তব্যই করতে চান নি। এমন কি স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী নাম না করে এই আন্দোলনকে কটাক্ষ করে, শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, কেন্দ্রীয় হারে বেতন চাইলে কেন্দ্রে চলে যান! কিন্তু, ক্রমশই অনশনকারী শিক্ষকদের পাশে এসে দাঁড়াতে শুরু করেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সুধীজন সমাজ। তীব্রতর হয় আন্দোলনের চাপ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এই পরিস্থিতি, গতকাল শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় শিক্ষকদের এক দলীয় সংগঠনের বৈঠকে নজরুল মঞ্চে উপস্থিত হয়ে ঘোষণা করেন, তিনি রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকদের গ্রেড-পে ২,৪০০ থেকে বাড়িয়ে ৩,২০০ করছেন – তবে ভবিষ্যতে তা বাড়িয়ে ৩,৬০০ করার চেষ্টা করবেন। এই অবস্থায় যেন অনশনকারী শিক্ষকরা অনশন প্রত্যাহার করে কাজে যোগ দেন। কিন্তু উস্থির তরফে স্পষ্ট জানানো হয়, তাঁদের বিভিন্ন দাবির মধ্যে অন্যতম – গ্রেড-পে বাড়িয়ে ৪,২০০ করতে হবে এবং আন্দোলন করার জন্য ১৪ জন শিক্ষককে যে নৈতিকভাবে বদলি করা হয়েছে তাঁদের ফিরিয়ে আনতে হবে।

উস্থির তরফে রাজ্য সভাপতি সন্দীপ ঘোষ জানান, এই দুই দাবির কোনোটিই পূর্ণ হয় নি। তাছাড়া, এই নিয়ে কোনো জিও-ও প্রকাশ করে নি রাজ্য সরকার। সুতরাং এই পরিস্থিতিতে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া হবে, প্রত্যাহারের কোনো প্রশ্নই নেই। কিন্তু, আজ রাজ্য সরকারের তরফে এক জিও প্রকাশ করে জানানো হয়, শিক্ষকদের গ্রেড-পে ২,৪০০ থেকে বাড়িয়ে ৩,৬০০ করা হল। একই সাথে বদলি হওয়া ১৪ জন শিক্ষককে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারেও নির্দেশিকা জানানো হয়।

আর তাই, রাজ্য সরকারের আর্থিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে আজ অনশন প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নেন উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের শীর্ষ নেতৃত্ব। দীর্ঘ ১৪ দিনের অনশনের পর, যুদ্ধজয়ের উল্লাস প্রাথমিক শিক্ষকদের মধ্যে। শিক্ষক সমাজ এক বাক্যেই মেনে নিচ্ছেন উস্থির আন্দোলনের জেরেই অবশেষে পিছু হঠে রাজ্য সরকার বেতন বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হল। তবে, অনশনকারীরা শারীরিকভাবে খুবই দুর্বল হয়ে পড়েছেন, তাঁদের যথাযথ শারীরিক পরীক্ষা ও প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যাপার সর্বাগ্রে দেখা হচ্ছে শিক্ষকদের তরফে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!