এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উন্নয়নকে চিনতে ভুল করেছিলাম, মনোনয়ন প্রত্যাহার করে তৃণমূলে নাম লিখিয়ে দাবি প্রার্থীর

উন্নয়নকে চিনতে ভুল করেছিলাম, মনোনয়ন প্রত্যাহার করে তৃণমূলে নাম লিখিয়ে দাবি প্রার্থীর

‘আমাকে বাঁচান!ওরা প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে।” এই আর্জি নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করে এসেছিলেন মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের ৫২ নম্বর আসনে হিজল অঞ্চলের কংগ্রেস প্রার্থী তরজিমুন খাতুন।মুর্শিদাবাদের পুলিশ সুপার মুকেশ কুমার বিস্তারে জানতে চাইলে তারজিমুনের স্বামী সাবির আলি শেখ জানিয়েছিলেন- ‘তৃণমূলের আশ্রয়ে থাকা গুন্ডাবাহিনী আমার স্ত্রীর মনোনয়ন প্রত্যাহার করার জন্য ক্রমাগত হুমকি দিয়ে চলেছে। এমনকী একা পেলে, বোমা মেরে আমাকেও খুন করবে বলে শাসিয়ে গিয়েছে।”গত ৬ এপ্রিল মনোনয়ন জমা দেওয়ার পর থেকেই এক নাগাড়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করে আসছিলেন এই প্রার্থী।এমনকি শাসক দলের নির্দিষ্ট মুখগুলির নাম বলতেও পিছপা হননি।অথচ অভিযোগের ২৪ ঘন্টা যেতে না যেতেই উল্টো ছবি দেখালেন তাঁরা।পুলিশও হকচকিয়ে গেলো এই ‘ডিগবাজি’ তে।এই কংগ্রেস প্রার্থীই শুক্রবার তৃণমূলের দলীয় পতাকা গায়ে জড়িয়ে হাসিমুখে জানিয়ে দিচ্ছেন, ”ভুল করেছিলাম উন্নয়নকে চিনতে, কংগ্রেস ছেড়ে এ বার তাই তৃণমূলেই নাম লেখালাম।”প্রার্থীর স্বামী সাবির আলি তৃণমূলের বিশাল পতাকার খুঁটে মুখ মুছে বলছেন যে তাঁর স্ত্রী নাকি কংগ্রেসের হয়ে দাঁড়াতেই চাননি।কংগ্রেস জোর করেই তাঁকে প্রার্থী করেছিলো।শুধু তাই নয়,তৃণমূলের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগও নাকি কংগ্রেসের জেলা নেতৃত্বদের চাপেই হয়েছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

কান্দি মহকুমাশাসকের দফতরে গিয়ে এদিন নিজেই নাম প্রত্যাহার করে তৃণমূল ব্লক সভাপতির গাড়িতে দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের ৫২ নম্বর আসনে হিজল অঞ্চলের কংগ্রেস প্রার্থী তরজিমুন খাতুন বলছেন, ”দিদির উন্নয়নের কাছেই শেষ পর্যন্ত মাথা নিচু হয়ে গেল, তাই বদলে ফেললাম দল।”অর্থাৎ তৃণমূলের হয়ে লড়বেন তিনি এমনটাই সিন্ধান্ত তাঁর।রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে এটাই জানা যাচ্ছে।
এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মুর্শিদাবাদ পুলিশ সুপার মুকেশ কুমারের বক্তব্য, ”ওঁদের অভিযোগ শুনে পুলিশ তো তদন্ত শুরু করেছিল। তবে থানায় গিয়ে ওই মহিলা জানিয়ে এসেছেন, ‘আর খোঁজাখুঁজির দরকার নেই। অভিযোগ তুলে নিচ্ছি।”তৃণমূলের জেলা সভাপতি সুব্রত সাহা এটা শুনে আবার মন্তব্য করেছেন, ”সত্যিই যদি আমাদের দলীয় কর্মীরা এমন হুমকি দিতেন, তা হলে কি দল ছেড়ে বাঘের গুহায় ঢুকতেন ওই মহিলা!”মুর্শিদাবাদ জেলা কংগ্রেস সভাপতি আবু তাহের খান শাসকদলের বিরুদ্ধে সুর টেনে বলছেন, ”এখন ভয়ের নাম উন্নয়ন, গ্রামে কী ধরনের সন্ত্রাস চলছে, বলে বোঝাতে পারব না। প্রাণের ভয়েই ওঁরা নাম প্রত্যাহার করেছেন।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!