এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উড়ান নিয়ে আবার বিতর্কের সূত্রপাত রাজ‌পাল ও রাজ‍্য সরকারের মধ‍্যে

উড়ান নিয়ে আবার বিতর্কের সূত্রপাত রাজ‌পাল ও রাজ‍্য সরকারের মধ‍্যে

মুখ‍্যমন্ত্রীর সঙ্গে রাজ্যপালের দ্বন্দ্ব বেশ কিছুদিন ধরেই রাজনৈতিক চর্চার বিষয় হয়ে উঠেছে। বিভিন্ন বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের মতভেদ লক্ষ্য করা গিয়েছিল আগেই। কিছুদিন আগে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে ঘেরাওয়ের ঘটনায় রাজ্যপাল চূড়ান্ত ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন শাসক দলের প্রতি। এরপর দুর্গাপুজোর কার্নিভাল ঘিরে রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রীর দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে। এদিন আবারও রাজ্যপাল ও রাজ্য সরকারের মধ্যে হেলিকপ্টার নিয়ে দ্বিতীয়বার দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে এলো।

প্রসঙ্গত, হেলিকপ্টার নিয়ে প্রথমবার দ্বন্দ্ব লাগে রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রীর সম্প্রতি রাজ্যপাল ফারাক্কা যাওয়ার জন্য হেলিকপ্টার চাওয়ায়। রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সে সময় হেলিকপ্টার সম্বন্ধে কোনো সদুত্তর না পেয়ে রাজ্যপাল সড়ক পথেই বেরিয়ে যান ফারাক্কার উদ্দেশ্যে। এরপর রাজভবনের তরফ থেকে একটি বিবৃতি জারি করা হয়। ফলে তখন থেকেই বিতর্ক শুরু।

সেই বিতর্ক এখনো শেষ হয়নি। তার মধ্যেই দ্বিতীয় বার আবার কপ্টার বিতর্কের সূত্রপাত হলো। আগামী কুড়ি তারিখ মুর্শিদাবাদের ডোমকলে রাজ্যপালের একটি অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা। আর সে কারণেই রাজ্য সরকারের কাছে তিনি দ্বিতীয়বার হেলিকপ্টার চেয়েছিলেন। কিন্তু এবারে রাজ্য সরকারের তরফে সরাসরি রাজ্যপালকে জানিয়ে দেওয়া হয়, ‘ঐদিন হেলিকপ্টার উপলব্ধ নয়। হেলিকপ্টার দেওয়া যাবেনা রাজ্যপালকে।’ এরপর রাজ্যপাল জানিয়ে দেন তিনি সড়কপথেই মুর্শিদাবাদ যাবেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তবে এই ইস্যুতে রাজ্যপাল চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। অন‍্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীও রাজ্যপাল এর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনি নাম ধরেননি কারুর। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিজেপির মুখপত্র হিসেবে কাজ করছে। একটা সমান্তরাল শাসন চালাচ্ছে। আমার রাজ্যেও এটা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো মেনে চলা উচিত। মনে রাখা দরকার কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার নির্বাচিত।” এদিকে রাজ্যপাল আবার দাবি করেন, ‘রাজনীতির সঙ্গে প্রশাসনকে গুলিয়ে ফেলা উচিত নয়। এটা করলে গণতন্ত্রের ক্ষতি……. তাঁর যাওয়ার দরকার হলে নিশ্চিত ভাবে যাবেন।

সূত্রের খবর, এর আগেও রাজ্যপাল প্রশাসনের কাছে হেলিকপ্টার দাবি করেছিলেন শান্তিপুরের রাস দেখতে যাবেন বলে। কিন্তু সেসময়েও রাজ্য সরকারের তরফ থেকে রাজ্যপালের হেলিকপ্টারের দাবি নাকচ করে দেওয়া হয়। রাজ্যপাল ও রাজ্য সরকারের মধ্যে যেভাবে নিত্যদিন দ্বন্দের মাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাতে রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, গত কয়েক দশকে এরকম বিরোধিতা কোন রাজ্যপালের সাথে রাজ্য সরকারের হয়নি বলেই মনে করা হচ্ছে।

অন‍্যদিকে, রাজ্যপাল কখনো কখনো মাঠে নেমে সরাসরি বিরোধিতা করছেন, আবার কখনো সৌজন্যে দেখাচ্ছেন ফলে তৃণমূল কোন সঠিক দিশা পাচ্ছে না বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তবে সূত্রের খবর, এবার সরাসরি রাজ্যপালের বিরোধিতা করতে আসরে নামতে চলেছে তৃণমূল সরকার।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!