এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ব্রিটিশ শাসনের থেকেও খারাপ অবস্থা বিজেপি শাসিত ত্রিপুরার অভিযোগ বিরোধীদের

ব্রিটিশ শাসনের থেকেও খারাপ অবস্থা বিজেপি শাসিত ত্রিপুরার অভিযোগ বিরোধীদের

“ত্রিপুরার দুমাসের বিজেপি শাসন ভারতে ব্রিটিশ শাসনের থেকেও খারাপ।” এমনভাবেই ক্ষোভ ওগড়ালেন ত্রিপুরার কংগ্রেস সভাপতি বীরজিত সিনহা। কিন্তু কেন তাঁর এমন মন্তব্য? খবরের শিকড়ে পৌছাতে আসুন চোখ রাখা যাক মূল বক্তব্যে।
ত্রিপুরার রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা গেছে, বিপ্লব দেবের নেতৃত্বে বিজেপি ক্ষমতায় আসার দু মাসের ভিতরই কংগ্রেসের ৬০-৭০ বছরের পুরানো পার্টি অফিস বুজডোজার দিয়ে গুড়িয়ে দিলেন এদিন বিজেপি সরকার। শুধু কংগ্রেস নয় সিপিএম সহ আরো কিছু রাজনৈতিক দলের অফিস গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে পশ্চিম ত্রিপুরার জেলাশাসক মিলিন্দ ধর্মরাও, রামটেক এবং পুলিশ সুপার অজিত প্রতাপ সিং এর নেতৃত্বে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এ ঘটনার প্রতিবাদে কঠোর বিক্ষোভে সামিল হয়েছে ত্রিপুরা কংগ্রেস। ১৭ ই মে হবে ধর্না কর্মসূচি যদি এরপরেও ত্রিপুরা সরকার কোনো পার্টি অফিস ভাঙার চেষ্টা করে। এমনটাই হুমকি দিলেন এদিন বীরজিত সিনহা। সহযোদ্ধা গোপাল রায় এবং তাপস দে কে পাশে নিয়েই ত্রিপুরার কংগ্রেস সভাপতি জানান,”প্রত্যেক রাজনৈতিক দল এবং তাদের শ্রমিক সংগঠনের রাজনীতি করার অধিকার আছে এবং এই কাজে অফিসেরও প্রয়োজন।” আসলে বিপ্লব দেবের সরকার সমস্ত বিরোধীদের হটিয়ে একদলীয় সরকার গঠন করতে চাইছেন ত্রিপুরাতে। এমনটাই জানালেন বীরজিত সিনহা। কংগ্রেস নেতা অভিযোগে সরব হয়ে আরো জানিয়েছেন যে বামফ্রন্টের আমলে চালু ৩৩ টি সামাজিক প্রকল্প বন্ধ করে দিয়েছে বিপ্লব দেবের সরকার যাতে উপকার পেতো প্রায় ৪.৫ লক্ষ মানুষ। একই সঙ্গে তিনি জানান যে সাধারণ মানুষ বেশি সমস্যায় পড়ছেন বিজেপি ও তাঁর জোটসঙ্গী আইপিএফটির ভিতর সংঘর্ষের দরুণ। তবে বিজেপি সরকার বলছে যে যে দলীয় অফিসগুলো ভাঙা হয়েছে সেগুলো নাকি সরকারি জায়গা দখল করে ছিল। এসব কিছু নিয়েই উত্তাল এখন ত্রিপুরার রাজনীতি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!